০৮ জুলাই ২০২০

ময়মনসিংহে কলেজছাত্র খুনের ঘটনায় ৭ জন গ্রেফতার

-

ময়মনসিংহে প্রতিমা বিসর্জনের প্রস্তুতির প্রাক্কালে শাওন ভট্টাচার্য (২০) নামে এক কলেজছাত্র খুনের ঘটনায় সাতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের মধ্যে প্রধান আসামির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দীর মধ্যদিয়ে খুনের রহস্য উদঘাটিত হয়েছে বলে দাবি করেছেন ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার শাহ মো: আবিদ হোসেন। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই দাবি করেন। পুলিশ সুপার জানান, নগরীর গোলপুকুরপাড় এলাকায় প্রতিমা বিসর্জনের প্রস্তুতির প্রাক্কালে তিনটি গ্রুপের নাচানাচির সময় মাহিন গ্রুপের সাথে আবির গ্রুপের ধাক্কাধাক্কি হয়। এ সময় মাহিন তার পরনের প্যান্টের ডান পকেট থেকে সুইচ গিয়ার চাকু বের করে এলোপাতাড়িভাবে ধস্তাধস্তির সময় প্রথমে আবির আহত হয়। পরে শাওনের বুকে আঘাত লাগে। রক্তাক্ত জখম অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে শাওন মারা যায়। ঘটনার খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং কোতোয়ালি থানা ও ডিবি পুলিশকে আসামিদের গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। পুলিশ ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই এজাহারভুক্ত ৯ আসামির মধ্যে সাতজনকে গ্রেফতার এবং আলামত উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলোÑ নগরীর আর কে মিশন রোড গজিয়াবাড়ি মাঠের সেম্মত আলীর ছেলে মাহফুজুল ইসলাম মাহিন (১৮), নওমহলের আশিষ চন্দ্র দে’র ছেলে আকাশ চন্দ্র দে (১৫), আর কে মিশন রোডের ফরিদ উদ্দিনের ছেলে সারোয়ার উদ্দিন হৃদয় (১৮), বাঘমারার আসলামের ছেলে ফারদিন (১৯), হারুন অর রশিদের ছেলে সাজ্জাদ (১৯), চরপাড়ার হোসেনের ছেলে মুন্না (১৯) ও ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার মরিচারচরের সিদ্দিকুলের ছেলে রাকিব (১৯)।
এ ঘটনায় মাহফুজুল ইসলাম মাহিন আদালতে এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছে। একই ঘটনায় ইসলাম উদ্দিন নামে এক ব্যবসায়ী তার কাছ থেকে মাহিন তিন দিন আগে সুইচ গিয়ার চাকুটি কিনেছেন বলে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন। তবে ওই ব্যবসায়ীকে মামলায় আসামি করা হয়নি বলেও জানান পুলিশ সুপার।
সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবির ও আল আমিন, কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম ও ডিবির ওসি শাহ কামাল আকন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এ দিকে ময়মনসিংহ কমার্স কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র শাওন ভট্টাচার্যের খুনিদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছেন সহপাঠীরা। সকালে কলেজ ক্যাম্পাস থেকে মিছিল সহকারে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে গাঙিনারপাড় ট্রাফিকমোড়ে মানববন্ধন করেন তারা।

 


আরো সংবাদ