২০ এপ্রিল ২০২১
`

নিখোঁজের ১১ দিনেও সন্ধান মেলেনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৃষক ছায়েদের

নিখোঁজের ১১ দিনেও সন্ধান মেলেনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৃষক ছায়েদের - ছবি : নয়া দিগন্ত

বরিশালের চরমোনাই মাহফিল থেকে নিখোঁজের ১১ দিনেও সন্ধান মেলেনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের কৃষক ছায়েদ আলীর (৬৯)। তার বাড়িতে এখন স্বজনদের আহাজারি চলছে। তাদের আকুতি ছায়েদকে জীবিত দ্রুত ফেরত পাওয়ার। এ ব্যাপারে প্রশাসনের সহযোগিতা চাচ্ছেন নিখোঁজ কৃষক ছায়েদের পরিবারের লোকজন।

জানা গেছে, সরাইল উপজেলার সদর ইউনিয়নের চাঁনমনি পাড়া গ্রামের বাসিন্দা ছায়েদ আলী ২২ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টায় চরমোনাই মাহফিলে যাওয়ার উদ্দেশে বাড়ি থেকে রওনা দেন। ২৭ ফেব্রুয়ারি মাহফিল শেষে এলাকার লোকজন বাড়ি ফিরলেও ছায়েদ আলী বাড়ি ফিরে আসেনি। এতে তার স্বজনদের মাঝে উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হয়। সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেও তার কোনো সন্ধান পাননি স্বজনরা।

এ ব্যপারে নিখোঁজ ছায়েদ আলীর ছেলে শাহাদত সরাইল থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। জিডি নম্বর ৪৭, তারিখ ০১/০৩/২০২১।

ওই মাহফিল থেকে ফিরে আসা এলাকার লোকজন জানান, গত ২২ ফেব্রুয়ারি আশুগঞ্জ থেকে লঞ্চযোগে ছায়েদ আলীসহ ওই এলাকার ৬০ জনের একটি কাফেলা (দল) চরমোনাই মাহফিলে যান। সেখানে তিন দিন ছায়েদ আলী কাফেলার লোকজনের সাথেই ছিলেন। মাহফিল শেষে বাড়িতে ফেরার প্রস্তুতিকালে কাফেলার লোকজনের মাঝে ছায়েদ আলীকে পাওয়া যায়নি। কাফেলা দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পরেও তিনি ফিরে আসেননি। তাকে খোঁজার জন্য কাফেলার দু’জন লোক সেখানে রেখে অন্যরা লঞ্চযোগে বাড়িতে ফিরে আসেন। মাহফিলস্থলে রেখে আসা ওই দু’জন অনেক খোঁজাখুঁজি করেও ছায়েদ আলীর কোনো সন্ধান না পেয়ে পর দিন তারাও বাড়িতে ফিরে আসেন।

এ ব্যপারে নিখোঁজ ছায়েদ আলীর নিকটাত্মীয় হাজী আলফাজ মিয়া বলেন, ছায়েদ আমার খুব কাছের ছোট ভাই। তিনি একজন সহজ সরল প্রকৃতির লোক ছিলেন। পরিবারে তার স্ত্রী, পাঁচ ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। ছায়েব আলী নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে পরিবারটিতে চলছে কান্নার রোল। স্বজনকে ফিরে পেতে আকুতি জানিয়েছেন তারা।



আরো সংবাদ