০৪ এপ্রিল ২০২০

ইরানের হামলায় ৫০ মার্কিন সেনার মস্তিষ্কে বিকৃতি : পেন্টাগন

ইরানি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় বিধ্বস্ত মার্কিন ঘাঁটি আইন আল-আসাদ - সংগৃহীত

ইরাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আইন আল-আসাদ সামরিক ঘাঁটিতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় আহত মার্কিন সেনার সংখ্যা আরেক দফা বাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগন। আগের ঘোষণার চেয়ে আরো ১৬ জন বাড়িয়ে এবার ৫০ জনের আহত হওয়ার কথা জানিয়েছে পেন্টাগন।

পেন্টাগনের মুখপাত্র লে. কর্নেল থমাস ক্যাম্পবেল স্থানীয় সময় মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বলেছেন, আইন আল আসাদ ঘাঁটিতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় আজ পর্যন্ত ৫০ জন মার্কিন সেনা মস্তিষ্কের আঘাত নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তিনি বলেন, এদের মধ্যে ৩১ জনকে ইরাকেই চিকিৎসা দেয়া হয়েছে এবং তারা ডিউটিতে ফিরে গেছেন। এই ৩১ জনের মধ্যে ১৫ জনকে অতি সম্প্রতি চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে গুরুতর ব্রেইন ইনজুরি নিয়ে ১৮ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জার্মানিতে পাঠানো হয়েছে এবং বাকি একজনকে কুয়েতে নেয়া হয়েছে।

এর আগে গত শুক্রবার তার আগের পরিসংখ্যানের চেয়ে তিনগুণ বেশি মার্কিন সেনার আহত হওয়ার কথা জানিয়েছিল পেন্টাগন।

ইরানের কুদস ফোর্সের সাবেক কমান্ডার লেঃ জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নিহতের প্রতিশোধ নিতে গত ৮ জানুয়ারি ইরাকে অবস্থিত মার্কিন সামরিক ঘাঁটি আইন আল-আসাদে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ওই ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর দাবি করেছিলেন কোনো মার্কিন সেনা আহত হয়নি। এরপর ১১ মার্কিন সেনা মস্তিষ্কে ইনজুরি নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে বলে পেন্টাগন স্বীকার করার পর ট্রাম্প আবার দাবি করেন, এসব সেনার খানিকটা ‘মাথাব্যথা’ করছিল বলে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আমেরিকার দাবি অনুযায়ী আহত সেনার সংখ্যা ১১ থেকে এক লাফে ৩৪ জন এবং তারপর আবার ৫০ জনে উন্নীত হওয়ায় পর্যবেক্ষকদের মনে এখন ওই হামলায় হতাহতের সংখ্যা সম্পর্কে ইরানের ঘোষণা বদ্ধমূল হতে শুরু করেছে।

ইরান গত ৮ জানুয়ারি ভোরে ওই ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর পর বলেছিল, তাদের হামলায় ৮০ মার্কিন সেনা নিহত ও অপর ২০০ জন আহত হয়েছে। আহত সেনাদেরকে চিকিৎসা দিতে সি১৩০ বিমানে করে আইন আল-আসাদ ঘাঁটি থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলেও ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র একজন কর্মকর্তা জানিয়েছিলেন।

গত ৩ জানুয়ারি শুক্রবার ভোররাতে বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে ইরানের কুদস ফোর্সের কমান্ডার লেঃ জেনারেল কাসেম সোলাইমানিসহ ইরান ও ইরাকের ১০ সেনা কমান্ডারকে হত্যা করে আমেরিকা। এর প্রতিশোধ হিসেবে গত ৮ জানুয়ারি আইন আল-আসাদ ঘাঁটিতে এক ডজনেরও বেশি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে ইরান। সূত্র : পার্সটুডে।


আরো সংবাদ

আত্মহত্যার আগে মায়ের কাছে স্কুলছাত্রীর আবেগঘন চিঠি (১৩৫৩০)সিসিকের খাদ্য ফান্ডে খালেদা জিয়ার অনুদান (১২৬০৬)করোনা নিয়ে উদ্বিগ্ন খালেদা জিয়া, শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল (৯৩১৫)ভারতে তাবলিগিদের 'মানবতার শত্রু ' অভিহিত করে জাতীয় নিরাপত্তা আইন প্রয়োগ (৮৪৯০)করোনায় নিশ্চিহ্ন হয়ে গেল ইতালির একটি পরিবার (৭৮৬৪)করোনার মধ্যেও ইরান-যুক্তরাষ্ট্র আরেক যুদ্ধ (৭১৪০)করোনায় আটকে গেছে সাড়ে চার লাখ শিক্ষকের বেতন (৬৯৩১)ইসরাইলে গোঁড়া ইহুদির শহরে সবচেয়ে বেশি করোনার সংক্রমণ (৬৮৯০)ঢাকায় টিভি সাংবাদিক আক্রান্ত, একই চ্যানেলের ৪৭ জন কোয়ারান্টাইনে (৬৭৬১)করোনাভাইরাস ভয় : ইতালিতে প্রেমিকাকে হত্যা করল প্রেমিক (৬২৯৬)