২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১
`

আর্থিক সঙ্কটে বিকেএসপিতে ভর্তি হতে না পারা রিতু গড়লেন রেকর্ড

আর্থিক সঙ্কটে বিকেএসপিতে ভর্তি হতে না পারা রিতু গড়লেন রেকর্ড - ছবি : নয়া দিগন্ত

বিকেএসপিতে চান্স পেয়েও আর্থিক সঙ্কটে ভর্তি হতে না পারা রিতু গড়লেন জাতীয় রেকর্ড। হাইজাম্পে ১ দশমিক ৭০ মিটার লাফিয়ে তিনি ভেঙ্গে দিয়েছেন ২০১৯ সালে গড়া উম্মে হাফসা রুমকির (১ দশমিক ৬৮ মিটার) রেকর্ড। নৌবাহিনীর রুমকি এবার হয়েছেন দ্বিতীয়।

হালকা পাতলা গড়নের দীর্ঘদেহী রিতু আক্তার। শুদ্ধ বাংলায় কথা বলেন। মনে প্রচণ্ড আত্মবিশ্বাস। এই আত্মবিশ্বাসই অভিষেকে বাজিমাত করতে সাহায্য করেছে তাকে। শুক্রবার শুরু হওয়া ৪৪তম জাতীয় অ্যাথলেটিক্স ছিল গাইবান্ধার এই মেয়ের প্রথম কোনো বড় আসরে প্রতিনিধিত্ব। এসেই নতুন রেকর্ডের মালিক হয়ে গেলেন তিনি।

অথচ অ্যাথলেট থেকে হারিয়ে যাওয়ারই শঙ্কা ছিল রিতুর। ২০১৭ সালে বিকেএসপিতে ক্রিকেট ও অ্যাথলেটিক্সে ট্রায়াল দিয়ে চান্স পান অ্যাথলেটিক্সে। কিন্তু ওই ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে যে ২০ হাজার টাকা লাগে তা যোগাড় হয়নি বলে ভর্তিও হতে পারেননি। এরপরও বিভিন্ন দলের হয়ে অ্যাথলেট চালিয়ে যান। এরই ফলে রিতু গড়লেন রেকর্ড।

সাবেক সিএনজি চালক বাবার তিন মেয়ের মধ্যে দ্বিতীয় রিতু। সেনাবাহিনীর এই জাম্পার জানান, ‘২০১৭ সালে আমার বড় বোনের বিয়ের সময় আমি বিকেএসপিতে চান্স পাই। কিন্তু বাবার পক্ষে বোনের বিয়ের খরচের টাকা যোগাড়ের পাশাপাশি আমার বিকেএসপিতে ভর্তির টাকা আর দিতে পারেননি।’ উল্লেখ করেন, বিকেএসপিতে ভর্তি হতে না পেরে হতাশ হয়ে পড়লেও ভেঙ্গে পড়িনি। চালিয়ে যাই খেলা। আর এবার প্রথমবারের মতো জাতীয় অ্যাথলেটিক্সে অংশ নিয়েই রেকর্ড গড়ে স্বর্ণ জয়।’

রিতু হতে চেয়েছিলেন ক্রিকেটার, ছিলেন বোলার। ২০১৭ সালে মিরপুর বয়েজের হয়ে প্রথম বিভাগ ক্রিকেটে ৬ ম্যাচে ৯ উইকেট নেন তিনি। কিন্তু আর্থিক দুরবস্থার কারণে ক্রিকেট খেলা হয়নি তার। তিনি জানান, পরিবারে খরচ দিতে আমার একটা চাকরি দরকার ছিল। দেখলাম ক্রিকেট খেলে চাকরি পাওয়া যাবে না। তাই কর্মসংস্থানের জন্য অ্যাথলেট হওয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেই। এরপর ২০১৯ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে চাকরি হয় আমার।’

তিনি আরো বলেন, এখন আমি পরিবারকে সাহায্য করতে পারছি। প্রথমে মা-বাবা আমাকে খেলতে দিতে না চাইলেও এখন তারা খুব খুশি।

২০১৮ সালে খুলনার হয়ে জুনিয়র মিটে অংশ নিয়ে হাইজাম্পে স্বর্ণ জয়। ওই বছরই সামার মিটে আনসারের হয়ে ব্রোঞ্জ পদক গলায় তোলা। এই রেজাল্টের পর সেনাবাহিনীতে চাকরি হয় এসএসসি পাশ করা রিতুর।

শুক্রবার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে রিতু যে উচ্চতায় লাফিয়েছেন তা এসএ গেমসে রৌপ্য জয়ীর চেয়ে ভালো পারফরম্যান্স। সর্বশেষ এসএ গেমসে মহিলাদের হাইজাম্পে ১ দশমিক ৬৯ মিটার ছিল রৌপ্য জয়ীর পারফরম্যান্স। আর স্বর্ণ জয়ী ১ দশমিক ৭২ মিটার লাফান।

রিতু জানান, এখন আমার লক্ষ্য এসএ গেমসে স্বর্ণ জেতা।

রিতু যে তা পারবেন সেই আশাবাদ বিকেএসপির কোচ মেহেদী হাসানের। ৪ মাসের জন্য সেনাবাহিনীর জাম্প ইভেন্টের কোচের দায়িত্ব নেয়া মেহেদী বলেন, যদি সঠিক নিয়মে হাইজাম্পের তিন মেয়েকে উন্নত ট্রেনিং করানো যায় তাহলে আগামী এসএ গেমসে এই ইভেন্টে বাংলাদেশের স্বর্ণ বা রৌপ্য পাওয়ার উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে।



আরো সংবাদ


লিবীয় উপকূল থেকে দেড় শ’র বেশি অবৈধ অভিবাসী উদ্ধার এলডিসি থেকে উত্তরণের চূড়ান্ত সুপারিশ পেলো বাংলাদেশ দুই রাষ্ট্র এক জাতি : নাগরনো-কারাবাখ বিজয়ের স্মরণে স্মৃতিসৌধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে জানা যাবে বিকেলে হাইতিতে কারাগারে সহিংসতায় ২৫ জনের মৃত্যু চকরিয়ায় ১২ ঘণ্টার ২ সড়ক দুর্ঘটনা : ৪ জনের মৃত্যু, আহত ১০ নেইমারের সাথে নতুন চুক্তি নিয়ে আলোচনায় পিএসজি এরদোগানের ২০২০ গ্লোবাল মুসলিম পার্সোনালিটি অ্যাওয়ার্ড অর্জন বিদেশী নেতার সাথে দ্বিতীয় ‘ভার্চুয়াল’ সম্মেলন করতে যাচ্ছেন বাইডেন : হোয়াইট হাউস ডোমারে ভ্রাম্যমাণ আদালতে মাদকসেবীর ৭ দিনের জেল ঢাকা বারের সভাপতি আ’লীগের, সম্পাদক বিএনপি’র

সকল