০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯, ৭ জিলহজ ১৪৪৩
`

ফুলবাড়ী-বালারহাট সড়কের বেহাল দশায় দুর্ভোগ

কুড়িগ্রামে ফুলবাড়ী-বালারহাট সড়কের অবস্থা : নয়া দিগন্ত -

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলা সদরের সাথে নাওডাঙ্গা ও শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষের যোগাযোগের একমাত্র পথ ফুলবাড়ী-বালারহাট সড়কের বেহাল দশায় জনদুর্ভোগ চরমে উঠেছে। প্রায় ছয় কিলোমিটার সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় কার্পেটিং উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে অহরহ দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে যানবাহন ও পথচারীরা।
সরেজমিন দেখা গেছে, উপজেলা সদরের তিনকোণা মোড় থেকে নাওডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত প্রায় ছয় কিলোমিটার দীর্ঘ ফুলবাড়ী টু বালারহাট সড়কটি সংস্কারের অভাবে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এই সড়ক দিয়ে উপজেলার নাওডাঙ্গা ও শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ জনসাধারণ উপজেলা সদরে যাতায়ত করে। তাছাড়া দুই ইউনিয়নের মানুষের চিকিৎসাসেবা, কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণসহ সব কিছুর একমাত্র পথ এই সড়কটি। উপজেলার সবচেয়ে বড় গরুর হাট বালারহাট এই সড়কের শেষ প্রান্তে অবস্থিত। এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন শত শত ব্যাটারি অটো, সিএনজি অটো, পিকআপ ভ্যান, মালবাহী ট্রাক্টর চলাচল করে। সড়কটি খানাখন্দে ভরে থাকায় ফলে সামান্য বৃষ্টি হলেই খালে পড়ে অহরহ দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে চলাচলকারী যানবাহন ও পথচারীরা।
নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের বাসিন্দা অবিনাশ রায় বলেন, উপজেলা সদরে আমার ওষুধের দোকান থাকায় প্রতিদিন সকালে যাই রাতে বাড়ি ফিরি। বালারহাট থেকে অটোরিকশায় ফুলবাড়ী যেতে আগে ১৫-২০ মিনিট সময় লাগত। রাস্তায় গর্ত থাকায় এখন ৪০ মিনিট থেকে এক ঘণ্টা সময় লাগে।
ফুলবাড়ী উপজেলা প্রকৌশলী আসিফ ইকবাল রাজীব জানান, ফুলবাড়ী-বালারহাট সড়কের বেহালদশা সম্পর্কে আমরা অবগত আছি। এরই মধ্যে উপজেলা সদরের জিরো পয়েন্ট থেকে এক কোটি ৬০ লাখ ছয় হাজার ৪০৮ টাকা ব্যয়ে ১৫০০ মিটার সড়কের কাজ চলমান আছে। আশা করছি ২০২২-২৩ অর্থবছরের মধ্যেই সড়কটির বাকি অংশের মেরামতের কাজ সমাপ্ত হলে জনদুর্ভোগ দূর হবে।


আরো সংবাদ


premium cement