২২ মে ২০২২
`

স্বামীর সাথে অভিমান, চার বছরের শিশুর সামনে গৃহবধূর আত্মহত্যা

স্বামীর সাথে অভিমান, চার বছরের শিশুর সামনে গৃহবধূর আত্মহত্যা - প্রতিকী ছবি

লাকসামে স্বামীকে দায়ী করে চিরকুট লিখে নিজ ঘরে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন এক গৃহবধু। দুই সন্তানের জননী ওই গৃহবধূর নাম নাজমা আক্তার (২৮)। রোববার রাতে লাকসাম পৌরশহরের পশ্চিমঁগাও এলাকায় ভাড়া বাসা থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ সময় ওই গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশের হাত থেকে ‘আমি বাচঁতে চাই না, আমি মরতেই চাই, আমার মৃত্যুর জন্য আমার স্বামীই দায়ী’ লিখা একটি চিরকুট উদ্ধার পাওয়া যায়। নিহত গৃহবধূ নাজমা আক্তার মনোহরগঞ্জ উপজেলার সরেসপুর ইউনিয়নের গোপালপাড়া গ্রামের মৃত রৌশন আলীর মেয়ে ও একই গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে প্রবাসী নাছির উদ্দীনের স্ত্রী। স্বামী বিদেশ থাকায় দুই সন্তান নিয়ে নাজমা গত কয়েক বছর ধরে লাকসাম পৌরশহরে পশ্চিঁমগাও এলাকায় ভাড়া বাসায় নিয়ে থাকতেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, লাকসাম পৌরশহরে পশ্চিঁমগাও এলাকায় একটি ৪তলা ভবনের নিচ তালায় ভাড়া থাকতেন নাজমা আক্তার। দুই দিন আগে বড় ছেলে নাহিদ (৭) নানার বাড়ির মনোহরগঞ্জে যান। রোববার ছোট ছেলে নাফিজকে (৪) সঙ্গে নিয়ে দুপুরের খাবার খেয়ে নাজমা আক্তার তার স্বামী নাছির উদ্দীনের সাথে মোবাইলে কথা বলেন।

পরে সন্ধ্যার কিছুক্ষণ আগে ছেলে নাফিজের সামনে গলায় ওড়না পেচিয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন নাজমা আক্তার। এ সময় নাফিজের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এসে নাজমাকে ফাঁসিতে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে। এ সময় তার হাতে থাকা চিরকুটটি উদ্ধার করা হয়।

লাকসাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেজবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া খবরটি নিশ্চিত করে বলেন, গৃহবধূর আত্মহত্যার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে গিয়েছি। প্রাথমিকভাবে এটিকে আত্মহত্যা বলেই মনে হয়েছে। তবুও মৃত্যুর সঠিক কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হতে তার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।


আরো সংবাদ


premium cement