২৮ অক্টোবর ২০২০

খাগড়াছড়িতে গণধর্ষণের ঘটনায় সাতজন আটক, দায় স্বীকার

খাগড়াছড়িতে গণধর্ষণের ঘটনায় সাতজন আটক, দায় স্বীকার - নয়া দিগন্ত

খাগড়াছড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি এবং বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় সাতজনকে আটকে করেছে পুলিশ। রোববার খাগড়াছড়ি ও চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ। আটক ব্যক্তিদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনায় জড়িত থাকার দায় স্বীকার করেছে বলেও জানান তিনি।

সকালে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে আটককৃত সাত জনের কাছ থেকে তাদের ব্যবহৃত অস্ত্র, সিএনজি এবং লুন্ঠিত বেশ কিছু জিনিস উদ্ধার করা হয়েছে। পরিকল্পিত ভাবে তারা ডাকাতি এবং ধর্ষণের উদ্দেশ্যে এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে তিনি।
এ সময় চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন ও সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবদুর রশিদসহ পুলিশের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ আরো জানান, আটকৃতরা সবাই পেশাদার অপরাধী। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ধর্ষণ, ডাকাতি, চুরির একাধিক মামলা রয়েছে। জেলখানায় থাকা অবস্থায় একে অপরের সাথে পরিচয় হয়। ঘটনার দিন লুটপাটের এক পর্যায়ে মা-বাবাকে এক রুমে বেঁধে রেখে অন্য রুমে প্রতিবন্ধী ওই তরুণীকে (২৬) ডাকাতদলের ৪ সদস্য উপর্যুপরী ধর্ষণ করে।

উল্লেখ্য, গত ২৩ সেপ্টেম্বর বুধবার দিবাগত গভীর রাতে জেলা শহরের বলপাইয়া আদাম এলাকায় একটি ঘরে সবাইকে বেঁধে ডাকাতিকালে প্রতিবন্ধি নারীকে (২৬) গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে। পরে এ ঘটনায় সদর থানায় পৃথক দুটি মামলা করেন ভিকটিমের মা। পুলিশ বিষয়টি আমলে নিয়ে অপরাধীদের ধরতে চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন স্থানে সাড়াঁশি অভিযান পরিচালনা করে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী এলাকা থেকে জড়িত সাত অপরাধীকে আটকসহ ডাকাতির মালামাল উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।


আরো সংবাদ