২২ মে ২০২২
`

‘ভাই’ সম্বোধনে গণমাধ্যম কর্মীর উপর ক্ষেপলেন নির্বাচন কর্মকর্তা

মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা - ছবি : সংগৃহীত

জাতীয় পরিচয়পত্রের সংশোধনের জন্য উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে ‘স্যার’ না ডেকে `ভাই' সম্বোধন করায় পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ প্রেসক্লাবের ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো.রফিকুল ইসলামের উপর ক্ষেপে অশালীন আচরণ করেছেন উপজেলায় দ্বায়িত্বরত নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শাহাদাৎ হোসেন।

সোমবার সকাল এগারোটার সময়ে এমন ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিয়ে মির্জাগঞ্জ সাংবাদিক সমাজের মধ্যে ক্ষোভ ও তীব্র নিন্দার ঝড় উঠেছে। তাকে অপসারণের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় সাংবাদিকরা।

মির্জাগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, সোমবার সকাল ১১ টার সময়ে রিয়াজ কাজী নামে আমার এক আত্মীয়ের জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্যের সংশোধনের জন্য উপজেলা নির্বাচন অফিসে যাই। এসময় দায়িত্বরত নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শাহাদাৎ হোসেনকে ‘ভাই’ বলে সম্বোধন করে পরিচয়পত্রের সমস্যাটি সমাধানের বিষয়ে আলাপ করি। এতেই ক্ষেপে যান ওই নির্বাচন কর্মকর্তা।

তখন তিনি বলেন, ‘আপনি আমাকে ভাই বললেন কেন? আমি আপনার কেমন ভাই? খালাতো ভাই না চাচাতো ভাই?’ এসব বলে এক পর্যায়ে তাকে স্যার না বলে ভাই বলায় আমার সাথে তিনি বিভিন্ন ধরণের অশোভন আচরণ করেন। পরে তিনি পরিচয়পত্রের সংশোধনের ব্যাপারে কোনো কিছু না বলে অন্য কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

মির্জাগঞ্জ প্রেসক্লাবের ক্লাবের সভাপতি এ্যাডভোকেট মো. মুজিবুর রহমান বলেন, একজন সরকারি কর্মকর্তার এ ধরনের আচরন করা ঠিক না। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই।

উপজেলায় নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শাহাদাৎ হোসেন বলেন, সাদ্দাম ভাই একজন লোক নিয়ে আসছিলো। আমি তাকে ভালো করে জানিও না ও চিনিও না। এই আর কি। ‘ভাই’ বলার কথা বললে তিনি বলেন, বিষয়টি ঠিক সেটা না, তিনি একটি লোক নিয়ে আসছিলো অফিসে তা নিয়ে একটু কথা কাটাকাটি হয়েছে। তবে সেরকম কিছু না।

এ বিষয়ে মির্জাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোসা. তানিয়া ফেরদৌস মোবাইলে বলেন, আমি ঘটনাটি শুনেছি। বিষয়টি আমি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবো।


আরো সংবাদ


premium cement