২৪ জুন ২০২১
`

বেতাগীতে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ হাসপাতালে কাতরাচ্ছেন

বেতাগীতে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ হাসপাতালে কাতরাচ্ছেন - ছবি- সংগৃহীত

বরগুনার বেতাগী উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়নে দু’সন্তানের জননী গৃহবধূ পিয়ারা বেগম স্বামী, শ্বশুর ও ননদের নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধূকে বেতাগী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। কিন্তু তার সঠিক চিকিৎসা করানো বা মামলা করার সামর্থ নেই পিয়ারার বাবার পরিবারের। আর পুলিশ বলছে, মামলা হলে তারা ব্যবস্থা নেবে। কিন্তু অসহায় ও নির্যাতিতা পরিবারটির পাশে নেই কেউ। এমনটিই জানা গেছে গুরুতর অসুস্থ ও চিকিৎসাধীন পিয়ারার সাথে কথা বলে।

জানা গেছে, উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়নের হোসনাবাত গ্রামের মানিক তালুকদারের ছেলে সোহেল তালুকদারের স্ত্রী পিয়ারা বেগম। চার বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। পিয়ারা বেগমের বাবার পরিবার খুবই গরিব ও হতদারিদ্র্য। এ দিকে বিয়ের পর থেকেই তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রায়ই পারিবারিকভাবে ঝগড়া বিবাদ ও মারামারি লেগে থাকত পিয়ারার সংসারে। তিনি এর আগেও অনেক বার শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। সব কিছুই মুখবুজে সহ্য করতেন সন্তানদের ভবিষ্যত চিন্তা করে।

কিন্তু গত ৯ জুন স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি ও ননদ মিলে নির্মম নির্যাতন চালায় পিয়ারার ওপর। এ সময় প্রতিবেশীরা বাধা দিলেও তা উপেক্ষিত করা হয়। পরিবারের সবাই মিলে পিয়ারা বেগমকে শারীরিক নির্যাতন চালায়। এতে তার শরীর ও হাতে ধারাল অস্ত্রের আঘাতে মারাত্মকভাবে জখম হয়। দেশীয় দায়ের এলোপাথারি কোপে হাত কেটে টুকরো করলে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে পাশের মির্জাগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়।

এলাকাবাসী জানিয়েছে, পিয়ারা বেগমকে হত্যার উদ্দেশ্যে আক্রমণ করা হয়েছিল। তার বাবার বাড়ি পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম সুবিদখালী গ্রামে। তার বাবা মো: নুরুল হক হাওলাদার। পরিবারটি অসহায়। মারাত্মক রক্তাক্ত জখম মেয়ের চিকিৎসা করার সামর্থটুকুও নেই তাদের। এ পর্যন্ত থানায় কোনো মামলাও দায়ের করতে পারেননি পিয়ারার বাবা।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী এ নির্যাতনের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবি জানিয়েছে। তবে অভিযুক্ত পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলা চেষ্টা করেও তাদেরকে পাওয়া যায়নি।

শুক্রবার সকালে এ বিষয় বেতাগী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, থানায় কোনো মামলা হয়নি। মামলা করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আরো সংবাদ