২৮ অক্টোবর ২০২১
`

রাজবাড়ীতে ভুয়া চক্ষু বিশেষজ্ঞের রমরমা ব্যবসা

-

নাম সোলায়মান হোসেন। পাবনার বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার। তবে পাবনা থেকে রাজবাড়ী এসে নাম পালটে হয়ে গেছেন চক্ষু বিশেষজ্ঞ ও ফ্যাকো সার্জন। রাজবাড়ীতে তিনি ডা: মো: মোস্তফা সরোয়ার নামে পরিচিত। রাজবাড়ী শহরের প্রাণকেন্দ্রে রাবেয়া টাওয়ারের তৃতীয় তলায় অনুমোদনহীন চক্ষু হাসপাতাল খুলে রীতিমতো রোগী দেখছেন তিনি। ২০২০ সাল থেকে তিনি বিশেষজ্ঞ ও ফ্যাকো সার্জন পরিচয়ে ৫০০ টাকা ভিজিট নিয়ে চক্ষু রোগীদের চিকিৎসাসেবার নামে প্রতারণা করে আসছেন। তার এই প্রতারণার কাজে সহযোগিতা করছেন তার দ্বিতীয় স্ত্রী শিমুল মুন। তিনিও নিজেকে অপথালমোলজিস্ট হিসেবে পরিচয় দেন। পাবনার বেড়া থেকে সপ্তাহে তিন দিন (বুধ, বৃহস্পতি ও শুক্রবার) রাজবাড়ী এসে মিথ্যা ডাক্তার পরিচয় দিয়ে চক্ষু রোগী দেখেন সোলায়মান হোসেন।
জানা যায়, ২০২০ সালে রাজবাড়ী শহরের বড়পুলে রাবেয়া টাওয়ারের তৃতীয় তলায় সরকারি কোনো অনুমোদন ছাড়াই গড়ে তোলেন আইভি আই কেয়ার অ্যান্ড ফ্যাকো সেন্টার নামে চক্ষু হাসপাতাল।
নাম ও পরিচয় পাল্টে তৈরি করেন নতুন ভিজিটিং কার্ড ও সাইনবোর্ড। ভিজিটিং কার্ডে তার উপাধি দেয়া হয় ‘সিয়াম সামি আই কেয়ার অ্যান্ড ফ্যাকো সেন্টারের কনসালট্যান্ট’। তবে ‘সিয়াম সামি আই কেয়ার...’ হাসপাতালের কোনো ঠিকানা ভিজিটিং কার্ডে দেয়া নেই। এমবিবিএস, ডিও (ডিইউ) এপিডি/স্পেশাল ট্রেনিং মাইক্রো সার্জারি, ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতাল, ঢাকা/ট্রেইন্ড ইন অরবিস (আমেরিকা) নামে নানা ডিগ্রির কথা উল্লেখ করা হয় তার নামের সাথে।
একইভাবে ক্লিনিকটির চেম্বারেও তার পরিচয় লিখে রাখা হয়। চেম্বারের অপরপ্রান্তে সাজিয়ে রাখা হয়েছে ৮-১০টি বেড। একই ভবনের পঞ্চম তলায় দ্বিতীয় স্ত্রী শিমুল মুনকে নিয়ে বসবাস করেন তিনি। ছদ্মবেশে রোগী পরিচয়ে সংবাদকর্মীদের একজন প্রবেশের পর সেখানে ডাক্তারের চেয়ারে বসা সোলায়মান হোসেন নিজেকে ডা: মো: মোস্তফা সরোয়ার হিসাবে পরিচয় দেন। ভুয়া ডাক্তার মোস্তফা চোখের পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করেন। বাহিরা অপেক্ষারত অন্য সাংবাদিকরা ডাক্তারের রুমে প্রবেশ করে ভিডিও করার জন্য ক্যামেরা বের করলে ঘাবড়ে যান ভুয়া চক্ষু ডাক্তার সোলায়মান।
ক্যামেরার সামনে তিনি নিজেকে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার হিসেবে পরিচয় দেন। রোগীদের সাথে নিজের প্রতারণার কথা ও দোষ স্বীকার করে সাংবাদিকদের নিউজ না করার জন্য কাকুতিমিনতি শুরু করেন। এমন প্রতারণা পরবর্তী সময়ে আর কখনো করবেন না বলেও অঙ্গীকার করেন।
জানা যায়, সোলায়মান হোসেন নিজেকে যে নামে পরিচয় দিতেন সেই চক্ষু বিশেষজ্ঞ ও ফ্যাকো সার্জন ডা: মো: মোস্তফা সরোয়ার টাঙ্গাইলের রোকেয়া আই কেয়ার অ্যান্ড ফ্যাকো সেন্টারের পরিচালক ও চিফ কনসালট্যান্ট। তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, রাজবাড়ীর আইভি আই কেয়ার অ্যান্ড ফ্যাকো সেন্টারের সাথে তার কোনো যোগাযোগ নেই। এখানে তিনি কোনো দিনই রোগী দেখেননি। তার নাম ভাঙিয়ে যদি কেউ প্রতারণা করে তাহলে সেই প্রতারকের শাস্তি দাবি করেন তিনি।
পাবনা জেলার বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: ফাতেমা তুজ জান্নাত বলেন, সোলায়মান হোসেন উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার হিসাবে কর্মরত আছেন। তার ডিউটি তিনি ঠিকমতোই পালন করেন। এখানে তার স্ত্রী ও দুই ছেলেও রয়েছে। রাজবাড়ীতে তার দ্বিতীয় স্ত্রী ও প্রতারণার বিষয় আমার জানা ছিল না। বিষয়টি নিয়ে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।
রাজবাড়ীর সিভিল সার্জন ডা: ইব্রাহীম টিটন বলেন, এ ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিষয়টি দেখা হচ্ছে।
রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, বিষয়টি আমার আগে জানা ছিল না। এ ব্যাপারে সিভিল সার্জনের সাথে কথা বলে দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আরো সংবাদ


সাইফউদ্দিনের বিশ্বকাপ শেষ, দলে ফিরলেন রুবেল (২৪১৭৬)প্রয়োজনে সেনাবাহিনীকে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর (১৭৪০৭)কাঁচপুরের বিশাল কারখানা বন্ধের পেছনে কারণ কী? (১৪৪৮৪)কেন ওভারটোন সেতুতে আত্মহত্যা করে কুকুররা (১৩৬২১)স্ত্রীকে বিক্রি করে স্মার্টফোন কিনল নাবালক স্বামী! (১২৫৩৮)পাকিস্তান জেতায় লাভ ভারতীয়দের! (১১৩৩৩)ওয়াকার ইউনিসের মন্তব্যে ক্ষুব্ধ ভারতীয় সাবেক ক্রিকেটার (৭৯৫৪)নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের জয়ে ভারত আরো চাপে! (৭৬৭৪)ভারতে ফের ডুবোজাহাজের তথ্যপাচার, ৩ নৌ-কর্মকর্তা গ্রেফতার (৬৭৩৯)নির্বাচনের বিষয়ে বাংলাদেশের মানুষ সিদ্ধান্ত নেবেন : ডিকসন (৬৬৬৪)