০৭ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯, ১০ রবিউল আওয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

দুর্ভাগ্য সুর কৃষ্ণ চাকমার

সুর কৃষ্ণ চাকমা - ছবি : বাসস

দুর্ভাগ্য বার্মিংহাম কমনওয়েলথ গেমসে অংশ নেয়া বাংলাদেশী বক্সার সুর কৃষ্ণ চাকমার।

আগের রাতে পতাকা বহন করা এই বক্সারের আজই রিংয়ে নামার কথা ছিল। আজ সন্ধ্যায় ফিজির এরিয়া রকবুলির সাথে লড়াই করার কথা তার। কিন্তু শারীরিক অসুস্থতার কারণে রিংয়ে দাঁড়াতেই পারলেন না সুর কৃষ্ণ চাকমা। ছিটকে গেলেন সকালে মেডিক্যাল টেস্ট করতে গিয়েই। এর আগে ২০১৪ সালের গ্লাসগো কমনওয়েলথ গেমসের প্রথম রাউন্ডে বাদ পড়েছিলেন এই বক্সার।

গেমসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পতাকা বহন করার কথা ছিল ভারোত্তোলক মাবিয়া আক্তার সীমান্তের। বাংলাদেশ থেকে এমন প্রস্তুতি নিয়েই যুক্তরাজ্য এসেছিলেন মাবিয়া। এখানে এসে জানতে পারেন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মার্চপাস্টে দেশের পতাকা একজন নয়, বহন করতে হবে দু’জনকে। যে কারণে বক্সার সুর কৃষ্ণ চাকমাকে সুযোগ দেয় বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ)।

বার্মিংহামের মাস্টনগ্রিনে ন্যাশনাল এক্সিভিশেন সেন্টারের চার নম্বর হলে লড়াইয়ে নামার কথা সুর কৃষ্ণের। দু’দিন সেখানে অনুশীলন করে রিংয়ে নামার প্রস্তুতিও নিয়েছিলেন সুর কৃষ্ণ। ফিজির প্রতিপক্ষের বিপক্ষে জয়ের আশাও করছিলেন তিনি। সে লক্ষ্যে সকালে উঠে মেডিক্যাল টেস্টে যান এই বক্সার। সেখানে তার রক্ত চাপ বেশি পেলে গেমস কর্তৃপক্ষ তাকে আনফিট ঘোষণা করে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশে দলের চিকিৎসক ডা: শফিকুর রহমান বলেন, ‘আসলে এটা ওর দুর্ভাগ্য। ইভেন্টের দিন সকালে রুটিন মেডিক্যাল চেক-আপে ওর উচ্চ রক্তচাপ ধরা পড়ে। এরপর ১৫-২০ মিনিট বিশ্রাম দিয়ে ফের পরীক্ষা করলেও প্রেসার বেশি আসে বলে ওকে খেলতে অনুমতি দেয়নি কর্তৃপক্ষ। পরে ওকে পলি ক্লিনিকে নিয়ে এলে সেখানকার চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে খানিকটা বেশি পান। এর এক ঘণ্টা পর থেকেই ওর প্রেসার কমতে শুরু করে এবং স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যায়। তবে গেমসের নিয়ম অনুযায়ী একটি নির্দিষ্ট সময়ের আগে মেডিক্যাল টেস্ট উত্তীর্ণ করতে হয়। সেটা তিনি করতে পারেননি।’

আক্ষেপ নিয়ে সুর কৃষ্ণ বলেন, ঘুম থেকে উঠে নাস্তা করে মেডিক্যাল টেস্ট যখন দেই, তখন কোনো সমস্যা হয়নি আমার। অথচ প্রেসার মেপে ডাক্তাররা বেশি পায়। দ্বিতীয়বারের পরীক্ষায়ও বেশি আসলে আমাকে খেলার অনুমতি দেয়নি। অথচ এর কিছুক্ষণ পরেই আমার প্রেশার স্বাভাবিক হয়ে যায়। এটাকে দুর্ভাগ্য হিসেবে আখ্যা দিয়ে দেশের একমাত্র প্রফেশনাল বক্সিংয়ে শিরোপা জেতা এই বক্সার বলেন, কোনো নার্ভাসনেস কাজ করেনি আমার মধ্যে। গতরাতে ভালো ঘুম না হওয়ার কারণেই হয়তো এমনটা হয়েছে।

বাংলাদেশের টিম অফিসিয়াল মাসুদ বলেন, ‘দ্বিতীয়বারের মতো সুর কৃষ্ণ কমনওয়েলথ গেমস খেলতে এসেছিল। সাম্প্রতিক সময়ে ওর পারফরম্যান্স ভালো ছিল বলেই ওকে নিয়ে একটু আশা ছিল। তবে প্রেসার বেড়ে যাওয়ায় ওকে খেলতে দেয়া হয়নি।’

সূত্র : বাসস


আরো সংবাদ


premium cement