০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯,
`

পার্বত্যচুক্তি বাস্তবায়নে সুনির্দিষ্ট রোডম্যাপ ঘোষণার দাবি সন্তু লারমার


পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা ওরফে সন্তু লারমা পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির যথাযথ বাস্তবায়ন ও চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য আবারো একটি সুনির্দিষ্ট রোডম্যাপ ঘোষণার দাবি জানিয়েছেন।

শুক্রবার রাঙ্গামাটি জিমনেসিয়াম প্রাঙ্গনে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের ৩৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সন্মেলনে ছাত্র-জনসাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সন্তু লারমা এসব কথা বলেন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, সরকার ১৯৯৭ সালে পার্বত্য চুক্তি স্বাক্ষর করলেও ওই চুক্তি বাস্তবায়নের দিকে এগিয়ে যায়নি। বরং চুক্তি বাস্তবায়নের নামে বাস্তবায়ন প্রক্রিয়াকে নানাভবে বাধাগ্রস্ত করে চুক্তিকে এমন একটা পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, যাতে পাহাড়ের জুম্ম জনগণ এক দিন চুক্তির স্বাক্ষরের কথাই ভুলে যায়।

রাঙ্গামাটি জিমনেসিয়াম মাঠে আয়োজিত সমাবেশে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি সুমন মারমার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃ-বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক জোবায়দা নাসরিন, বিশিষ্ট সাংবাদিক নজরুল কবীর, বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবি ও কবি শিশির চাকমা।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্যে রাখেন, ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের জগদীশ চাকমা প্রমুখ।

এর আগে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা জাতীয় পাতাকা উত্তোলন করেন। বেলুন উড়িয়ে সমাবেশের উদ্বোধন করেন শিক্ষাবিদ মংসানু চৌধুরী। সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ-মিছিল জিমনেসিয়াম মাঠ থেকে শহরের বনরুপা এলাকা পর্ষন্ত গিয়ে পুনরায় জিমনেসিয়াম মাঠে গিয়ে শেষ হয়।

সন্তু লারমা আরো অভিযোগ করে বলেন, পার্বত্য চুক্তির ২৫ বছর অতিবাহিত হতে চলেছে। এই ২৫ বছরের মধ্যেও সরকার অনুভব করেনি যে পার্বত্যাঞ্চল থেকে উপদ্রুত এলাকা হিসেবে ঘোষণা ও অপারেশন দাবানলের মতো অপরেশন উত্তোরণ ঘোষণা করেছিল তা প্রত্যাহার করার। বরং সরকার ধীরে ধীরে, ধাপে ধাপে জাতিগত শোষন-নিপীড়ন-বঞ্চনার মাত্রা পরিধি বাড়িয়ে সর্বদিক দিয়ে সম্প্রসারিত করেছিল।


আরো সংবাদ


premium cement