০৯ এপ্রিল ২০২০

এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে লাভ হবে না : রাশিয়া

গণমাধ্যমের সাথে কথা বলছেন, রাশিয়ার অ্যান্টি-ডোপিং এজেন্সির (আরইউএসএডিএ)’র  প্রধান ইউরি গণুস - ছবি : সংগৃহীত

ডোপ কেলেঙ্কারির দায়ে অলিম্পিক ও বিশ্বকাপ ফুটবলসহ সব ধরনের আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা থেকে রাশিয়াকে ৪বছর নিষিদ্ধ করেছে বিশ্ব ডোপ বিরোধী সংস্থা ‘ওয়ার্ল্ড অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি’ (ডব্লিউএডিএ)।

এই নিষেধাজ্ঞার পর সংবাদ সম্মেলন করে এর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে রাশিয়ার অ্যান্টি-ডোপিং এজেন্সির (আরইউএসএডিএ)’র  প্রধান ইউরি গণুস। তিনি বলেছেন, ডব্লিউএডিএ রাশিয়াকে আপিলের জন্য ২১দিন সময় দিলেও তাতে কোনো সুফল আসবে বলে মনে হচ্ছে না। 
ইউরি গণুস বলেছেন, চার বছরের আন্তর্জাতিক ক্রীড়া নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে আপিল করেও জয়ের কোনো সম্ভাবনা নেই। এটি ডোপ টেস্টে প্রামাণিত ক্লিন অ্যাথলেটদের জন্য ট্রাজেডি ।
 
২০২০ সালের ইউরো কাপ, টোকিও অলিম্পিক গেমস-২০২২, ২০২২ সালের শীতকালীন বেইজিংয়ের অলিম্পিকসহ ২০২২ সালের কাতার বিশ্বকাপেও অংশ নিতে পারবে না রাশিয়ার প্রতিযোগীরা।
 
আরইউএসএডিএ’র প্রধান বলেছেন, নিষেধাজ্ঞার আবেদন করা হবে কিনা, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য রাশিয়ার অ্যান্টি-ডোপিং এজেন্সির তত্ত্বাবধায়ক বোর্ড ১৯ ডিসেম্বর বৈঠকে বসবে।
 
তিনি আরো বলেন, ‘এটি একটি ট্র্যাজেডি । এর দ্বারা ডোপ টেস্ট উত্তীর্ণ প্রতিযোগীরা অধিকার থেকে বঞ্চিত হবে।’
 
তিনি মনে করেন, অ্যাথলেটদের জন্য অনেক কষ্টদায়ক হবে এটি। চার বছর দীর্ঘ সময় ক্যারিয়ার থেকে চলে যাবে। সোমবার সুইজারল্যান্ডের লসানে এক সভায় ওয়াডার কার্যনির্বাহী কমিটি সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে রাশিয়ার উপর চার বছরের নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

তবে যে অ্যাথলেটরা ডোপিং কেলেঙ্কারীতে নিজেদের প্রমাণ করতে পারবেন, তারা নিরপেক্ষ পতাকার আদলে প্রতিযোগিতা করতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

২০১৫ সাল থেকে অ্যাথলেটিক্সে দেশ হিসেবে রাশিয়ার অংশ নেয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ার পাইওংচাংয়ে ২০১৮ সালের শীতকালীন অলিম্পিকে ১৬৮ জন রুশ অ্যাথলেট নিরপেক্ষ পতাকা নিয়ে অংশ নিয়েছিলেন। ২০১৪ সালে সোচিতে হওয়া আগের শীতকালীন অলিম্পিকে পদক তালিকার শীর্ষে ছিল রাশিয়ার অ্যাথলেটরা। এরপরই তাদের বিরুদ্ধে ডোপিংয়ের অভিযোগ ওঠে।

২০১৬ সালে রিও অলিম্পিকের আগে মস্কোর পরীক্ষাগারেই রাশিয়ার অ্যাথলেটদের ডোপিংয়ের প্রমাণ মেলে। এরপর তাদেরকে ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়।

মস্কোর বিরুদ্ধে মিথ্যা উপাত্ত দিয়ে গবেষণাগারের তথ্যে গড়মিল করার প্রমাণ মেলার পর এই শাস্তির সিদ্ধান্ত নিল ডব্লিউএডিএ। রুশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ডোপ টেস্টে পজিটিভ হওয়া অ্যাথলেটদের তথ্য মুছে দেয়ার প্রমাণ পেয়েছে সংস্থাটি।

ওয়ার্ল্ড অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি জানিয়েছে, নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে আবেদন করার জন্য রাশিয়া ২১ দিন সময় পাবে। যদি তারা আবেদন করে, তাহলে আবেদনটি পাঠানো হবে ক্রীড়ার সর্বোচ্চ আদালত ‘কোর্ট অব আরবিট্রেশন ফর স্পোর্টসে (সিএএস)’।

সূত্র : ফ্রান্স টুয়েন্টিফোর ডটকম


আরো সংবাদ