১২ মে ২০২১
`

চৌগাছায় ড্রাগনের ডগায় স্বপ্ন বুনছেন হেলাল খান

চৌগাছায় হেলাল খানের ড্রাগন বাগান : নয়া দিগন্ত -

যশোরের চৌগাছায় ড্রাগন চাষে অর্থনৈতক মুক্তির স্বপ্ন দেখছেন সিঙ্গাপুর ফেরত উপজেলার সিংহঝুলি গ্রামের ইয়াকুব আলী খানের ছেলে হেলাল খান মিঠু। অল্পকিছু দিনের মধ্যেই তার ৯ বিঘা জমির ড্রাগন গাছে ফুল ও ফল আসা শুরু হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
সূত্র জানায়, হেলাল খান মিঠু চৌগাছা কামিল মাদরাসা থেকে লেখাপড়া শেষে ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় সিঙ্গাপুর যান। সেখানে একটি কনস্ট্রাকশন কোম্পানিতে ভালো বেতেন চাকরিও পেয়ে যান। পরে কোম্পানির বড় পদে পদোন্নতি পেলে কোম্পানি তাকে একটি প্রজেক্টের দায়িত্ব দিয়ে মালদ্বীপ পাঠিয়ে দেন। ১২ বছর প্রবাস জীবন শেষে নতুন কিছু করার আশায় দেশে ফিরে আসেন তিনি। পারিবারিক ব্যবসা থাকা সত্ত্বেও ব্যবসা না করে তিনি ঝুঁকিপূর্ণ কৃষিকেই বেছে নেন। শুরুতে ছাগলের খামার করলেও আর্থিক লোকসানের কারণে খামার ছেড়ে ভিয়েতনামী ড্রাগন ফল চাষের সিদ্ধান্ত নেন। এলাকার ড্রাগন চাষিদের পরামর্শ নিয়ে নারায়ণপুর মাঠে ৯ বিঘা জমি বর্গা নিয়ে হেলাল ড্রাগন চাষ শুরু করেন। গাছগুলোতে চলতি মাসের শেষে ফুল আসা শুরু হবে। প্রতিটি খুঁটির চারটি গাছ থেকে ৭ থেকে ৮ কেজি ফল আসবে বলে আশা করছেন হেলাল।
জানতে চাইলে হেলাল খান বলেন, ড্রাগন চাষে সবচেয়ে বড় সমস্যা সার সঙ্কট। সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে সার কিনতে হচ্ছে। উপজেলার কোনো সারের দোকানে ন্যায্যমূল্যে সার পাওয়া যায় না। যার ফলে টার্গেটের থেকে খরচ বেশি হচ্ছে।
কৃষি কাজকে কেন বেছে নিয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। ৮৫ ভাগ মানুষ কৃষির সাথে জড়িত। ফলে দেশটাকে এগিয় নিতে কৃষি খাতকে এগিয়ে নিতে চাই। প্রমাণ করতে চাই কৃষি কাজের মাধ্যমেও সফলতা ও অর্থনেতিক মুক্তি সম্ভব। কৃষি ঋণের বিষয়ে তিনি বলেন, খোঁজ নিয়ে দেখেন ক’জন কৃষকও সেই কৃষিঋণ পেয়েছে। যাদের কৃষির সাথে কোনো সম্পর্ক নেই তারাই এই ঋণ সুবিধা নিচ্ছেন। ৯ বিঘা জমিতে ২ হাজার ১০৩টি খুঁটিতে গাছগুলোকে এ পর্যায়ে আনতে ১৬ লাখ টাকা খরচ করেছি। ফল উঠানো পর্যন্ত আরো ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা লাগবে। ঝুঁকি নিয়ে আমি দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। প্রতিদিন অনেক মানুষ আমার বাগান দেখতে এলেও কৃষি বিভাগ থেকে কেউ আসেননি।
ড্রাগন চাষ সম্পর্কে জানেত চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রইচ উদ্দিন বলেন, ড্রাগন প্রধানত উষ্ণমণ্ডলীয় অঞ্চলের ফসল। পৃথিবীর যেসব এলাকায় দিন বড়, সেসব দেশে ড্রাগনের উৎপাদন ভালো হয়। আমাদের দেশও ড্রাগনের চাষ বেশ আশাব্যঞ্জক। যারা চাষ করেছেন তারা লাভবান হচ্ছেন।



আরো সংবাদ


চীনের মন্তব্যের জবাবে যা বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী (১০২৬৪)হামাসের কমান্ডার নিহত (৯৭৬৫)ইসরাইলি পুলিশের হাতে বন্দী মরিয়মের হাসি ভাইরাল (৭৩০৫)বিহারের পর এবার উত্তরপ্রদেশেও নদীতে ভাসছে লাশ (৬৭৮২)‘কোয়াডে বাংলাদেশ যোগ দিলে ঢাকা-বেইজিং সম্পর্ক খারাপ হবে’ (৫৮৬৩)যৌন অপরাধীর সাথে সম্পর্ক বিল গেটসের! এ কারণেই ভাঙল বিয়ে? (৪৮৬৯)উত্তরপ্রদেশে হিন্দু অধ্যুষিত গ্রামের প্রধান হলেন আজিম উদ্দিন (৪৪৫৬)নন-এমপিও শিক্ষকরা পাবেন ৫ হাজার টাকা, কর্মচারীরা আড়াই হাজার (৪২৪৬)মিতু হত্যা : স্বামী সাবেক এসপি বাবুল আক্তার গ্রেফতার (৩৯৭৩)গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি বিমান হামলায় ৯ শিশুসহ ২০ ফিলিস্তিনি নিহত (৩৮১৪)