১৬ মে ২০২২
`

নাব্য সঙ্কটে পাটলাই নদী ৮০০ নৌযান আটকা

হুমকির মুখে ৬ হাজার কোটি টাকার বাণিজ্য
পাটলাই নদীতে নাব্যতা সঙ্কটে আটকাপড়া সারি সারি নৌকা : নয়া দিগন্ত -

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে পাটলাই নদীর নাব্যতা সঙ্কটে আটকে আছে আট শতাধিক মালামাল বোঝাই নৌকা। এতে পাঁচ থেকে ছয় হাজার কোটি টাকার বাণিজ্য আটকা পড়েছে ১৫ দিন ধরে। সংশ্লিষ্ট প্রায় অর্ধলাখ ব্যবসায়ী ও শ্রমিক পড়েছে নানা সঙ্কটে।
দীর্ঘ দিন নৌকা আটকে থাকায় নৌকাতেই বসবাস করছে মালিক-শ্রমিকরা। তারা প্রাকৃতির ডাকে সারা দিচ্ছে নদীতেই। এতে নদীর পানি ও পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। আবার ওযু-গোসল ও রান্নার কাজও হচ্ছে নদীর পানিতেই। এতে নানান রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ দিকে নাব্যতা ফেরাতে নদী খননের কাজ শুরু হলেও সংশ্লিøষ্টরা কোনো কাজই করছে না।
নদীর তলদেশ খনন না করার কারণে পাটাবুকা থেকে কানামইয়া বিল পর্যন্ত সাত কিলোমিটারের অধিক নৌ-জটের সৃষ্টি হয়েছে। এ নদীতে ২৫-৩০ মিনিটের পথ পাড়ি দিতে ২৫-৩০ দিনের বেশি সময় লেগে যাচ্ছে। ফলে লাভের পরিবর্তে ক্ষতির শিকার হচ্ছে নৌকা মালিক-শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা।
আর এ সুযোগে উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের পাটলাই নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে চাঁদাবাজি করছে স্থানীয় সঙ্ঘবদ্ধ চক্র। বেড়েছে সোলাইমানপুর বাজারের দ্রব্যমূল্যও।
জানা যায়, এ উপজেলার সাথে অভ্যন্তরীণ কিংবা বাইরের জেলা ও উপজেলার সাথে মালামাল পরিবহনে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ নেই, বর্ষায় ও হেমন্তে নৌপথ-ই ভরসা। প্রতি বছর উপজেলার সীমান্তবর্তী বড়ছড়া, বাগলী, চাড়াগাঁও তিনটি শুল্ক স্টেশন থেকে কোটি কোটি টাকার কয়লা, চুনাপাথর, এবং উপজেলার বালু ও নুড়ি পাথর ক্রয় করে, ভৈরব, বাজিতপুর, কিশোরগঞ্জ, আশুগঞ্জ, ফতুল্লাসহ সারা দেশে জোগান দেয় এখানকার ব্যবসায়ীরা। এ ছাড়াও সুনামগঞ্জ জেলা সদর, ধর্মপাশা, জামালগঞ্জ, বিশ্বম্ভপুর, মধ্যনগরসহ পাশের নেত্রকোনা, কমলাকান্দা, মোহনগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, ভৈরবসহ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের সাথে ব্যবসাবাণিজ্যের স্বার্থে বিভিন্ন মালামাল নৌ-পথে পরিবহন করে যোগাযোগ রক্ষা করা হয়। আর এসব পণ্য পরিবহনের একমাত্র মাধ্যম নদীপথ। কিন্তু নদীর নাব্যতা সঙ্কটের কারণে অক্টোবর মাস থেকেই ব্যবসাবাণিজ্যে ভাটা পড়ে। বিরূপ প্রভাব পড়ছে সংশ্লিষ্টদের জীবন ও জীবিকায়।
সিফাত নৌ পরিবহনের চালক তছলিম মিয়া বলেন, কয়লা ও চুনাপাথর ব্যবসায়ীরা আমাদের নৌকায় কয়লা তুলে তাদের দায় শেষ। লাভ তাদের হয়েছে আর যারা কিনে আমাদের মাধ্যমে নিচ্ছে তারা আর আমরা আছি বহু কষ্টের মাঝে। নদী খননের কাজ শুরু হলেও দায়িত্বে থাকা লোকজন কোনো কাজই করছে না। আমাদের দুর্ভোগ লাঘব হবে কিভাবে?
নৌ-শ্রমিক জুলহাস মিয়া, ওয়াসিম মিয়াসহ অনেকেই জানান, পাটলাই নদীর নাব্যতা হারানোর ফলে এই সময় পাটাবুকা থেকে কানামইয়া বিল পর্যন্ত সাত কিলোমিটারের অধিক নৌ-জটের সৃষ্টি হয়েছে। এতদিন ধরে এখানে আটকে আছি বাড়িতে বাবা-মা, বউ, ছেলেমেয়ে আমাদের অপেক্ষায় আছে।
চুনাপাথর ও কয়লা ব্যবসায়ীরা রফিক উদ্দিনসহ অনেকেই বলেন, সময় মতো মালামাল ক্রেতাদের দিতে পারি না। এতে আমাদের ব্যবসার ক্ষতি হচ্ছে।
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল বলেন, প্রতি বছর জটে নৌ-মালিক-শ্রমিক ও ব্যবসায়ীদের চরম ক্ষতির শিকার হতে হচ্ছে। খুবই দুরবস্থার মাঝে আছেন নৌকা শ্রমিক ও মালিকসহ সংশ্লিষ্টরা।
এ ব্যাপারে তাহিরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আব্দুল লতিফ তরফদার বলেন, আটকে পড়া নৌযানের নিরাপত্তার জন্য সার্বক্ষণিক পুলিশি টহল রয়েছে। আমি নিজেও গিয়ে সমস্যা সমাধানে চেষ্টা করছি।
উপজেলা নির্বাহী র্কমর্কতা রায়হান কবির বলেন, খননের কাজ চলমান। আমাদের পক্ষ থেকে নৌ-জট নিরসনের জন্য সবসময় খোঁজখবর রাখা হচ্ছে।


আরো সংবাদ


premium cement
সিংড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে কলেজশিক্ষার্থীর মৃত্যু দক্ষিণ কোরিয়ায় হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে ৩ জন হতাহত মিঠাপুকুরে স্লুইস গেট সংস্কারের অভাবে কয়েক হাজার কৃষকের স্বপ্ন পানিতে ভাসছে শিরিনকে স্মরণ রাখতে জমজ সন্তানের বাবার অভিনব উদ্যোগ পিরোজপুরে বাড়িতে ঢুকে বৃদ্ধাকে শ্বাসরোধে হত্যা ম্যাথুজ-বিশ্বর ব্যাটে অস্বস্তিতে বাংলাদেশ কাটছে না ভিসা সঙ্কট : হতাশায় জার্মানগামী বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলায় কয়েক মাসে প্রাণহানি দুই শতাধিক বাংলাদেশে ফিরতে চান পি কে হালদার আশুলিয়ায় কুকুরের গোশত দিয়ে বিরিয়ানি বিক্রি, আটক ১ রাশিয়ার হামলা ঠেকাতেই নদীর বাঁধ কাটলেন গ্রামবাসী

সকল