১৭ আগস্ট ২০২২
`

কোরিয়া থেকে উন্নত পেঁয়াজবীজ আনলেন প্রকৌশলী জাহিদুল

-

বাংলাদেশ থেকে পেঁয়াজ সঙ্কট দূর করতে এবার দক্ষিণ কোরিয়া থেকে উন্নত জাতের পেঁয়াজের বীজ সরবরাহ করা হয়েছে। নওগাঁর আত্রাই উপজেলার কৃতী সন্তান প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলামের দীর্ঘ দিনের প্রচেষ্টায় দক্ষিণ কোরিয়ার হিমশান কোম্পানির পক্ষ থেকে এই বীজ সরবরাহ করেছেন।
আত্রাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইফতেখারের কাছে এই বীজ হস্তান্তর করা হয়েছে। বাংলাদেশের উর্বর জমিতে এই বীজ সঠিক পদ্ধতিতে চাষ করা হলে প্রতিটি পেঁয়াজের ওজন হবে এক কেজি পর্যন্ত। প্রাথমিক পর্যায়ে এই কোরিয়ান পেঁয়াজ আত্রাই ও রানীনগর উপজেলায় কৃষি কর্মকর্তার মাধ্যমে রোপণ করে উন্নত বীজ বৃদ্ধি করা হবে। এরপর এ দু’টি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় এই পেঁয়াজ চাষের কার্যক্রম শুরু হবে। পর্যায়ক্রমে দেশব্যাপী কোরিয়ান পেঁয়াজ চাষের প্রতি কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করার পরিকল্পনা রয়েছে।
প্রায় দুই বছর ধরে বাংলাদেশে পেঁয়াজের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। পেঁয়াজের এই তীব্র সঙ্কটের কারণে কখনো কখনো ১৫০ থেকে ২০০ টাকা দরে পেঁয়াজ কেনাবেচা হচ্ছে, যা ছিল সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার নাগালের বাইরে। অনাকাক্সিক্ষত উচ্চ দামে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে অনেক সাধারণ মানুষকে হিমশিম খেতে হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে উন্নত জাতের পেঁয়াজ চাষের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে পেঁয়াজের সঙ্কট দূর করার লক্ষ্যে প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলাম দক্ষিণ কোরিয়া থেকে বড় আকারের উন্নত জাতের পেঁয়াজের বীজ সংগ্রহের উদ্যোগ নেন। তার দীর্ঘ দিনের প্রচেষ্টায় অবশেষে দক্ষিণ কোরিয়ার হিমশান কোম্পানির চেয়ারম্যান কিম থে কিয়ং ও সিইও কিম ডো সিওলের প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলামের হাতে উন্নতমানের এই পেঁয়াজ বীজের প্যাকেট তুলে দেন। এ জন্য আত্রাই ও রানীনগরবাসীর পক্ষ থেকে প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলাম দক্ষিণ কোরিয়ার সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।


আরো সংবাদ


premium cement