১৬ জুন ২০২১
`

কোম্পানীগঞ্জে সংঘর্ষের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় আটক ৩

কোম্পানীগঞ্জে আটক ৩ - ফাইল ছবি

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে বসুরহাট পৌরমেয়র, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ভাই আবদুল কাদের মির্জা ও প্রতিপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় কাদের মির্জা গ্রুপের অর্ধশতাধিক অনুসারীর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

কোম্পানীগঞ্জ থানা সূত্রে জানা যায়, শনিবার সকালে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি আজম পাশা চৌধুরী রুমেলের ওপর হামলার ঘটনায় তিনি ৪৮ জনের নাম উল্লেখসহ আরো অজ্ঞাত ১০ থেকে ১২ জনের নামে একটি মামলা করেন। ওই সময় ড্রিম লাইন পরিবহনের বাস ভাঙচুরের ঘটনায় বসুরহাট বাসমালিক সমিতির সভাপতি সাইফুল ইসলাম ১১ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ১০ থেকে ১১ জনকে আসামি করে আরেকটি মামলা করেন।

পুলিশ দুই মামলায় তিনজনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলেন, সাইফুল ইসলাম, নূর মোহাম্মদ জাবেদ ও মাসুদুর রহমান।

শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে বসুরহাট পৌরমেয়র আবদুল কাদের মির্জার অনুসারী পৌরসভা ৬নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর শিমুল চৌধুরীসহ ১৫ থেকে ২০ জন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি আজম পাশা রুমেলের ওপর হামলা চালায়। এ সময় দু’পক্ষের সংঘর্ষে ভাইস চেয়ারম্যান আজমপাশা রুমেলের ভাতিজা কামরান পাশা মঞ্জিল (২৪) আহত হয়। পরে সন্ধ্যা ৭টার দিকে আবদুল কাদের মির্জার অনুসারীরা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি খিজির হায়াত খান ও মিজানুর রহমান বাদলের অনুসারী আক্রাম উদ্দিন সবুজ পরিচালিত ড্রিম লাইন পরিবহনের পাঁচটি বাস ভাঙচুর করে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনি মামলা ও গ্রেফতারের বিষয় নিশ্চিত করে বলেন, আটকৃতদের গ্রেফতার দেখিয়ে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির যাতে অবনতি ঘটতে না পারে সেজন্য বসুরহাটে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।



আরো সংবাদ