০১ ডিসেম্বর ২০২০

মহম্মদপুরে ৩ শতাধিক বয়স্কের ভাতা বন্ধ

-

মাগুরার মহম্মদপুরে তিন শতাধিক বয়স্কের ভাতা বাতিল করা হয়েছে। সম্প্রতি ভাতা বন্ধের খবরে নারদ চন্দ্র বিশ্বাস (৭৫) নামে এক বৃদ্ধ মানসিকভাবে অসুস্থও হয়ে পড়েন। প্রথমে তাকে মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে পরিবার সূত্রে জানা গেছে।
বাবুখালী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হিজবুল আলম জানান, যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও ভাতার তালিকা থেকে বাদ দেয়ায় বয়স্করা মানসিকভাবে ভেঙে পড়ছেন। অসুস্থও হয়ে পড়ছেন অনেকে। যাদের অনেকে দিনমজুর, ময়রা বা কৃষিকাজ করলেও বর্তমানে তারা কাজ করতে পারেন না।
খোঁজ নিয়ে যায়, জিটুপি পদ্ধতিতে ভাতা পরিশোধের জন্য জুন মাসের ৫ তারিখ ও ২০ তারিখ নিয়মিত বয়স্ক ভাতাভোগীদের এনআইডি কার্ডের ফটোকপি এবং বই জমা দেয়ার জন্য বলা হয়। তাদের মধ্যে এনআইডি টেম্পারিং, বয়স কম এবং বই জমা না দেয়ার কারণে উপজেলা পরিষদের সমন্বয় সভায় এক হাজার ৮১৯ জন ভাতাভোগীর ভাতা বন্ধ করা হয়। যার মধ্যে প্রায় ৮০০ বয়স্ক রয়েছেন যারা বইও জমা দেননি।
উপজেলা সমাজসেবা অফিসার কাজী জয়নুর রহমান জানান, অনেকে বই জমা দেয়ার কথা জানত না বা তাদের কাছে তথ্য পৌঁছায়নি বা তারা বাড়িতে ছিল না এমনো হতে পারে। কোনোভাবেই আমি তাদের ভাতা বন্ধের পক্ষে ছিলাম না। এ নিয়ে সময় বিবাদও হয়েছে। যাদের বয়স কম তাদের তথ্য জিটুপি সার্ভারে এমনিতেই নিত না। এখন প্রত্যেক ইউনিয়নের ফাইল করছি। যাদের বয়স ঠিক আছে, তাদের বই জমা নিয়ে সংগ্রহ করছি।

 


আরো সংবাদ