১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩ আশ্বিন ১৪২৮, ১০ সফর ১৪৪৩ হিজরি
`
টানা বৃষ্টিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

পাথরঘাটার ফসলি জমি ও মৎস্য ঘেরের ব্যাপক ক্ষতি

বিষখালী ও বলেশ্বর নদীর বেড়িবাঁধ ঝুকিতে রয়েছে - ছবি : নয়া দিগন্ত

টানা ভারি ভর্ষণে বরগুনার পাথরঘাটার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ভেসে গেছে অসংখ্য ছোট-বড় মৎস্য ঘের ও পুকুর। তলিয়ে আছে সদ্য রোপা আমনের বীজতলা ও ফসলি জমি। উপকূলীয় উপজেলা পাথরঘাটা সংলগ্ন বিষখালী ও বলেশ্বর নদীর বেড়িবাঁধও রয়েছে ঝুকির মধ্যে।

পাথরঘাটা উপজেলার, জীনতলা, পদ্মা হরিণঘাটা, রুহিতা, কাঠালতলী, তালুক চরদুয়ানী, ভহোট পাথরঘাটা, কালমেঘা, কাকচিড়া, লেমুয়া সদ্য রোপা আমন ও বীজতলা পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে। এছাড়া অসংখ্য মাছের ঘের, পুকুর ভেসে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে পাথরঘাটা পৌরসভার পানি নিষ্কাশন সুষ্ঠু ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় পানিতে তলিয়ে আছে। কিছু কিছু এলাকা প্লাবিত হয়ে ঘরবাড়ি নিমজ্জিত আছে। সুষ্ঠু ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় পৌরবাসীরা জলাবদ্ধতায় নাকাল হচ্ছে বছরের পর বছর।

পৌরসভার ছোটপাথরঘাটা এলাকার আব্দুল জলিল মিয়া, কামাল হোসেনসহ অনেকে জানান, ভারী বর্ষণের কারণে পানি জমে আমাদের ঘেরের পানি ডুকেছে। এখানের অনেক প্রভাবশালীদের কারণে আমরা পানিত মধ্যে থাকতে হয়। অনেকের আবার ঘের আছে তাই তারা শক্ত বাধ দিয়ে পানি আটকিয়ে রেখেছে। আমার সমস্যার কথা বললেও কোনো সমাধান হয় না। আমরা চাই শক্ত ড্রেনেজ ব্যবাস্থা করে দেয়া হোক।

পাথরঘাটা উপজেলা কৃষি ও মৎস্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ উপজেলায় মৎস্য ঘের ৮.৯০ হেক্টর, পুকুর ও দীঘি ২৩.৭২ হেক্টর ডুবে গেছে এর মধ্যে মাছ বের হয়ে গেছে, সাদা মাছ ৪৮.৩৬ মেট্রিকটন যার মূল্য ৭২.৫৪ লাখ টাকা এবং পোনা মাছ ৪৮.৩৬ মেট্রিকটন যার মূল্য ছয় লাখ টাকা। অবকাঠামোর ক্ষতি হয়েছে ৪০.৩০ লাখ টাকা। মৎস্য ক্ষাতে এ উপজেলায় মোট এক কোটি ১৮ লাখ ৮৪ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া উপজেলায় এক হাজার চার শ’ ৬০ হেক্ট্রর জমির আমন ধানের বীজতলা আছে যার মধ্যে ৮৭৬ হেক্টর বীজতলা পানিতে নিমজ্জিত আছে। সব্জি আছে ২১০ হেক্ট্রর জমিতে এর মধ্যে ৭৪ হেক্টর সব্জির গোড়া পানিতে নিমজ্জিত আছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে যদি পানি অপসারণ করা না যায় তবে অনেক ক্ষতির শঙ্কা রয়েছে।

পাথরঘাটা উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা জয়ন্ত কুমার অপু জানান, হঠাৎ ভারী বর্ষণের কারণে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মৎস্য ঘেরে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আমরা সরেজমিনে পরিদর্শণ করে জেলায় তালিকা পাঠিয়েছি তাতে মোট এক কোটি ১৮ লাখ ৮৪ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে।

পাথরঘাটা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শিশির কুমাড় বড়াল জানান, ভারি বর্ষণে জেলার নিম্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। রোপা আমন, আউশ বীজতলা তলিয়ে ক্ষয়-ক্ষতি নিরূপনের জন্য প্রাথমিক ভাবে জরিপের তালিকা জেলায় পাঠানো হয়েছে। তবে পানি যদি জমে থাকে তবে আমনের বীজতলার কিছুটা ক্ষতি হতে পারে কিন্তু আউস ধানের তেমন কোনো ক্ষতি হবে না বলেও জানান তিনি।

পাথরঘাটা উপজেলা দুর্যোগ ও ত্রাণ কার্যালয়ে উপসহকারী প্রকৌশলী মো: জাহাঙ্গীর আলম জানান, ভারি বর্ষণে পাথরঘাটার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। অতি বর্ষণজনিত ক্ষয়-ক্ষতি নিরূপনের জন্য পৌরসভা মেয়র ও ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের কাছে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। পাথরঘাটা পৌরসভায় ১০ মেট্রিকটন ও সাতটি ইউনিয়নে ১৪ মেট্রিকটন চাল বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। এছারাও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় শুকনো খাবার ভেতর করা হয়েছে।



আরো সংবাদ


কাবুলে বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রে রকেট হামলা (১৬০০২)তালেবানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে অস্ত্র চাইলেন মাসুদ (১৫৭০৩)মালয়েশিয়ায় স্বদেশীকে অপহরণের দায়ে মৃত্যুদণ্ডের মুখোমুখি ৪ বাংলাদেশী (১২৮৭১)মার্কিন সফরে মোদির ঘুম কেড়ে নেয়ার হুঁশিয়ারি শিখ গ্রুপের (১১৩৬১)নতুন ঘোষণা আফগান সেনাপ্রধানের (৯৮৫২)বিমানে হিজাব পরিহিতা দেখেই চিৎকার ‘মুসলিম সন্ত্রাসী’ (৭৩২১)ভারত সীমান্ত থেকে চীনের সেনা সরিয়ে নিতে জয়শঙ্করের হুঁশিয়ারি (৬০৯৮)যাত্রীবেশে উঠে গলা কেটে মোটরসাইকেল ছিনতাই (৬০১৫)রিকসা চালকের তথ্যে নিখোঁজ তিন ছাত্রী উদ্ধার (৫৯১৯)ইসরাইলি ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনতে চায় সৌদি আরব (৫৬৯১)