২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯, ২৮ সফর ১৪৪৪ হিজরি
`

ফেনীতে ছাত্রলীগের হামলায় বিএনপির সমাবেশ পণ্ড, আহত অর্ধশত

সংঘর্ষে উভয় পক্ষে আহত হয়। - ছবি : নয়া দিগন্ত

ফেনীতে বিএনপির পূর্বনির্ধারিত সমাবেশ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হামলায় পণ্ড হয়ে গেছে। এতে দুইপক্ষের সংঘর্ষে অর্ধশত ব্যক্তি আহত হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে শহরের শহীদ শহীদুল্লা কায়সার সড়ক ও ইসলামপুর রোডে এ ঘটনা ঘটে। হামলার ঘটনায় উভয়পক্ষ পরস্পরকে দোষারোপ করছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে শুক্রবার বিকেলে শহরে পূর্বনির্ধারিত সমাবেশে জড়ো হতে থাকে বিএনপি নেতাকর্মীরা। একই সময় সন্ত্রাস-নৈরাজ্যের প্রতিবাদে শহীদ শহীদুল্লাহ কায়সার সড়কে ছাত্রলীগ পাল্টা মিছিল বের করে। এসময় বিএনপির সমাবেশে যোগ দিতে আসা নেতাকর্মীদের মিছিলে ইটপাটকেল ছুড়ে হামলা চালায় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। দুইপক্ষ মুখোমুখি হলে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। হামলার সময় ইটপাটকেলে পার্শ্ববর্তী শাহআলম টাওয়ার, মেঘনা ব্যাংক, গার্ডেন রেস্টুরেন্ট ও বলাই ইলেক্ট্রিকের গ্লাস-সাইনবোর্ড ভেঙ্গে যায়।

এতে ইটপাটকেল ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় উভয়পক্ষের অন্তত ৫০ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে জেলা যুবদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক লুৎফুর রহমান রতনের মাথা ফেটে ও ছাত্রলীগ কর্মী আহাদের দুটি দাঁত ভেঙ্গে যায়।

হঠাৎ সংঘর্ষের ঘটনায় পুরো শহরে আতংক-উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়ে।

ফেনী জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক এ এস এম সৌরভ আল হোসাইন জানান, সংঘর্ষে আহত কয়েকজনকে হাসপাতালে নেয়া হলে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

জেলা বিএনপির সদস্য সচিব আলাল উদ্দিন আলাল জানান, বিএনপির পূর্বনির্ধারিত সমাবেশ শুরু হলে ছাত্রলীগ অতর্কিত হামলা চালিয়ে পন্ড করে দেয়। তাদের হামলায় বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের অন্তত ৩৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শেখ ফরিদ বাহার জানান, বিএনপির পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচিতে বাধা দিতে আওয়ামী লীগ শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে সশস্ত্র পাহারা বসায়। বাধা উপেক্ষা করে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে সাধারণ মানুষের স্রোত দেখে পেছন থেকে হামলা চালায়। হামলায় জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম-সম্পাদক রতন, পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক খুরশিদ আলম, সদর যুবদলের সদস্য লিটনসহ বিএনপির ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

তবে উল্টো অভিযোগ করে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি তোফায়েল আহাম্মদ তপু বলেন, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা শহরে সন্ত্রাসবিরোধী মিছিল বের করলে পরিকল্পিতভাবে বিএনপির সমাবেশ থেকে হামলা চালানো হয়।

পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী জানান, খবর পেয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের নিবৃত্ত করে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে নিই। বিএনপির মিছিলে কে/বা কারা হামলা করেছে সেটি আমাদের জানা নাই। সিসিটিভির ফুটেজ দেখে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

ফেনী মডেল থানার ওসি মো: নিজাম উদ্দিন জানান, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শর্টগানের ১৮-২০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।


আরো সংবাদ


premium cement