৩০ মার্চ ২০২০

চাটমোহরে কারেন্ট জাল পেতে পাখি নিধন

-

পাখি পোকামাকড় খেয়ে ফল ফসল রক্ষা, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা, জমি চাষের সময় মাটির নিচে থাকা কীটপতঙ্গের ডিম লার্ভা খেয়ে পোকামাকড়ের বংশবিস্তার নিয়ন্ত্রণসহ আমাদের বিভিন্ন উপকার করে। কিন্তু অনেক অসচেতন মানুষ কেবল কিছু টাকার জন্য অথবা মুখরোচক খাবার হিসেবে পাখির গোশত খাওয়ার জন্য নির্বিচারে পাখি শিকার করে থাকেন, যা অপরাধ। সম্প্রতি এমন কিছু পাখি শিকারীর দেখা পাওয়া যায় পাবনার চাটমোহর উপজেলার বেজপাড়া মাঠের মধ্যে।
অভিজ্ঞতা না থাকলে দূর থেকে দেখে বোঝার কোনো উপায় নেই।কয়েক জায়গায় বাঁশের সাথে বিশেষ কায়দায় বেঁধে রাখা রয়েছে কারেন্ট জাল। বাঁশগুলো ছাড়া চিকন কারেন্ট জাল প্রায় চোখে পড়ে না বললেই চলে। সেখানেই কথা হয় বেজপাড়া গ্রামের নুরুজ্জামানের ছেলে সেইন্ট রিটার্স স্কুলের সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থী শৌখিন পাখি শিকারি আমিনুলের (১৩) সাথে। আমিনুল জানায়, প্রতি জোড়া ঘুঘু আকারভেদে ৬০ টাকা থেকে ১০০ টাকা বিক্রি করা যায়। ঘুঘু ছাড়াও বিভিন্ন প্রজাতির পাখি আটকা পরে এ জালে। এর একটু অদূরেই পাখি শিকারের জন্য কারেন্ট জাল পেতেছে একই গ্রামের আবদুল মমিনের ছেলে মাহফুজ। মাহফুজ জানান, কারেন্ট জালে ঘুঘু পাখি শিকার করা খুব সহজ। জাল পেতে দূরে বসে থাকি। পাখি উড়ে যাওয়ার সময় জালে আটকে গেলে গিয়ে ধরে ফেলি।
পৌর সদরের বালুচর মহল্লার মোহাইমিনুল হালিম জানান, বিভিন্ন বিলে কারেন্ট জালসহ অন্যান্য উপায়ে বিভিন্ন প্রজাতির পাখি নিধনে মাতেন একশ্রেণীর অসচেতন মানুষ; যা মোটেও কাম্য নয়।

 


আরো সংবাদ