০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

কুমিল্লায় নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগে বুড়িচং থানা পুলিশ কারাগারে

কুমিল্লায় নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগে বুড়িচং থানা পুলিশ কারাগারে - ছবি : সংগৃহীত

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের লড়িবাগ এলাকা থেকে এক কলেজছাত্রীকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে সিএনজিতে উঠিয়ে শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত ও কুপ্রস্তাবের অভিযোগে বুড়িচং থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এ এস আই) মালেক ও তার সহযোগী সিএনজিচালক বিল্লালকে গ্রেফতারের পর আদালতে পাঠালে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়া হয়।

রোববার (০২ অক্টোবর) বিকেলে বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মারুফুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এর আগে ১৭ সেপ্টেম্বর দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে ২টা ৩০ মিনিটে উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের লড়িবাগ রাস্তার মাথায় এ ঘটনা ঘটে। ২৫ সেপ্টেম্বর ভূক্তভোগী কলেজ ছাত্রীর পিতা মামলা করেন।

আটককৃতরা হলেন কুমিল্লা বুড়িচং থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এ এস আই) আব্দুল মালেক ও মো: বিল্লাল হোসেন বুড়িচং উপজেলার পীর যাত্রাপুর ইউপির কন্ঠনগর গ্রামের সুলতান আহম্মেদের ছেলে।

ভূক্তভোগী ও মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কুমিল্লা বুড়িচং রাজাপুর ইউনিয়নে শংকুচাইলের লড়িবাগ এলাকার স্থানীয় একটি ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছদ্মনাম (পিয়া)। বাবা মুদি দোকানদার। মা অসুস্থ থাকায় মার জন্য ওষুধ আনতে বাড়ি থেকে বের হয়ে রাস্তায় গাড়ি না থাকায় পায়ে হেটে লড়িবাগ রাস্তার মাথায় পৌঁছলে একটি সিএনজি অটোরিকশা এসে সামনে দাড়িয়ে সিএনজির ভেতরে থাকা ব্যক্তি তাকে গাড়িতে উঠতে বলেন। গাড়িতে থাকা ব্যক্তি পুলিশের পোশাক পরিহিত থাকায় দ্বিধাহীনভাবে কোনো চিন্তা না করে সিএনজিতে উঠেন। সিএনজিতে উঠার পর পুলিশ পরিচয় দেয়া ব্যক্তি তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় এবং লজ্জাস্থানে স্পর্শ করে। পরে তার
সাথে সম্পর্ক রাখলে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা আদায় করে দিবে বলে প্রলোভন দেখায়। তাকে তার কাপড়ের সাইজ কত অন্তর্বাশের সাইজ কত বিভিন্ন অশ্লীল কথাবার্তা বলে। দীর্ঘ দু’ঘণ্টা বুড়িচং থানার বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাঘুরি করে তার শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর জায়গায় স্পর্শ করে শ্লীলতাহানী করে বাড়ির সামনে নামিয়ে দেয়। এ সময় সিএনজিতে থাকা পুলিশ পরিচয় দেয়া ব্যক্তি ও সিএনজিচালক তাকে বলে সে যদি এ বিষয়ে কাউকে কিছু বলে তার বড় ধরনের ক্ষতি হবে বলে হুমকি দেয়।

এ ঘটনার পর (পিয়া) কলেজে যাওয়া বন্ধ করে দেয়। তাকে তার পরিবার কলেজে না যাওয়ার কারণ জিজ্ঞেস করলে একপর্যায়ে তার পরিবারকে বিষয়টি জানান। পরে তার এলাকায় ও থানায় খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায় সিএনজিতে থাকা লোকটি বুড়িচং থানার উপ-পরিদর্শক (এ এস আই) আব্দুল মালেক ও সিএনজিচালক মো: বিল্লাল হোসেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কুমিল্লা বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মারফুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় কলেজছাত্রীর বাবা মামলা করলে আমরা অভিযুক্ত থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক এ এস আই মালেক ও তার সহযোগী সিএনজিচালক বিল্লালকে আদালতে হাজির করি। আদালত তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর আর্দেশ দেয়। বর্তমানে তারা কারাগারে রয়েছেন বলে জানান তিনি।


আরো সংবাদ


premium cement