১৬ জানুয়ারি ২০২২, ০২ মাঘ ১৪২৮, ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩
`

শ্রীমঙ্গল স্টেশনে ট্রেনের টিকিট সঙ্কট বাড়ছে ভোগান্তি

-

মৌলভীবাজার জেলার অন্যতম রেলস্টেশন শ্রীমঙ্গল স্টেশন। চায়ের রাজধানী ও পর্যটন নগরী খ্যাত শ্রীমঙ্গল বিভিন্ন কারণে খ্যাতি অর্জন করেছে। মৌসুম ছাড়াও সারা বছর কম-বেশি পর্যটক আসেন এখানে। চায়ের নিলাম কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা হওয়ায় সারা দেশের ব্যবসায়ীরা আসেন নিলাম ডাকে অংশ নিতে। এ ছাড়া স্থানীয়রা শ্রীমঙ্গল রেলস্টেশন ব্যবহার করে থাকেন। সব মিলিয়ে সারা বছরই যাত্রীর চাপ থাকে। কিন্তু প্রয়োজনের তুলনায় শ্রীমঙ্গল স্টেশনে সিট বরাদ্দ কম থাকায় ভোগান্তি দিন দিন বাড়ছে। টিকিট না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন স্থানীয় ও পর্যটকরা।
জানা য়ায়, স্টেশন টিকিটের জন্য সারা দিনই যাত্রীদের ভিড় দেখা যায়। কিন্তু চাহিদার তুলনায় টিকিট কম হওয়াতে প্রায় সমপরিমাণ টাকা দিয়ে স্ট্যান্ডিং টিকিট কেটে দাঁড়িয়ে গন্তব্যে যান অনেক যাত্রী। এ দিকে স্টেশন কাউন্টার ও মোবাইল অ্যাপসে সমপরিমাণ আসন বরাদ্দ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এতে প্রযুক্তি ব্যবহারকারী যাত্রীরা হয়রানিমুক্ত টিকিটিং ব্যবস্থার সুবিধা পেলেও প্রযুক্তি ব্যবহার করেন না এমন যাত্রীরা স্টেশনে এসে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও টিকিট পাচ্ছেন না।
স্টেশন সূত্র জানায়, শ্রীমঙ্গল-ঢাকাগামী চারটি এবং শ্রীমঙ্গল-চট্টগ্রামগামী দু’টি আন্তঃনগর ট্রেন নিয়মিত যাতায়াত করে। শ্রীমঙ্গল স্টেশনে ঢাকাগামী আন্তঃনগর কালনী এক্সপ্রেসে ২৬টি, জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসে ৩৭টি, পারাবত এক্সপ্রেসে ৫৩টি এবং উপবনে ৩৬টি আসন বরাদ্দ রয়েছে। এ ছাড়া শ্রীমঙ্গল থেকে চট্টগ্রামগামী আন্তঃনগর পাহাড়িকায় ২৭টি এবং উদয়ন এক্সপ্রেসে ১৫টি আসন বরাদ্দ রয়েছে।
ট্রেনগুলোর মধ্যে কালনী শুক্রবার, জয়ন্তিকা বৃহস্পতিবার, পারাবত মঙ্গলবার, পাহাড়িকা শনিবার ও উদয়ন রোববার সাপ্তাহিক বন্ধ থাকে।
শ্রীমঙ্গলে বেড়াতে আসা পর্যটক শেখ শাদী বলেন, আমার মতো অনেক ট্রেনযাত্রী শ্রীমঙ্গল স্টেশনে দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়েও টিকিট না পেয়ে বিড়ম্বনায় পড়ছে। শ্রীমঙ্গল পর্যটননগরী। তাই এখানে দৈনিক পর্যাপ্ত টিকিটের ব্যবস্থা রাখা দাবি জানাচ্ছি। যাতায়াত অনেকটা নিরাপদ ও আরামদায়ক হওয়ায় মানুষের ট্রেন যাত্রার প্রতি আগ্রহ বেশি।
শ্রীমঙ্গল স্টেশনের বুকিং সহকারী মিঠুন চক্রবর্তী বলেন, পাহাড়িকা ও উদয়ন ট্রেনে লাকসাম, কসবা ও লাঙ্গলকোট স্টেশনের জন্য শ্রীমঙ্গল থেকে কোনো টিকিট বরাদ্দ নেই। তবে এ রুটে প্রতিদিন অনেক যাত্রী চলাচল করেন। এ ছাড়াও ঢাকাগামী কালনীতে শায়েস্তাগঞ্জ, আজমপুর, ভৈরব ও নরসিংদী স্টেশনের কোনো টিকিট শ্রীমঙ্গলে নেই।
শ্রীমঙ্গল স্টেশন মাস্টার আফসার উদ্দিন বলেন, প্রতিদিন অনেক পর্যটক ট্রেনের টিকিটের জন্য ভিড় করেন। আমরা চাহিদা মতো টিকিট দিতে পারছি না।

 


আরো সংবাদ


premium cement