০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৮, ১৬ রজব ১৪৪৪
ads
`

তীব্র ভাঙনের মুখে হলদিয়ার গোরাইয়ার দ্বীপ এলাকা

রেজু খালের ভাঙনে বিলীন হচ্ছে গোরাইয়ার দ্বীপের বিস্তীর্ণ এলাকা : নয়া দিগন্ত -

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার হলদিয়া পালং ইউনিয়নের গোরাইয়ার দ্বীপ এলাকায় হঠাৎ দেখা দিয়েছে রেজু খালের ভাঙন। কক্সবাজার ও ইনানি সমুদ্র সৈকতের সাথে রেজু খালের রয়েছে গভীর সখ্যতা। জোয়ারের পানিতে রেজু খালের গোরাইয়ারদ্বীপ এলাকাটি প্রতিনিয়ত হারাচ্ছে তার চিরচেনা রূপ। খালের পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে গোরাইয়ারদ্বীপ এলাকায় ভাঙনের তীব্রতা বেড়েছে। ভাঙনে অনেকে বসতভিটা হারিয়েছেন। ভেঙে গেছে গ্রামীণ মেঠোপথ। কৃষকের পানের বরজ। অনেক মাছ চাষিদের মৎস্য খামার। ঝুঁকিতে বসতবাড়ি এবং আলাউদ্দিন সিকদারের মৎস্য খামার। আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে ভাঙনকবলিত গোরাইয়ারদ্বীপ এলাকার মানুষ। জোয়ারের সময়ে ইতোমধ্যে ভেঙে গেছে অনেকের ঘরবাড়ি।
সরেজমিন দেখা যায়, এলাকায় হাফেজ ফরিদ আলম ভারাক্রান্ত মনে গোরাইয়ারদ্বীপ খালের পাড়ে বসে আছেন। এভাবে বসে থাকার কারণ জানতে চাইলে তিনি কান্নাজড়িত কন্ঠে জানান, রাসী খাল আমাদের বাড়িঘর সব কেড়ে নিয়ে পথের ভিখারি বানিয়েছে। ভিটেমাটি সব শেষ। অতিকষ্টে দিনাতিপাত করছি। স্থানীয় যুবক আলা উদ্দিন সিকদার বলেন, রেজু খালের মোহনায় গোরাইয়ারদ্বীপ এলাকার খালের তীব্র ভাঙনে এখানকার বাড়িঘর, ফসলিজমি ও আমার মৎস্য খামারের কিছু অংশ ইতোমধ্যেই বিলীন হয়ে গেছে। প্রতি বছর খালের ভাঙনে ঝুঁকিতে থাকতে হয় আমাদের। আমরা এলাকাবাসী হলদিয়া পালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েসের সাথে দেখা করেছি। তিনি একটি দরখাস্ত দিতে বলেছেন এবং এ ব্যাপারে যথাযথ কর্তৃৃপরে সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন। মোহাম্মদ ইসমাইল বলেন, এখন শীতকালেও পাহাড় ধস হচ্ছে। পাহাড় ধসে মানুষ মারা যাচ্ছে। রেজু খালের জোয়ারের পানির তীব্রতায় খালের এই পাড় ভাঙে একাকার হয়ে গেছ। সেলিম উদ্দিন সিকদার বলেন, ভাঙনের মুখে রয়েছে পুরো এলাকা। ভাঙন রোধে ব্যবস্থা না নিলে বিলীন হতে থাকবে অসহায় মানুষের একমাত্র আশ্রয়স্থল ভিটেমাটি। বেলাল উদ্দিন সিকদার বলেন, এখনি ভাঙন প্রতিরোধে কোনো ব্যবস্থা না নেয়া হলে কিছু দিনের মধ্যেই খালে বিলীন হয়ে যাবে রাস্তাঘাট ও বসতি।
এলাকাবাসীর দাবি পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা গোরাইয়ারদ্বীপ এলাকা পরিদর্শন করে ভাঙনের স্থায়ী প্রতিরোধে টেকসই কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। হলদিয়া পালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরী বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে গোরাইয়ারদ্বীপ খালের ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ডে বিস্তারিত জানানো হবে। বরাদ্দ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরো সংবাদ


premium cement
ভূমিকম্পে তুরস্ক ও সিরিয়ায় নিহত সংখ্যা ৬ হাজার ছাড়াল আদানি গ্রুপের কাছ থেকে কেন বেশি দামে বিদ্যুৎ কারণ হচ্ছে, প্রশ্ন এমপি চুন্নুর সরকারের সমালোচনা কখনো রাষ্ট্রদ্রোহী হতে পারে না : জি এম কাদের ভূমিকম্পের ৩৩ ঘণ্টা পর ধ্বংসস্তূপ থেকে উদ্ধার ৪ বছরের শিশু বেড়াতে এসে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে শিশুর মৃত্যু নদী শুকিয়ে যাওয়ায় কাপ্তাইয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন কমেছে ঢাকায় ৭ মাত্রার ভূমিকম্পে ৩ লাখ প্রাণহানির শঙ্কা সূচক বাড়লেও লেনদেন ও অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে মুকিদুলে মুগ্ধতা ছড়াল কুমিল্লা হাফেজ ও কৃতী শিক্ষার্থীদের সম্মাননা দেবে মারকাযুল ফুরকান শিক্ষা পরিবার রাষ্ট্রপতি প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষমতা শেখ হাসিনাকে দেয়া হয়েছে

সকল