২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮, ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩
`

চট্টগ্রামে হাফ ভাড়া ১১ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর

চট্টগ্রামে হাফ ভাড়া ১১ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর - ফাইল ছবি

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে চট্টগ্রামে হাফ ভাড়া চালু করেছে বাস মালিক সমিতি। রোববার চট্টগ্রাম বাস মালিক সমিতির নেতারা আনুষ্ঠানিকভাবে এ ঘোষণা দেন। আগামী ১১ ডিসেম্বর থেকে এ ভাড়া কার্যকর হবে।

এর আগে গত শুক্রবার চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন বাসমালিক সমিতির সভাপতি বেলায়েত হোসেন বেলাল গণমাধ্যমকে বলেন, চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়ার বিষয়ে আমরা কয়েকটি মালিক সমিতির নেতাদের সাথে বৈঠকে বসেছিলাম। সেখানে আমরা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি। আমরা আগামী রোববার একটি ইতিবাচক ঘোষণা আসতে পারে।

উল্লেখ্য, সারা দেশে শিক্ষার্থীদের জন্য বাসে হাফ ভাড়া কার্যকরসহ ১১ দফা দাবি জানিয়ে আন্দোলন করেছে রাজধানীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। গতকালও তারা রামপুরা ব্রিজ, মতিঝিল শাপলা চত্বরসহ কয়েকটি স্থানে বিক্ষোভ করে।

শিক্ষার্থীরা বলছে, মালিকপক্ষ শুধু ঢাকা শহরের শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ পাস কার্যকর করার ঘোষণা দিয়েছে। এটি গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা চাই সারা দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ ভাড়া কার্যকর করে সরকার গেজেট প্রকাশ করবে। একই সাথে নিরাপদ সড়কের পাশাপাশি ১১টি দাবি উত্থাপন করেন শিক্ষার্থীরা। এই দাবি বাস্তবায়ন না হলে নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আন্দোলন চলতে থাকবে। এইচএসসি পরীক্ষার জন্য আপাতত রাস্তা অবরোধ কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে।

এ দিকে রামপুরা থেকে শিক্ষার্থীরা নতুন ১১ দফা দাবিতে বলেছেন সড়কে নাঈম ও মাঈনউদ্দিন হত্যার বিচার করতে হবে। তাদের পরিবারকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। গুলিস্তান ও রামপুরা ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় পথচারী পারাপারের জন্য ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে।

সারা দেশে সব গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ পাস সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি করে নিশ্চিত করতে হবে। হাফ পাসের জন্য কোনো সময় বা দিন নির্ধারণ করে দেয়া যাবে না। বর্ধিত বাস ভাড়া প্রত্যাহার করতে হবে। সব রুটে বিআরটিসি বাসের সংখ্যা বাড়াতে হবে।

গণপরিবহনে ছাত্রছাত্রী এবং নারীদের অবাধ যাত্রা ও ভালো ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। ফিটনেস ও লাইসেন্সবিহীন গাড়ি এবং লাইসেন্সবিহীন চালককে নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। গাড়ি ও ড্রাইভিং লাইসেন্স নিয়ে বিআরটিএর দুর্নীতির বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

সব রাস্তায় ট্রাফিক লাইট, জেব্রাক্রসিং নিশ্চিত করাসহ জনবহুল সড়কে ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা বাড়াতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের ঘুষ দুর্নীতির বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে। বাসগুলোর মধ্যে বেপরোয়া প্রতিযোগিতা বন্ধে এক রুটে এক বাস এবং দৈনিক আয় সব পরিবহন মালিকের মধ্যে তাদের অংশ অনুয়ায়ী সমানভাবে বণ্টন করার নিয়ম চালু করতে হবে।

শ্রমিকদের নিয়োগপত্র-পরিচয়পত্র নিশ্চিত করতে হবে। চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ বাতিল করে চুক্তি ভিত্তিতে বাস চালানো বন্ধ করতে হবে। টিকিট ও কাউন্টারের ভিত্তিতে গোটা পরিবহনব্যবস্থা ঢেলে সাজাতে হবে। শ্রমিকদের জন্য বিশ্রামাগার ও টয়লেটের ব্যবস্থা করতে হবে।

গাড়ি চালকের কর্মঘণ্টা একনাগাড়ে ৬ ঘণ্টার বেশি হওয়া যাবে না। প্রতিটি বাসে দুজন চালক ও দুজন সহকারী রাখতে হবে। পর্যাপ্ত বাস টার্মিনাল নির্মাণ করতে হবে। পরিবহন শ্রমিকদের যথাযথ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। যাত্রী, পরিবহন শ্রমিক ও সরকারের প্রতিনিধিদের মতামত নিয়ে সড়ক পরিবহন আইন সংস্কার করতে হবে এবং এর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে।

ট্রাক, ময়লার গাড়িসহ অন্যান্য ভারী যানবাহন চলাচলের জন্য রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করে দিতে হবে। মাদকাসক্তি নিরসনে কার্যকর উদ্যোগ হিসেবে চালক-সহকারীদের জন্য নিয়মিত ডোপ টেস্ট ও কাউন্সিলিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।


আরো সংবাদ


premium cement
এসকে সিনহার বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ৩ এপ্রিল নোয়াখালীতে কবরস্থানের জায়গায় বৈদ্যুতিক খুঁটি স্থাপনের অভিযোগ আলোচনার জন্য পুতিনকে তুরস্ক সফরের আমন্ত্রণ জানালেন এরদোগান এরেনা অব ভ্যালোর বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ : চ্যাম্পিয়ন অরিয়েন্টাল ফনিক্সের সাক্ষাতকার ঢাকায় ট্রেনের ধাক্কায় একজন নিহত সরকার সব সময় ভুল পথে হাঁটে : জাফরুল্লাহ চৌধুরী মিঠাপুকুরে কার্গো-ট্রাক সংঘর্ষে ২ গরু ব্যবসায়ী নিহত নিজ সম্মানীর টাকা অসহায়দের জন্য উৎসর্গ মেম্বারের আন্তজার্তিকভাবে দেশের অবস্থান স্পষ্ট হয়ে গেছে : গয়েশ্বর সরিষাবাড়ীতে হাঁস ধরতে গিয়ে ব্যবসায়ীর মৃত্যু চকরিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনা, এক শিশু নিহত

সকল