০৮ এপ্রিল ২০২০

সরাইলে আ’লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার ৭

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে সাবেক ইউপি মেম্বার ও আওয়ামী লীগ নেতা আবু বকর ছিদ্দিক প্রকাশ রকেটকে হত্যার ঘটনায় উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস-চেয়ারম্যান মো: শের আলম মিয়াসহ ২২জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহত রকেট মেম্বারের পুত্র শাহনেওয়াজ রনি বাদী হয়ে শুক্রবার রাতে সরাইল থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন- সরাইল সদরের বেপারিপাড়ার মৃত ধনু বেপারির ছেলে আরমান মিয়া, স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহ আলম মিয়া, আজমান মিয়া, আরমান মিয়ার ছেলে রিয়াদ মিয়া ও হৃদয় মিয়া, আজমান মিয়ার ছেলে ফরহাদ মিয়া ও রাশেদ মিয়া, জেলা শহরের কান্দিপাড়ার ইয়াছিন মিয়ার ছেলে রিকসন মিয়া, মৃত পাঠান মিয়ার ছেলে আকরাম মিয়া ও আনোয়ার হোসেন, বাদল মিয়ার ছেলে হামীম মিয়া, সরাইল বেপারিপাড়ার শাহ আলম মিয়ার ছেলে ইমন মিয়া, আজমান মিয়ার ছেলে জয়, কালিকচ্ছ বেপারিপাড়ার মৃত কুমেদ আলীর ছেলে কাচু মিয়া, মৃত রমজান মিয়ার ছেলে আনার মিয়া, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও সরাইল উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শের আলম মিয়া, কালিকচ্ছ বেপারিপাড়ার শাহেদ মিয়ার ছেলে মিটন মিয়া, জেলা শহরের কাজীপাড়ার ইয়াছিন মিয়া, সদরের বেপারিপাড়ার মৃত তারু মিয়ার ছেলে দৌলত মিয়া, নাজু মিয়ার ছেলে ওসমান গনি ওরফে রোপম, সদরের দক্ষিণ আরিফাইল গ্রামের মৃত আবদুল আলীর ছেলে মিছির আলী এবং স্বল্প নোয়াগাঁও গ্রামের মৃত আবদুল হামিদের ছেলে নান্নু মিয়া। এছাড়াও মামলায় অজ্ঞাত পাঁচ/ছয় জনকে আসামি করা হয়েছে।

এ পর্যন্ত পুলিশ সাতজনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- রিকসন মিয়া, আকরাম মিয়া, আনোয়ার হোসেন, হামীম মিয়া, নান্নু মিয়া, কাচু মিয়া ও তার ছেলে শরীফ মিয়া। এদের মধ্যে একজন ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, উপজেলার সদর ইউনিয়নের বেপারীপাড়া গ্রামের বর্তমান মেম্বার শাহ আলম ও একই এলাকার নিহত রকেট মেম্বার (সাবেক) এর মধ্যে পূর্ব থেকেই বিরোধ চলছিল। এ বিরোধের জের ধরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় উপজেলা সদরের প্রাতঃবাজারে একদল অস্ত্রধারী ককটেল ফাটিয়ে আতংক সৃষ্টি করে। পরে তারা রকেট মেম্বারের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে গুরুতর আহত করে পালিয়ে যায়। এসময় স্থানীয়রা গুরুতর আহত রকেট মেম্বারকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত রকেট মেম্বার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক কমিটির সদস্য, সরাইল সদর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য ও একই ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার ছিলেন।

এ ব্যাপারে সরাইল থানার ওসি সাহাদাত হোসেন টিটো বলেন, বেপাড়ীপাড়া গ্রামের রকেট মেম্বার ও শাহ আলম মেম্বারের মধ্যে গোষ্ঠীগত বিরোধ ছিল। তাদের একাধিক মামলাও আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। শাহ আলম মেম্বারের লোকজন পরিকল্পনা করে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তারা অতর্কিত হামলা চালিয়ে বাজারে রকেট মেম্বারকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।

তিনি আরো বলেন, আমরা ইতোমধ্যে এ ঘটনার সাথে জড়িত সাতজনকে গ্রেফতার করেছি। তাদের মধ্যে একজন এ হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। একই সাথে হত্যাকাণ্ডের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যও পুলিশকে জানিয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশ কাজ করছে। অভিযুক্ত এক জনও রেহাই পাবে না।


আরো সংবাদ

দীর্ঘদিন জেলখাটা আসামিদের মুক্তির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর (২৭৯১৩)করোনা ছড়ানোয় চীনকে যে ভয়ঙ্কর শাস্তি দেয়ার দাবি উঠল জাতিসংঘে (১৭৬৭৩)গাদ্দাফিকে উৎখাতকারী জিবরিলের করোনায় মৃত্যু (১৫৭৯০)রমজান মাসে অফিসের সময়সূচি নির্ধারণ (১৪৩১৪)উকুন মারার ওষুধে ৪৮ ঘণ্টায় খতম করোনা (১৩৯১৯)করোনায় মৃতদের জানাজা-দাফনে প্রস্তুত এক ঝাঁক আলেম (১২৯১৩)এবার করোনায় আক্রান্ত বাঘ (১০৬৬১)৩ ঘণ্টার রাস্তা পাড়ি দিয়েছেন ২ দিন, খরচ হয়েছে ৪ হাজার টাকা! (১০৫১৮)'মেয়েকে কোলেও নিতে পারছি না!' দূর থেকে ভেজা চোখে তাকিয়ে পুলিশ অফিসার (১০০৭২)করোনার চিকিৎসায় তুরস্কের অভূতপূর্ব পদক্ষেপ, পাল্টে যাচ্ছে চিকিৎসা পদ্ধতি (৯৭০৭)