০৬ এপ্রিল ২০২০

সাজেকে হামে মৃত শিশুর সংখ্যা বেড়ে ৭

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেকে সোমবার রাতে হামে আরেক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে গত দুই দিনে পদরাণী ত্রিপুরা (৯) ও খেতী রানী ত্রিপুরাসহ (১৩) গত ২৪ দিনে মোট সাত শিশুর মৃত্যু হলো।

আরেক শিশু মহেন ত্রিপুরার (১২) অবস্থা কিছুটা খারাপ বলে জানিয়েছেন রাঙামাটির সিভিল সার্জন ডা. বিপাশ খীসা। তিনি বলেন, সাজেকের তিনটি গ্রামে ছয়টি মেডিকেল টিম কাজ করছে।

‘ত্রিপুরাদের ভ্রান্ত ধারণার কারণে শিশুরা বেশি অসুস্থ হচ্ছে। তাদের আমরা হেলিকপ্টারে করে নিয়ে আসার জন্য গেলেও তারা আসতে চাচ্ছে না। তাদের মাঝে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে। ত্রিপুরা কমিউনিটির লোকজনকেই এ উদ্যোগ নিতে হবে,’ যোগ করেন তিনি।

সাজেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নেলশন চাকমা জানান, সীমান্তবর্তী তিনটি গ্রামে গত কয়েক দিন ধরে হাম রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। প্রায় শতাধিক শিশু এতে আক্রান্ত হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ইসতেখার আহম্মদ বলেন, ‘সাজেকের দুর্গম এলাকায় হাম রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রথমে এক মেয়ে শিশুর মৃত্যুর খবর পেয়ে আমাদের আট সদস্যের মেডিকেল টিম সেখানে চিকিৎসা দেয়া শুরু করে। কিন্তু পাঁচ শিশুর মৃত্যুর পর অবস্থার উন্নতি হলেও লুঙথিয়ান পাড়ায় রোববার রাত ১২টার দিকে এক শিশুর ও সোমবার রাতে আরেক শিশুর মৃত্যু হয়।’

তিনি জানান, এলাকাটি এত বেশি দুর্গম যে সাজেক পর্যটনকেন্দ্র থেকে সেখানে পায়ে হেঁটে যাওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। গ্রামগুলোতে পৌঁছাতে প্রায় ১৬ থেকে ১৭ ঘণ্টারও বেশি সময় লাগে। দুর্গম এ এলাকায় স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীদের সরঞ্জাম নিয়ে যেতে দারুণ বেগ পেতে হচ্ছে। সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ