০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯, ৬ জিলহজ ১৪৪৩
`

মিয়ানমার ছাড়ছে টোটাল, শেভরন, শেল


একের পর এক বিদেশি কোম্পানি মিয়ানমার থেকে কার্যক্রম গুটিয়ে নেয়ার ঘোষণা দিচ্ছে৷ এবার সেই দলে যোগ দিয়েছে বিশ্বের জ্বালানি খাতের দুই বৃহৎ প্রতিষ্ঠান টোটাল ও শেভরন৷ শেলও জানিয়েছে আপাতত সেখানে আর কোনো কার্যক্রম চালাবে না৷

মিয়ানমারের সামরিক সরকারের অব্যাহত মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারণে ফরাসি প্রতিষ্ঠান টোটাল এনার্জিস ও যুক্তরাষ্ট্রের শেভরন দেশটিতে তাদের কার্যক্রম বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷

শুক্রবার এই ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠান দু’টি৷ দেশটির দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে ইয়াদানা গ্যাস প্রকল্পে আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথ বিনিয়োগে যুক্ত ছিল টোটাল ও শেভরন৷

প্রকল্প থেকে নিজেদের গুটিয়ে নেয়ার কারণ হিসেবে দু’টি প্রতিষ্ঠান মিয়ানমারের সামরিক সরকারের মানবাধিকার লঙ্ঘনের কথা উল্লেখ করেছে৷

টোটাল এনার্জিস তাদের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, ‘২০২১ সালের ফেব্রুয়ারির সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে মানবাধিকার, আইনের শাসনসহ মিয়ামারের পরিস্থিতির দিনকে দিন অবণতি হচ্ছে, যার কারণে আমরা পরিস্থিতি পুনঃমূল্যায়নে বাধ্য হয়েছি৷ আমরা মিয়ানমারের ইয়াদানা গ্যাস ক্ষেত্র এবং এমজিটিসি এর পরিচালনাকারী ও বিনিয়োগকারী হিসেবে টোটাল এনার্জিসের কোনো ক্ষতিপূরণ ছাড়াই চুক্তি থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়ার উদ্যোগ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছি৷

শেভরনের মুখপাত্র বলেছেন, মিয়ানমার পরিস্থিতি বিবেচনায় ইয়াদানা প্রাকৃতিক গ্যাস প্রকল্পে থেকে নিজেদের কার্যক্রম হস্তান্তরের মাধ্যমে দেশটি ছাড়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি৷

মিয়ানমারের এই প্রকল্পে সর্বোচ্চ ৩১.২৪ শতাংশের মালিক টোটাল৷ অন্যদিকে তাদের অংশীদার শেভরনের রয়েছে ২৮ শতাংশ মালিকানা৷ বাকিটা মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় কোম্পানির মালিকানাধীন৷

এদিকে রয়্যাল ডাচ শেলও মিয়ানমারে তাদের কার্যক্রম বন্ধের খবর শুক্রবার নিশ্চিত করেছে৷ সমুদ্রে একটি ব্লকে উডসাইড এনার্জি ও মিয়ানমার পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানির সাথে তাদের যৌথ বিনিয়োগ কার্যক্রম ছিল ৷

রয়টার্সকে প্রতিষ্ঠানের মুখপাত্র বলেন, অনুসন্ধান কাজ পরিত্যাক্ত অবস্থায় রয়েছে৷ যার কারণে কারণে এর সাথে কোনো উৎপাদন, আর বা সরকাররে সাথে আমাদের কোনো লেনদেনও নেই৷

বিদেশি কোম্পানির মিয়ানমার ছাড়ার হিড়িক
শুধু এই তিন প্রতিষ্ঠানই নয় একে একে প্রায় সব বিদেশি বৃহৎ কোম্পানিই মিয়ানমার থেকে তাদের বিনিয়োগ গুটিয়ে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে৷ এতে আরো বিপাকে পড়ছে দেশটির অর্থনীতি৷ হিউম্যান রাইটস ওয়াচের তথ্য অনুযায়ী, শুধু টোটাল ও শেভরনই ইয়াদানা গ্যাস প্রকল্পের আয় থেকে সরকারকে বছরে এক শ’ কোটি ডলারের বেশি দিত কর ও বিভিন্ন ফি হিসেবে, যা দেশটির বিদেশি মুদ্রা আয়ের এককভাবে সবচেয়ে বড় উৎস ছিল৷

জ্বালানি খাতে ফ্রান্সের বৃহৎ প্রতিষ্ঠান ইডিএফ দেশটিতে ১৫০ কোটি ডলারের একটি যৌথ বিনিয়োগের পানি বিদ্যুৎ প্রকল্পে জড়িত ছিল৷ তারা সেখান থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নিয়েছে৷ মিয়ানমার ছেড়েছে ফরাসি নবায়নযোগ্য জ্বালানি প্রতিষ্ঠান ভোল্টালিয়াও৷

মিয়ানমারে সবচেয়ে বড় টেলিকম সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের মালিক নরওয়ের টেলিনর৷ তারাও গত বছর দেশটিতে তাদের ব্যবসা বিক্রি করে দেয়ার ঘোষণা দেয়৷ চলতি সপ্তাহে একটি বার্মিজ ডিজিটাল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের কাছে তারা শেয়ার হস্তান্তর করবে৷

গত অক্টোবরেই ব্যবসা বন্ধ করে দিয়েছে তামাকজাত পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ব্রিটিশ অ্যামেরিকান টোবাকো৷ দেশটিতে তাদের কর্মী বহরে ছিল এক লাখেরও বেশি মানুষ৷

জাপানি প্রতিষ্ঠান টোয়োটার মিয়ানমারে গত বছরই একটি কারখানা চালু করার কথা ছিল৷ সেটি তারা স্থগিত করেছে৷ সামরিক সরকার ক্ষমতা দখলের পরপরই দুটি কারখানার কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে আরেব জাপানি গাড়ি নির্মাতা সুজুকি৷

সামরিক অভ্যুত্থানে ধাক্কায় গত কয়েক বছর ধরে ক্রমবর্ধিষ্ণু তৈরি পোশাক শিল্পও৷ ইটালির বেনেটনের মতো ব্র্যান্ডগুলো এখন তাদের কাছ থেকে পোশাক কেনা বন্ধ করে দিয়েছে৷

জাপানের পানীয় পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান কিরিন গত কয়েক মাস ধরেই মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর সাথে তাদের ব্যবসায়িক সম্পর্কের ইতি টানার চেষ্টা করে আসছে৷

ডেনিশ বহুজাতিক কোম্পানি কার্লসবের্গের প্রায় সাড়ে চার শ’ কর্মী আছে দেশটিতে৷ প্রতিষ্ঠানটি সেখানে কার্যক্রম সীমিত করার ঘোষণা দিয়েছে৷

সব মিলিয়ে এসব প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বন্ধে বিদেশি বিনিয়োগ, কর্মসংস্থান ও মিয়ানমারের সার্বিক অর্থনীতি আরো নাজুক পরিস্থিতিতে পড়ার শঙ্কা তৈরি হচ্ছে৷ যদিও সরকারের দাবি বিদেশি কোম্পানিগুলো কার্যক্রম গুটিয়ে নিলেও দেশটির অর্থনীতিতে তার বড় প্রভাব পড়বে না৷

সূত্র : ডয়চে ভেলে


আরো সংবাদ


premium cement