০৪ জুন ২০২০

রিফাত হত্যা : দুই শিশুসহ পাঁচ জনের সাক্ষ্য ও জেলা শেষ

বরগুনায় আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় দুই শিশুসহ আরো পাঁচজনের সাক্ষ্যগ্রহণ ও জেরা শেষ হয়েছে। সোমবার জেলা ও দায়রা জজ মো: আছাদুজ্জামান ও শিশু আদালতের বিচারক মো: হাফিজুর রহমানের পৃৃথক আদালতে তারা সাক্ষ্যপ্রদান করেন। পরে তাদের আসামীপক্ষের আইনজীবিরা তাদের জেরা করেন।

বরগুনা জেলা দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ভুবন চন্দ্র হাওলাদার বলেন, জেলা ও দায়রা জজ মো: আছাদুজ্জামাতে সোমবার মো. সাইফুল ইসলাম, সানজিদ হোসেন ও নাজমুল হাসান সাক্ষ্য দিয়েছেন। অন্যদিকে শিশু আদালতের বিচারক মো: হাফিজুর রহমানের আদালতে মামলার বাদীর মেঝ ভাই আবদুল সালাম শরীফ ও ইদ্রিসুল আলম লিটন সাক্ষ্য দিয়েছেন। পরে আসামী পক্ষের আইনজীবিরা তাদের জেরা করেন।

আসামী সাইয়েদ মারুফ বিল্লাহর পক্ষে তার আইনজীবী বিমান কান্তি গুহ ও আবু আবদুল্লাহ রায়হানেরর আইনজীবী মো: শাহজাহান মিয়া বলেন, আমরা শিশুদের জামিন শুনানী করেছি। আদালত মঙ্গলবার আদেশ দিবেন।

রাষ্ট্র পক্ষের বিশেষ পিপি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আদালতে যে ভাবে সাক্ষ্য দিয়েছেন, তাতে রাষ্ট্র পক্ষ ন্যায় বিচার পাবে। যে দুইজন শিশুর জামিনের আবেদন করেছে তার বিরোধীতা করেছি। পিপি বলেন, আমি শুনেছি, হাই কোর্ট রোববার রাকিবুল হাসানকে জামিন দিয়েছে। আদালতে এখন পর্যন্ত আদেশ পৌঁছেনি।

এর আগে কড়া পুলিশি নিরাপত্তায় রিফাত হত্যা মামলায় অভিযুক্ত প্রাপ্ত বয়স্ক ৮ জন জেলা ও দায়রা আদালতে এবং অপ্রাপ্ত বয়স্ক ৯ জন আসামীকে শিশু আদালতে হাজির করেন পুলিশ।

রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলেন রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো: হাসান, মো: মুসা, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো: সাগর এবং কামরুল ইসলাম সাইমুন।

অন্যদিকে অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলেন মো: রাশিদুল হাসান রিশান ফরাজী, মো: রাকিবুল হাসান রিফাত হাওলাদার, মো: আবু আবদুল্লাহ রায়হান, মো: ওলিউল্লাহ অলি, জয় চন্দ্র সরকার চন্দন, মো: নাইম, মো: তানভীর হোসেন, নাজমুল হাসান, রাকিবুল হাসান নিয়ামত, মো: সাইয়েদ মারুফ বিল্লাহ মহিবুল্লাহ, মারুফ মল্লিক, প্রিন্স মোল্লা, রাতুল সিকদার জয় এবং আরিয়ান হোসেন শ্রাবণ।

প্রসঙ্গত, ২৬ জুন প্রকাশ্যে বরগুনা সরকারি কলেজ রোডে স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির সামনে কুপিয়ে জখম করা হয় রিফাত শরীফকে। পরে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় রিফাতের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বাদী হয়ে মামলা করেন। পরে ১ সেপ্টেম্বর বহুল আলোচিত এ মামলায় ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। ২৪ আসামির মধ্যে ১৫ আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর আদালত পলাতক আসামিদের মালামাল জব্দের আদেশ দিলে সাতজন পলাতক আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।


আরো সংবাদ

ট্রাম্পকে ক্ষমতাচ্যুত করার হুমকি (১১১০০)পঙ্গপাল ঠেকাতে কৃষকের অভিনব আবিষ্কার, মুহু্র্তেই ভাইরাল (৯১৫৮)বৃষ্টিতে ভিজলো আর রোদে শুকালো সালেহ আহম্মদের লাশ (৮৫৫৯)ডোনাল্ড ট্রাম্পকে মুখ বন্ধ রাখতে বললেন পুলিশ প্রধান (৮২৩৮)পরিস্থিতি আমাদের জন্য ভয়াবহ হয়ে উঠেছে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী (৭৮১৩)আতসবাজি বাঁধা আনারস মুখে ফেটে নদীতে দাঁড়িয়েই মৃত্যু গর্ভবতী হস্তিনীর (৭৫১০)‘প্লাজমা থেরাপি’ নিয়ে যা হচ্ছে বাংলাদেশে (৬৪৭২)হঠাৎ রাশিয়ায় রক্তচোষা পোকার আতঙ্ক!‌ (৬৪৬২)৪ দিনেই সুস্থ অধিকাংশ রোগী, রাশিয়ার এই ওষুধ নজর গোটা বিশ্বের (৬১২৫)বাংলাদেশে ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৬৯৫ (৫৩১৩)




justin tv