২৫ জানুয়ারি ২০২২
`

সীতাকুণ্ডে শত বছরের পুকুর ভরাট করে স্থাপনা

সীতাকুণ্ডের আউলিয়ায় শতবর্ষী পুকুর ভরাট বন্ধ করে দিলো প্রশাসন: নয়া দিগন্ত -

সীতাকুণ্ডের বার আউলিয়া এলাকায় শত বছরের সরকারি পুকুর ভরাট করে সেখানে রাতারাতি স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। ৫০ শতকের বওনা জামে মসজিদ পুকুরটি ভরাটের কারণে মুসল্লিদের ওজু করা ছাড়াও আশপাশের শতাধিক পরিবার নানা সমস্যায় পড়েছে। তবে মুসল্লিদের অভিযোগের ভিত্তিতে বার আউলিয়া হাইওয়ে পুলিশ আপাতত কাজ বন্ধ করে দিয়েছে বলে জানানো হয়েছে।
সরেজমিন দেখা যায়, স্থাপনা নির্মাণের জন্য বওনা পুকুরের মাঝখানে বাঁশের ঘেরাও দিয়ে চলছে মাটি ভরাটের কাজ। এলাকাবাসীর পাশাপাশি পুকুরটি ব্যবহার করে মসজিদের শত শত মুসল্লি। তবে মাটি ভরাটের কারণে বর্তমানে কাদামাটিতে একাকার হয়ে ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে গেছে পুকুরটি। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছে নামাজ পড়তে আসা শত শত মুসল্লির পাশাপাশি হাজার হাজার এলাকাবাসী।
এলাকাবাসী জানায়, সোনাইছড়ি ইউনিয়নের বার আউলিয়া এলাকার মহাসড়ক সংলগ্ন শতবর্ষী বওনা পুকুরটি (মসজিদ পুকুর) স্থাপনা নির্মাণের জন্য ভরাট শুরু করেন মোরশেদ নামে এক ব্যবসায়ী। তখন জনগুরুত্বপূর্ণ এ পুকুর ভরাটে এলাকাবাসী ও স্থানীয় মুসল্লিদের মাঝে অসন্তোষ দেখা দেয়। কিন্তু তাতে গুরুত্ব না দিয়ে মোরশেদ পুকুর ভরাট কাজ চালিয়ে যান। পুকুর ভরাট বন্ধে এলাকাবাসী স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে একাধিকবার অভিযোগ দিলেও তাতে কোনো সুফল মেলেনি। পরবর্তীতে পুকুর ভরাট বন্ধে বার আউলিয়া হাইওয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ করা হয়। এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে বার আউলিয়া হাইওয়ে পুলিশের এএসআই ইব্রাহিম ঘটনাস্থলে গিয়ে পুকুর ভরাট কাজ বন্ধ করেন।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মোর্শেদ বলেন, আমি পুরো পুকুর ভরাট করছি না। তবে স্ক্র্যাব মালামাল রাখার সুবিধার্থে ডিপো নির্মাণে পুকুরের পাশের কিছু অংশ ভরাট করছি। পুলিশ এসে বাধা দেয়ার পর ভরাট কাজ বন্ধ করে দিয়েছি। তবে স্থানীয়দের আশঙ্কা আবার যে কোনো সময় সে পুকুরটি ভরাট করে দখল করে নিতে পারে।
বার আউলিয়া হাইওয়ে থানার এএসআই ইব্রাহিম বলেন, এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পুকুরের ভরাটকাজ বন্ধ করে দিয়েছি। পুকুর ভরাটে জড়িতদের থানায় যোগাযোগও করতে বলা হয়েছে।


আরো সংবাদ


premium cement