০২ মার্চ ২০২১
`

নুসরাত তৃণমূলে, বন্ধু বিজেপিতে

নুসরাত তৃণমূলে, বন্ধু বিজেপিতে - ছবি : সংগৃহীত

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে ক্ষণে ক্ষণে রঙ পাল্টাচ্ছে। তৃণমূল কংগ্রেস থেকে নেতারা যাচ্ছেন বিজেপিতে আবার উল্টো ঘটনাও ঘটছে। এরমধ্যেই খবর এলো তৃণমূল কংগ্রেসের নির্বাচিত এমপি নুসরাত জাহানের বিশেষ বন্ধু যশ দাশগুপ্ত বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন।

এই খবরটি পশ্চিমবঙ্গের গণমাধ্যমে বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে অন্য আরেকটি কারণে। বেশ কয়েক মাস ধরেই অভিনেত্রী নুসরাত জাহানের সংসারে চলছে টানপোড়েন । স্বামী নিখিল জৈনের বাসা ছেড়ে তিনি থাকছেন বাবার বাসায়। সামাজিক মাধ্যমেও একজন আরেকজনকে ব্লক করেছেন। এরমধ্যেই খবর রটে যশ গুপ্তের সাথে নতুন সম্পর্কে জড়িয়েছেন নুসরাত। নতুন বছরের শুরুতে দুজন একসাথে রাজস্থান বেড়াতে গিয়েছেন বলেও গুঞ্জন উঠে। পরে আজমীর শরীফে গিয়ে একটি ছবি তোলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দিয়ে ছিলেন তারা। এরমধ্যে দিয়ে দুজনের সম্পর্কের খবরটি আরো পাকাপোক্ত হয়।

সম্পর্ক ভাঙ্গা গড়ার কারণ হিসেবে কলকাতার পত্রিকাগুলোতে যে বিষয়গুলো সামনে নিয়ে এসেছিল তার মধ্যে অন্যতম নিখিলের পরিবারের রাজনৈতিক মতাদর্শ। ওই পরিবারের লোকজন নাকি নুসরাতের বিপরীত মতাদর্শের রাজনীতির সাথে যুক্ত। এখন যশ গুপ্তও বিজেপিতে যোগ দিয়ে জানান দিলেন মনের দিক দিয়ে এক হলেও রাজনৈতিকভাবে দুজন আলাদা জগতের মানুষ।

যশ গুপ্ত ছাড়াও বুধবার বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন টলিউডের আরেক অভিনেত্রী পাপিয়া অধিকারী। বিজেপিতে যোগ দিয়েই যশের মন্তব্য, ‘যুবসম্প্রদায়ের আরো বেশি করে রাজনীতিতে আসা উচিত দেশ-দশের উন্নতির জন্য।’

ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহের কথা। বিজেপির সহ-সভাপতি মুকুল রায়ের সল্টলেকের ফ্ল্যাটে গিয়ে তার সাথে দেখা করেছিলেন যশ দাশগুপ্ত। আলোচনার সূত্রপাত সেখান থেকেই। এক্ষেত্রে উল্লেখ্য গত কয়েক মাসে নুসারত ও যশের যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, তা কিন্তু অনেকেরই নজরে পড়েছে। এদিকে আবার, বিজেপি শিবিরের নেতা-মন্ত্রীদের গতিবিধির উপরও কড়া নজর নুসরত জাহানের। বাজেট পেশ হোক কিংবা কৃষি বিল থেকে দেশের বাড়তে থাকা বেকারত্ব, যাবতীয় বিষয়েই তিনি বিজেপি সরকারের সমালোচনায় সরব। বলা ভাল, তৃণমূলের মুখপাত্র হিসেবে এমপি নুসরত জাহানের পদ্ম-বিরোধী টুইট রীতিমতো ‘সুপারহিট’! আর সেই প্রেক্ষিতেই যশের বিজেপিতে যোগ দেয়া, তার এমপি বন্ধুর প্রতিক্রিয়ার অপেক্ষায় রাজনৈতিকমহল।

প্রসঙ্গত, রুদ্রনীল ঘোষের বিজেপিতে যোগ দেয়ার পর থেকেই রাজ্যের শাসক দলে তারকাদের যোগদানের সংখ্যা কিন্তু বেড়েছে বই কমেনি, যা নিয়ে রাজনৈতিক মহলের অন্দরেও জোর চর্চা চলছে। তিনি আগেই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে, ইন্ডাস্ট্রির আরো অনেকে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন।

মঙ্গলবার মুকুল রায়ের জন্মদিনে ভিডিও বার্তায় শুভেচ্ছা জানান টলিউডের একঝাঁক অভিনেতা-অভিনেত্রী। সেই দলে ছিলেন সায়নী ঘোষও। সেই থেকেইন আলোচনার সূত্রপাত। তবে এখনই তিনি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন। হিরণ চট্টোপাধ্যায় ও চিরঞ্জিতের গেরুয়া শিবিরে যোগদানের কথা শোনা গেলেও, বুধবারের যোগদান পর্বে কাউকেই দেখা গেল না।

ইতিমধ্যেই ঘাসফুল বনাম পদ্মফুলের নির্বাচনী প্রচার লড়াই শুরু হয়ে গিয়েছে। দুয়ারে একুশের নির্বাচনের জন্য সম্মুখ সমরে তৃণমূলের ‘স্টার স্ট্র্যাটেজি’ও তুঙ্গে। কাজেই সবুজ শিবিরকে টেক্কা দিতে বঙ্গ বিজেপিও বেশ গুছিয়ে ‘রণনীতি’ সাজাচ্ছে। রাজ্য-রাজনীতিতেও দল-বদলের হাওয়া। একের পর এক তৃণমূল নেতামন্ত্রী শিবির বদলাচ্ছেন। কারও গেরুয়া শিবিরে নাম লেখানোর জল্পনা হাওয়ায় ভাসছে, কেউ বা আবার রাজ্যের শাসক দলের হয়ে সুর চড়াচ্ছেন। সব মিলিয়ে একুশের বিধানসভা নির্বাচন এখন মধ্যমণি। এর মাঝেই নিত্যদিন তারকাদের রাজনীতিতে যোগদানের খবর প্রকাশ্যে আসছে। অতঃপর যশ দাশগুপ্তও সেই হাওয়াতেই গা ভাসিয়ে যে পদ্ম শিবিরের নির্বাচনী প্রচারের ‘স্টার ক্যান্ডিডেট’ হতে চলেছেন, তা স্পষ্ট!



আরো সংবাদ