২৪ জুন ২০২১
`

রাঙ্গাবালীতে বিষপানে গৃহবধূর আত্মহত্যা

-

শ্বশুর বাড়ির দাবিকৃত যৌতুকের চাহিতা মেটাতে না পেরে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় বিষপানে ইতি আক্তার (২০) নামের এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার দুপুরে উপজেলার চরমোন্তাজ ইউনিয়নের দক্ষিণ চরমোন্তাজ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় ইতিকে উদ্ধার করে গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতরা হলেন, ওই গ্রামের নবিন মুন্সীর স্ত্রী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তিন বছর আগে দক্ষিণ চরমোন্তাজ গ্রামের মজিবর মুন্সীর ছেলে নবিন মুন্সীর সাথে একই গ্রামের মো: ঈসা মুন্সীর মেয়ে ইতি’র বিয়ে হয়। বিয়ের এক বছর সংসার জীবন পার হলেও পরে দেখা দেয় বিপত্তি। শশুর বাড়ি থেকে ইতির কাছে তিন লাখ টাকা দাবি করে। নিহতের বাবা দরিদ্র হওয়ায় শশুর বাড়ির চাহিদা মেটাতে পারছে না। এতেই পালাক্রমে নির্যাতনের শিকার হন ওই গৃহবধূ।

শশুর বাড়ির দাবিকৃত যৌতুকের টাকা ও অমানুষিক নির্যাতন সইতে না পেরে স্বামীর বাড়িতে বিষপান করে আত্মহত্যা পথ বেছে নেন ইতি।

নিহতের বাবা মো: ঈসা মুন্সী বলেন, মেয়ের বিয়ের কথা বার্তা চলা কালে কোনো প্রকার আর্থিক লেনদেনের কথা হয়নি। বিয়ের বছর খানেক পার হতেই তিন লাখ টাকা দাবি করে জামাতা নবিন মুন্সী। আর্থিকভাবে অসচ্ছল থাকায় ওই টাকা দিতে অস্বিকার করি। এতেই মেয়ের কাল হয়ে দাঁড়ায়। নবিনসহ পরিবারের লোকজন ইতির ওপর নির্যাতন করে বলে জানান ইতি। এ সব কর্মকাণ্ড জানানোর জন্য কিছু দিন আগে মেয়েকে মোবাইল কিনে দেই। পরে জানতে পারি ওই মোবাইল শ্বশুর বাড়ির লোকেরা ব্যবহার করতে দেয়নি। শুক্রবার দুপুরে ইতির শশুর ফোন করে জানায় ইতিকে বা কার সাথে ফোনে কথা বলেছে, এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে ঝগড়া হয়। এ দিন অভিমান করে বিষপান করে।

কান্না জড়িত কণ্ঠে ইতির বাবা বলেন, ‘আমার মাইয়াডা দুপুর দেড়টার কালে (সময়) বিষ খাইছে, আর আমারে জানাইছে ৩টার কালে (সময়)। বিষ খাওনের লগেই (সাথেই) যদি হাসপাতালে নেতে (নিত) হেলে (তাহলে) আমার মাইয়াডা আইজ হয়ত মরতো না।’

প্রশাসনের কাছে মৃত্যুর সঠিক বিচার দাবি করেন তিনি।

অভিযোগের সত্যতা জানতে নিহতের শ্বশুর মো: মজিবর মুন্সীর মুঠোফোনে একাধিকবার কল দেয়া হলেও তিনি রিসিভ না করে ফোন বন্ধ রাখায় তার মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে রাঙ্গাবালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দেওয়ান জগলুল হাসান বলেন, ঘটনাটি শুনেছি এ ব্যাপারে গলাচিপা থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে, তবে নিহতের পরিবার আমাদের কাছে অভিযোগ দিলে আমরা পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।



আরো সংবাদ