০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯, ৭ জিলহজ ১৪৪৩
`

ঈশ্বরগঞ্জে লুট হয়ে যাচ্ছে অর্থনৈতিক জোনের বালু

ঈশ্বরগঞ্জের অর্থনৈতিক অঞ্চলের বালু লুট করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে : নয়া দিগন্ত -

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ব্রহ্মপুত্র নদের চরাঞ্চলে ঘোষিত অর্থনৈতিক অঞ্চল থেকে বিআইডব্লিউটিসির তুলে রাখা ৪৯ লাখ ঘনফুট বালু ট্রাকের পর ট্রাক লুট হয়ে যাচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসন ও এমপির নিষেধ থাকার পরও গত দুই বছর ধরেই চলছে বালু লুটপাটের এই কর্মযজ্ঞ। এ ঘটনায় গত রোববার ছয়জন শ্রমিক ও বালু বহনকারী ট্রাক্টর জব্দ করা হলেও একটি প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় থাকার কারণে তারা কেউই মুখ খুলছে না।
জানা যায়, আগামী ১৫ বছরে এক কোটি মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টির প্রত্যাশা নিয়ে সরকারি সংস্থা বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল (বেজা) নতুন করে ৯টি জোন নির্ধারণ করেছে। তার মধ্যে রয়েছে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার উঁচাখিলা ও রাজিবপুর ইউনিয়নের চররামমোহন মৌজায় ৪২৩ একর জমি। এখানে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে উঠলে উপকৃত হবে ঈশ্বরগঞ্জ, নান্দাইল, ত্রিশাল, গৌরীপুর ও কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর অঞ্চলের মানুষগুলো। জেগে ওঠা বালুচরের এই অর্থনৈতিক জোনে বিভিন্ন শিল্পকারখানায় কাজ করে এ অঞ্চলের মানুষের ভাগ্য কিছুটা পাল্টাবে বলে আশা করছেন অনেকেই।
২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধন করা প্রস্তাবিত এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিআইডব্লিউটিসি ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে ৪৯ লাখ ঘনফুট বালু উঠিয়ে রাখে। অথচ উঠিয়ে রাখা সেই বালু ট্রাক ভর্তি করে নিয়ে যাচ্ছে একটি প্রভাবশালী মহল। তাদের দেখাদেখি অন্য কুচক্রীরাও ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করছে। এতে নদের পাড় ভেঙে এখন হুমকির মুখে পড়েছে গ্রামবাসী। এই কর্মকাণ্ড কয়েক বছর ধরে অব্যাহত থাকায় বেশ কয়েকটি গ্রাম ইতোমধ্যে বিলীন হয়ে গেছে।
ট্রাকের পর ট্রাক বালু লুট হয়ে যাওয়ার সংবাদ পেয়ে স্থানীয় প্রশাসন গত ২২ মে সেখানে অভিযান চালায়। অভিযান পরিচালনা করেন ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে সহকারী কমিশনার ভূমি মাহবুবুর রহমান। এ সময় ড্রেজার মেশিন ও বালু বহন করা কয়েকটি যানসহ ছয় শ্রমিককে আটক করা হয়। পরে অবশ্য তাদেরকে বালু উত্তোলন না করার মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। কিন্তু এতেও বালু উত্তোলন ও লুটপাট থেমে নেই। অভিযানের দু’দিন পরই ফের বালু উত্তোলন শুরু হয়।
জানা গেছে, হামিদুর রহমান ঢালি নামে একজনের ছত্রছায়ায় চররামমোহনপুর এলাকায় প্রস্তাবিত অর্থনৈতিক জোন থেকে বালু উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে একটি মহল। এ বিষয়ে হামিদুর রহমান জানান, ময়মনসিংহের সাফা নামের একজনের চাকরি করেন তিনি। এর বেশি কিছু করেন না তিনি।
স্থানীয়রা জানান, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের ছত্রছায়ায় থেকেও অনেকেই এখান থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে।
এ ব্যাপারে উঁচাখিলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ারুল হক খান সেলিম বলেন, বিভিন্ন সরকারি কাজের জন্য এবং এলাকার কিছু খেটে খাওয়া শ্রমিক অল্প কিছু বালু উত্তোলন করছেন। এ কাজের সাথে আমাকে জড়ানোর চেষ্টা করছে একটি মহল। অথচ বালু উত্তোলনের সাথে আমি জড়িত নই।
এ ব্যাপারে ময়মনসিংহ-৮ (ঈশ্বরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ফখরুল ইমাম বলেন, আমার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এখানে অর্থনৈতিক জোন অনুমোদন হয়। এ লক্ষ্যে অর্থনৈতিক জোনের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়েও চলছে। ঘোষণার পরপরই নদ থেকে ৪৯ লাখ ঘনফুট বালু উত্তোলন করে রাখা হয়েছে। অথচ শুনতে পাচ্ছি সেই বালুও নিয়ে যাচ্ছে একটি প্রভাবশালী মহল। সেই প্রভাবশালী মহল কারা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপনারা খোঁজ নিয়ে সেটা বের করুন।


আরো সংবাদ


premium cement