০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯, ৬ জিলহজ ১৪৪৩
`

জীবননগরে বাড়ছে যান্ত্রিক উপায়ে ধানের চারা রোপণ

জীবননগরে বাড়ছে যান্ত্রিক উপায়ে ধানের চারা রোপণ -

সময়েসাথে পাল্লা দিয়ে কৃষিখাতে দেখা দিচ্ছে শ্রমিক সঙ্কট। সেইসাথে বাড়ছে শ্রমের মূল্য। অন্য দিকে প্রযুক্তির কল্যাণে কৃষিতে বাড়ছে যন্ত্রের ব্যবহার। এতে হ্রাস পাচ্ছে শ্রমিকের প্রয়োজন। কম সময়ে ও কম শ্রমে অধিক কাজ সম্পন্ন করার মতো যন্ত্রের ব্যবহার হচ্ছে গ্রামপর্যায়ে। চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে গত কয়েক বছর ধরে ধান রোপণে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার দিয়ে ধান রোপণ ও মাড়াইয়ে আগ্রহ বাড়ছে।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, ধান রোপণ যন্ত্রের মাধ্যমে বোরো ধানের চারা রোপণ করলে কৃষকের উৎপাদন ব্যয় সবোর্চ্চ শতকরা ৬০ ভাগ পর্যন্ত সাশ্রয় হতে পারে। এ ছাড়া রোপণ যন্ত্রের মাধ্যমে চারা রোপণে আরো কিছু সুবিধা রয়েছে।
সম্প্রতি জীবননগর উপজেলায় প্রতাপপুর আইপিএম ক্লাবে সরকারিভাবে একটি ধান রোপণ যন্ত্র (রাইস ট্রান্সপ্লান্টার) প্রদান করা হয়েছে। ওই যন্ত্রটি প্রথমে ক্লাবের সদস্য কৃষকদের জমিতে ধান রোপণ এ বছর পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করা হয়েছে। এরই মধ্যে কৃষকদের মধ্যে যন্ত্র দিয়ে ধান রোপণে ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে।
জীবননগর উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন বলেন, এখনে এখনো ব্যাপকভাবে কৃষিখাতে যান্ত্রিকীকরণ হয়নি। উপজেলায় এ পর্যন্ত একটি ধান রোপণ যন্ত্রের হিসাব পাওয়া গেছে। এ যন্ত্রের প্রতি শুরুতেই কৃষকদের তেমন আগ্রহ লক্ষ্য করা না গেলেও বর্তমানে আগ্রহ বাড়ছে। আগামীতে উপজেলায় ধান রোপণ ও মাড়াইয়ে যন্ত্রের চাহিদা আরো বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
উপজেলা প্রতাপপুর গ্রামের কৃষক আলম হোসেন ও জমসেদ আলী বলেন, প্রথমদিকে যান্ত্রিককরণের মাধ্যমে ধান চাষের ব্যাপারটি আমাদের মধ্যে হাস্যকর মনে হলেও এখন মেশিন দিয়ে ধান রোপণ করেছি। এতে সময় ও খরচ দুই-ই অনেক কম হয়। অন্য দিকে এ পদ্ধিতে চাষে রোগবালাই কম হওয়ায় উৎপাদনও বেশি।
জীবননগর উপজেলা কৃষি অফিসার সারমিন আক্তার বলেন, ধান রোপণ যন্ত্রের দাম দেড় লাখ টাকা থেকে পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত। সরকার চীন ও জাপান থেকে এ সব যন্ত্র আমদানি করে থাকেন। সরকার প্রায় অর্ধেক ভর্তুকিতে কৃষকদেরকে কৃষি যন্ত্র প্রদান করছেন। কৃষি মন্ত্রণালয়ের ‘খামার যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের’ আওতায় কৃষি যন্ত্রের জন্য ভর্তুকি দিচ্ছেন। কৃষিখাতে যন্ত্র ব্যবহারে একদিকে উৎপাদন বাড়বে, অন্য দিকে আর্থিকভাবেও সাশ্রয়ী হবেন কৃষকেরা।

 

 


আরো সংবাদ


premium cement