২৪ নভেম্বর ২০২০

কানাইপুর বাজারে পুড়ে গেছে ২ কোটি টাকার দোকান

-

ফরিদপুরের সদর উপজেলার কানাইপুর বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ২১টি দোকান পুড়ে গেছে। এতে প্রায় দুই কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে। গত মঙ্গলবার রাত ৯টা ২০ মিনিটের দিকে এ ঘটনা ঘটে। পুড়ে যাওয়া দোকানগুলোর মধ্যে জুতার দোকান, কসমেটিকসের দোকান, হার্ডওয়্যারের দোকান, ইলেকট্রনিক্সের দোকান, ওষুধের দোকান ও চালের গোডাউন রয়েছে।
সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা বলছে, এতে তাদের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে দুই কোটি টাকার ওপরে। ফরিদপুর দমকল বাহিনীর সহকারী পরিচালক নাজিমুদ্দিন বলেন, ওই বাজারের জুতা পট্টির একটি দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তের মধ্যে তা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ফরিদপুর ও মধুখালী উপজেলা থেকে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট এসে দুই ঘণ্টা প্রচেষ্টা চালিয়ে সাড়ে ১১টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তাদেরকে সহায়তা করে আনসার, ভিডিপি ও স্থানীয় জনগণ। বৈদ্যুতিক শট সার্কিট থেকে এ আগুনের সূত্রপাত বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। প্রাথমিক হিসেবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ দুই কোটি টাকা হবে বলে জানা গেছে। বুধবার সকাল থেকে দমকল বাহিনীর একটি দল ঘটনাস্থলে কাজ করছে। তারা ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণের পাশাপাশি অগ্নিকাণ্ডের প্রকৃত কারণ উদঘাটন করবে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরো বাড়তে পারে বলে তিনি জানান। আগুনে পুড়ে যাওয়া দোকানগুলোর মধ্যে রয়েছে আবীর ব্যাপারী, বক্কার ব্যাপারী, আবুল কাশেম, দেলোয়ার খান, ফরিদ ব্যাপারী, নাজিম ব্যাপারী, নুরু ব্যাপারী ও রহমত ব্যাপারীর জুতার দোকান, ফয়সাল ও উজ্জ্বল ব্যাপারীর কাপড়ের দোকান, রামু সাহা ও সমীর শিকদারের চালের আড়ত, নবদত্ত ও মামুনের ইলেকট্রনিক্স পণ্যের দোকান, নিমাই শিকদারের পাটের দোকান, ডা: জ্ঞানন্দের কবিরাজির দোকান, আটলের ব্যাগের দোকান ও একটি বিউটি পার্লার।
ফরিদপুরের পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামান ও সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ রেজা খবর পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থলে যান। সেখানে কোতোয়ালি থানার ওসি মোরশেদ আলমের নেতৃত্বে পুলিশও মোতায়ন করা হয়।

 


আরো সংবাদ