২৯ মার্চ ২০২০

গাজীপুরে জনপ্রিয় হচ্ছে স্ট্রবেরি চাষ

-

জেলার শ্রীপুর ও কাপাসিয়া উপজেলার শীতলক্ষ্যা তীরে স্ট্রবেরির ব্যাপক ফলন হয়েছে। শীতকালীন ফল হিসেবে স্ট্রবেরির প্রচলন থাকলেও প্রান্তিক কৃষকের কল্যাণে এখন স্ট্রবেরি বাংলাদেশেও ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। বাজার চাহিদা, ফলন ও দাম ভালো হওয়ায় প্রতিনিয়ত গাজীপুরের কৃষকের মধ্যে জনপ্রিয় হচ্ছে স্ট্রবেরি চাষ।
স্ট্রবেরি ফলের গন্ধ, বর্ণ ও স্বাদে আকর্ষণীয় এবং রস, জ্যাম, আইসক্রিম, মিল্ক শেকসহ শিল্পায়িত খাদ্য তৈরিতে স্ট্রবেরির সুগন্ধ ব্যাপকভাবে ব্যবহার করা হয়। ১৭৪০ সালে ফ্রান্সে প্রথম স্ট্রবেরির চাষ শুরু করা হয়। পরে চিলি, আর্জেন্টিনাসহ বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ে স্ট্রবেরি চাষ। শীতপ্রধান দেশের ফল স্ট্রবেরি হলেও বর্তমানে বাংলাদেশের যেসব এলাকায় শীত বেশি সেসব এলাকায় বিভিন্ন জাতের স্ট্রবেরি চাষ হচ্ছে। অনেকে বাড়ির ছাদে চাষ করলেও এখন বাণিজ্যিকভাবে স্ট্রবেরির চাষ শুরু করেছেন গাজীপুরের কাপাসিয়া এলাকায়।
গাজীপুরের শীতলক্ষ্যা নদীর তীরের কাপাসিয়ার সিংহী ইউনিয়নের একটি গ্রাম কুড়িয়াদী। এ গ্রামের কয়েকজন কৃষক নদীর তীরে জেগে উঠা চরে শীতকালীন ফসলের চাষ করে থাকেন। বর্তমানে কৃষি কাজে ভিন্নতা আনতে চলতি মৌসুমে পাশের শ্রীপুর উপজেলার মৌমিতা ফ্লাওয়ার্সের মালিক দেলোয়ার হোসেনের পরামর্শে গ্রামের কয়েকজন কৃষক ওই সব জমিতে স্ট্রবেরির চাষ শুরু করেন।
কৃষক তোফায়েল আহমেদ জানান, বর্ষায় জমিগুলো পানিতে ডুবে যায় এবং বর্ষা শেষে নদীর পানি নেমে যায়। এতে পলিমাটি জমে বেশ উর্বর হয়ে থাকে। এ মাটিতে যে কোনো ফসলের চাষ করলেই ভালো ফলাফল পাওয়া যায়। তিনি এক হাজার স্ট্রবেরির চারা ওই জমিতে রোপণ করেন। প্রতিটি চারার দাম ছিল ৩০ টাকা। কয়েকমাস পরিচর্যা করার পর এখন ফল পাওয়া যাচ্ছে। প্রতি কেজি স্ট্রবেরি ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা কেজি বিক্রি করেছেন। এ পর্যন্ত তিনি দেড় লাখ টাকার স্ট্রবেরি বিক্রি করেছেন। তার পাশাপাশি নদীর চরে স্ট্রবেরির চাষ করেছেন একই এলাকার আবদুর রাজ্জাক। তিনি প্রায় সাত হাজার স্ট্রবেরির চারা রোপণ করেছেন। এ ছাড়াও হুমায়ুন কবির রোপণ করেছেন ১৩ হাজার স্ট্রবেরির চারা।
কাপাসিয়া উপজেলার কুড়িয়াদী গ্রামের স্ট্রবেরি চাষি হুমায়ুন কবির জানান, অনেক টাকা পয়সা খরচ করে একটি পেঁপের বাগান করেছিলাম। গত মৌসুমে শীলাবৃষ্টিতে নষ্ট হয়ে যায়। এতে আমার অনেক লোকসান হয়েছিল। তাই এবার আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি স্ট্রবেরি চাষ করব। এবার নদীর তীরের পতিত জমিতে স্ট্রবেরি চাষ করে ভালো ফলনও পেয়েছি। এখন আমার স্টবেরি চাষ দেখে এলাকার অনেক কৃষক আগামী মৌসুমে স্ট্রবেরি চাষে আগ্রহী হচ্ছেন।
গাজীপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক মাহবুব আলম জানান, স্ট্রবেরি ফলের মধ্যে উচ্চমাত্রায় পুষ্টি রয়েছে। এ ফল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি রোগমুক্তিতেও সহায়তা করে। গাজীপুরে স্ট্রবেরির চাষ হলেও আমরা এর পরিমাণ নির্ধারণ করতে পারিনি। অনেকে শখে বাসা-বাড়িতে স্ট্রবেরির চাষ করলেও এখন কাপাসিয়ায় শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে জেগে উঠা চরে বাণিজ্যিকভাবে চাষ করছেন। এ চাষ লাভজনক বিধায় গ্রামীণ অর্থনীতিতে অবদান রাখবে।

 


আরো সংবাদ

বৃদ্ধকে কান ধরে উঠবস করানো এসিল্যান্ডকে একহাত নিলেন আসিফ নজরুল (২৫১২২)করোনার বিরুদ্ধে লড়াকু ‘বীর’ চিকিৎসক যে ভয়াবহ বার্তা দিয়েই মারা গেলেন (২৪৫০৫)ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর করোনার খবরে পেছনের দরজা দিয়ে পালালেন উপদেষ্টা (ভিডিও) (১৪৩৬২)অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া আর নেই (১২১৬৭)মুক্ত খালেদা জিয়ার সাথে দেখা হলো না সানাউল্লাহর (৯৭৮৩)কান ধরে উঠবস করানো সেই এসিল্যান্ড প্রত্যাহার (৯৭০৬)করোনার ওষুধ আবিষ্কারের দাবি ডুয়েটের ৩ গবেষকের (৯১৭৪)প্রবাসীর স্ত্রীর পরকীয়ার বলি মেয়ে (৮৮৯৯)করোনার আক্রমণে করুণ অবস্থা যুক্তরাষ্ট্রের (৮৭৮৩)মোদি-যোগির রাজ্যে ক্ষুধার জ্বালায় ঘাস খাচ্ছে শিশুরা (৮৫৯৭)