১৯ জুন ২০২১
`
যুবলীগকর্মীকে কুপিয়ে হত্যা

হাতিয়ায় ইউপি চেয়রম্যানসহ ৫৫ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

হাতিয়ায় ইউপি চেয়রম্যানসহ ৫৫ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা - ফাইল ছবি

নোয়াখালী দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার সোনাদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য পদপ্রার্থী ও যুবলীগকর্মী যোবায়ের হোসেনকে (৪৫) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান ও তার শ্যালকসহ ৫৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

হত্যার দু’দিন পর রোববার দুপুরে নিহত যোবায়ের হোসেনের ছেলে মেহেদী হাসান জীবন হাতিয়া থানায় হত্যা মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় সোনাদিয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল বাতেনকে প্রধান ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামকে ২ নম্বর আসামি করে ৫৫ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া আরো ৩০-৪০ জনকে অজ্ঞাত নামা আসামি করা হয়েছে মামলায়। এর মধ্যে ইউপি সদস্য আবদুল বাতেন বর্তমান চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামের শ্যালক।

এ দিকে ময়নাতদন্ত শেষে নিহত যোবায়েরের লাশ শনিবার বিকেলে সোনাদিয়া ইউনিয়নের মধ্য চরচেঙ্গা নিজ গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। তার জানাজায় হাতিয়ার সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ আলী, পৌর মেয়র কে এম ওবায়েদ উল্যাহসহ স্থানীয় রাজনীতিবিদরা উপস্থিত ছিলেন।

নিহতের ছেলে জীবন অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার দিন (শুক্রবার) সকালে তার বাবা চরচেঙ্গা বাজারে তাদের নিজস্ব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে অবস্থান করছিলেন। এ সময় উত্তর দিক থেকে ইউপি সদস্য বাতেনের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী তার বাবাকে আক্রমণ করে প্রথমে গুলি চালায়। পরে কুপিয়ে পায়ের রগ কেটে হত্যা করে। সন্ত্রাসীরা সবাই বর্তমান চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামের সমর্থক।

জীবন আরো জানান, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তার বাবা মেম্বার প্রার্থী হলেও তিনি ছিলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী মেহেদী হাসানের একনিষ্ঠ সমর্থক। বর্তমান চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম নৌকার মনোনয়ন না পেয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মাঠ দখলের চেষ্টা অব্যাহত রাখেন। এ নিয়ে চেয়ারম্যানের লোকজনের সাথে নির্বাচনের প্রথম থেকেই তার বাবার বিরোধ চলে আসছিল।

হাতিয়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: আবুল খায়ের বলেন, এ পর্যন্ত ১০ জনকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মামলার প্রধান আসামিসহ অপর আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।



আরো সংবাদ