১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮, ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরি
`

ওসি প্রদীপের ফাঁসির দাবি নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির

ওসি প্রদীপের ফাঁসির দাবি নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির - ছবি : নয়া দিগন্ত

কক্সবাজারে মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার আসামি বরখাস্ত ওসি প্রদীপসহ সকল আসামির ফাঁসির দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন থেকে এ দাবি জানানো হয়।

টেকনাফ থানায় ওসি থাকাকালীন প্রদীপের হাতে নির্যাতিত সাংবাদিক দৈনিক কক্সবাজার বানীর সম্পাদক ফরিদুল মোস্তাফা খানসহ নির্যাতিত টেকনাফ ও উখিয়ার নির্যাতিত পরিবারের সদস্যরা এ মানববন্ধনে অংশ নেন।

এ সময় সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তাফা বলেন, ওসি প্রদীপের ইয়াবা কারবারসহ তার বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করায় ছয়টি মিথ্যা মামলা দিয়ে ছিল ওসি প্রদীপ। শুধু তাই নয়, তাকে ঢাকা থেকে আটক করে থানায় এনে অসহনীয় নির্যাতন করেন ওসি প্রদীপ। পরে মিথ্যা মামলায় প্রায় এক বছর তাকে জেলে থাকতে হয়।

নির্যাতিত এই সাংবাদিক আরো বলেন, স্থানীয় মাদকের সম্রাজ্য ও অপরাধী চক্রের নিয়ন্ত্রণ ছিল ওসি প্রদীপের হাতে। প্রদীপের দায়িত্বকালে কত মায়ের বুক খালি হয়েছে, নিরপরাধ মানুষ আসামি করে জেলে ঢুকিয়েছে, তার সঠিক হিসাব অজানা। যেটুকু তথ্য প্রকাশ হয়েছে, তাতেই পিলে চমকানোর মতো অবস্থা। তাকে শতবার ফাঁসিতে ঝুলালেও ক্ষুব্ধ মানুষের আত্মা শান্তি পাবে না।

বাংলাদেশ সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির ব্যানারে আয়োজিত মানববন্ধনে প্রদীপের জুলুম, নির্যাতনসহ বিভিন্ন অপরাধের চিত্র উপস্থাপন করেন সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তাফা খান। তিনি বলেন, ওসি প্রদীপ সরকারি চেয়ারে বসে মাদক কারবারে জড়িয়ে পড়েন। নিজেই মাদক সেবন করতেন। অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও ঢাকতে কিছু দালাল পোষতেন। তার এসব অপরাধ তুলে ধরে সংবাদ প্রকাশ করেছিলাম। তাতে ক্ষুব্ধ হন প্রদীপ। আমাকে ঢাকার বাসা থেকে ধরে এনে ‘নিজস্ব টর্চারসেলে’ ঢুকিয়ে বর্বর কায়দায় নির্যাতন করেন। আমার বিরুদ্ধে একে একে ছয়টি মিথ্যা মামলা দিয়েছে।

এ সময় মানববন্ধনে বক্তারা ওসি প্রদীপের ফাঁসির দাবি করেন।



আরো সংবাদ