০৮ এপ্রিল ২০২০

দেশে সভ্য সরকার থাকলে খালেদা জিয়া মুক্তি পেতেন : মঈন খান

খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে জাতীয় প্রেস কাবে গতকাল গণতন্ত্র ফোরামের প্রতিবাদ সভা : নয়া দিগন্ত -

দেশে সভ্য সরকার থাকলে এত দিনে দেশনেত্রী খালেদা জিয়া মুক্তি পেতেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে গতকাল রোববার জাতীয় প্রেস কাবের মাওলানা আকরম খাঁ হলে ‘গণতন্ত্র ফোরামে’র উদ্যোগে আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।
মঈন খান বলেন, দীর্ঘ দুই বছরেও আমরা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে পারিনি। আমরা শান্তিপূর্ণ প্রক্রিয়ায় তাকে মুক্ত করার চেষ্টা করেছি। আমরা অবস্থান ধর্মঘট, মানববন্ধন, অনশন, বিােভ সমাবেশ ও মিছিল করেছি। যদি দেশে সভ্য সরকার থাকত, তাহলে এতে কাজ হতো।
তিনি বলেন, আমরা ঔপনিবেশিক শক্তি বলে যত গালিগালাজ করি, ২০০ বছর তারা আমাদের এক্সপ্লয়েট করেছে বলে যত কিছুই বলি, কিন্তু তারা সভ্য জাতি ছিল বলেই গান্ধীর মতো লোক শান্তিপূর্ণ অহিংস আন্দোলনের মাধ্যমে ভারতবর্ষকে স্বাধীন করেছিলেন। আজকে বাংলাদেশের সমাজব্যবস্থায় সে চিত্র নেই।
মঈন খান বলেন, আজকে বাংলাদেশের সত্যিকার পরিস্থিতি কী, সে পর্যালোচনা আমাদের করতে হবে। আমি বিশ্বাস করি, সেই বাস্তব পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে আমরা দেশনেত্রীকে মুক্ত করার জন্য সামনের দিকে এগিয়ে যাবো। বাংলাদেশের বর্তমান বাস্তবতাকে অস্বীকার করে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে পারব বলে আমার বিশ্বাস হয় না। এটাই হচ্ছে সবচেয়ে কঠিন সত্য। এ সরকার জনগণকে ভয় পায়, গণতন্ত্রের আপসহীন নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে ভয় পায়। দেশনেত্রীর ভয়ে ভীত হয়ে সরকার বিচারব্যবস্থাকে কুগিত করে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় তাকে শাস্তি দিয়েছে।
‘রাজপথেই খালেদার মুক্তি’
নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, যেদিন বেগম জিয়া জেলে গেলেন, এটা তো এক ধরনের রাজকীয় বেশে, রাজকীয় পদ্ধতিতে, রাজকীয় সমাবেশের মধ্য দিয়ে বীরের বেশে হাঁটতে হাঁটতে জেলে গেছেন। পেছনে হাজার হাজার মানুষ। এখন হাজার হাজার মানুষ রাজপথে হাঁটে না কেন? এখানে বক্তৃতায় যে ভাষায় কথা বলেছেন, সেই ভাষা, সেই শব্দের উচ্চারণ রাজপথে নেই কেন? আমি মনে করি ওটা ছাড়া বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে না।
তিনি বলেন, আমি মনে করি, খালেদা জিয়ার প্রতি মানুষের যে ভালোবাসা আছে, দল যদি নেতৃত্ব দিতে পারে তাহলে তিনি বীরের বেশে জেল থেকে বেরিয়ে আসবেন। যদি আনতে না পারেন তাহলে বক্তৃতা করছেন কেন? তাহলে শুধু শুধু দল করেন কেন? বক্তৃতা নয়, জীবন বাজি রেখে সেরকম পণ করে সে লড়াই করার কর্মসূচি নেন। আবার বলি, এমন কর্মসূচি নেন, যার মাধ্যমে তাকে মুক্ত করা যেতে পারে।
বিএনপির প্রতি প্রশ্ন রেখে মান্না বলেন, আমি বারবার বলি, মানুষ যদি মনের দিক থেকে পরাজিত হয় তাহলে তার চাইতে বড় পরাজয় আর নেই। বিএনপি কি মনের দিক থেকে পরাজিত? বিএনপি কি মনে করে বেগম জিয়া জীবিত বেরোতে পারবেন না। তাহলে বিএনপি মরে গেছে।
সংগঠনের সভাপতি ভিপি ইব্রাহিমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় এলডিপির ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল, বিএনপির বিলকিস ইসলাম, তাঁতী দলের আবুল কালাম আজাদ, মহিলা দলের রাজিয়া আলীম, জাসাসের শাহরিয়ার ইসলাম শায়লা, কৃষক দলের শাহজাহান মিয়া সম্রাট অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

 


আরো সংবাদ

সেই প্রিয়া সাহা করোনায় আক্রান্ত! (৫০৮৩৩)নিজ এলাকায় ত্রাণ দিয়ে ঢাকায় ফিরে করোনায় মৃত্যু, আতঙ্কে স্থানীয়রা (৪৪৬১১)বেওয়ারিশের মতো সারা রাত সঙ্গীতশিল্পীর লাশ পড়েছিল রাস্তায় (২৬৭২১)দীর্ঘদিন জেলখাটা আসামিদের মুক্তির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর (২০২৫৬)করোনা ছড়ানোয় চীনকে যে ভয়ঙ্কর শাস্তি দেয়ার দাবি উঠল জাতিসংঘে (১৬৩৮৯)কাশ্মিরে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে নিহত ভারতীয় দুর্ধর্ষ কমান্ডো দলের সব সদস্য (১৫৫২৩)রোজার ঈদের ছুটি পর্যন্ত বন্ধ হচ্ছে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (১৩০৭৯)করোনার লক্ষণ নিয়ে নিজের বাড়িতে মরে পড়ে আছে ব্যবসায়ী, এগিয়ে আসছে না কেউ (১২৮০৫)ঢাকায় নতুন করে ৯টি এলাকা লকডাউন (১০৬৪৩)সবচেয়ে ভয়াবহ দিন আজ : মৃত্যু ৫, আক্রান্ত ৪১ (১০০৬১)