১৯ এপ্রিল ২০২১
`

নোয়াখালীতে হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গা নারী ফিরে এলেন

নোয়াখালীতে হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গা নারী ফিরে এলেন - ফাইল ছবি

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল থেকে কর্তব্যরত তিন পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার ১০ ঘণ্টা পর রোহিঙ্গা নারী জেসমিন বেগম (২২) আবারো হাসপাতালে ফিরে এলেন। শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গা নারীর খোঁজ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) দীপক জ্যোতি খীসা।

তিনি ভাসানচরের রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ক্লাস্টার নম্বর ২৭, হাউজ-বি-থ্রি-এর মো: সাইফুল ইসলামের স্ত্রী।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) দীপক জ্যোতি খীসা গণমাধ্যম কর্মীদের পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গা নারী জেসমিনের বরাত দিয়ে দাবি করেন, ‘তিনি ভোরে স্বামীকে রেখে নাশতা কিনতে হাসপাতালের বাহিরে গিয়ে পথ ভুলে হারিয়ে যান। একপর্যায়ে তিনি আবার ফিরেও আসেন।’

তার আগে, ওই দিন ভোররাতে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের সার্জারি বিভাগ থেকে তিনি পালিয়ে যান। ওই সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) দীপক জ্যোতি খীসা গণমাধ্যম কর্মীদের জানান, ‘গত ২ ফেব্রুয়ারি রাত ৩টার দিকে গলায় টিউমার অপারেশন করতে স্বামী সাইফুল ইসলাম ও শিশু সুমাইয়া আক্তারকে (৬) সাথে নিয়ে রোহিঙ্গা নারী জেসমিন নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে ভর্তি হন।

পরে শনিবার ভোর রাতে শিশু বাচ্চাকে প্রসাব করানোর কথা বলে বাথরুমে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে বাথরুমে গিয়ে কর্তব্যরত পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে তার স্বামীকে রেখে শিশু বাচ্চাকে নিয়ে পালিয়ে যান ওই রোহিঙ্গা নারী।



আরো সংবাদ