২৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৪ মাঘ ১৪২৮, ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩
`

হাইকোর্টের দ্বারস্থ সেই তুহিনারা, হিজাব পরায় বসতে পারবে না এসআই পরীক্ষায়ও!

হাইকোর্টের দ্বারস্থ সেই তুহিনারা, হিজাব পরায় বসতে পারবে না এসআই পরীক্ষায়ও! - ছবি : সংগৃহীত

তুহিনা খাতুন। মুর্শিদাবাদের বেলডাঙা থেকে সোমবার এই তরুণীটি কলকাতায় এসে সরাসরি হাজির হন হাইকোর্টে। ক্ষুব্ধ তুহিনা খাতুন বলেন, অ্যাডমিট কার্ড না দেয়ায় সম্প্রতি অনুষ্ঠিত কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নিতে পারিনি। আমি ও আমার মতো কয়েক শত মুসলিম মেয়ের ‘অপরাধ’ ছিল– আমরা ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী মাথা ওড়না দিয়ে আবৃত করে রেখেছিলাম। আমাদের মুখ সম্পূর্ণ অনাবৃত ছিল– যাতে পরিচয় বা চিনতে অসুবিধা না হয়। তাও ওয়েস্ট বেঙ্গল পুলিশ রিক্রুটমেন্ট বোর্ডের কর্মকর্তারা আমাদের অ্যাডমিট কার্ড ইস্যু করেননি। তাই আমরা বহু আবেদন-নিবেদন সত্ত্বেও পরীক্ষায় বসতে পারিনি। এ নিয়ে আরো কিছু বঞ্চিত তরুণী কলকাতা হাইকোর্টে ইতোমধ্যেই মামলা করেছেন। বিচারক আমাদের আবেদন উকিলের মাধ্যমে শুনেছেন। তিনি পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছেন ৬ জানুয়ারি।

তাহলে তুহিনা খাতুন আবার কেন হাইকোর্টে এসেছেন? এই সম্পর্কে তুহিনার বক্তব্য– আমি ও আমার মতো আরো বেশ কিছু তরুণী ওয়েস্ট বেঙ্গল পুলিশ রিক্রুটমেন্ট বোর্ডের সাব-ইন্সপেক্টর নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নিতে আবেদন করেছিলাম। ৫ ডিসেম্বর এই সাব-ইন্সপেক্টর নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। আমি এবং আমার মতো আরো বেশ কিছু সংখ্যালঘু তরুণী অবাক হয়ে দেখলাম– এবারো পুলিশ রিক্রুটমেন্ট বোর্ড আমাদের আবেদনপত্রের পাশে লিখে দিয়েছে ‘রিজেক্টেড’। কিন্তু কেন আমাদের আবেদনপত্র বাতিল করা হলো– তার কোনো ব্যাখ্যা নেই। খোঁজ করে জানতে পারলাম– কারণ সেই একই। আমাদের মুখ অনাবৃত থাকলেও মাথা ওড়না দিয়ে ঢাকা রয়েছে। এ সম্পর্কে পুলিশ রিক্রুটমেন্ট বোর্ডে ফোন করলে একজন বোর্ড সদস্য বলেন– নিয়ম অনুযায়ী প্রার্থীরা কেউই মস্তক আবৃত করতে পারবে না। আর এই জন্যই বেশ কিছু নারী প্রার্থীকে অ্যাডমিট কার্ড দেয়া হয়নি।

তিনি আরো বলেন, আমরা সাব-ইন্সপেক্টর পদের জন্য মাথা আবৃত করা কাউকে যদি অ্যাডমিট কার্ড দিয়ে পরীক্ষায় বসার অনুমতি দিই– তাহলে কনস্টেবল পরীক্ষায় যাদের বসতে দেয়া হয়নি তাদের মামলাটি জোরদার হবে। তাই সাব-ইন্সপেক্টর পদের পরীক্ষার জন্য মাথা আবৃত করা কাউকে অ্যাডমিট কার্ড দেয়া সম্ভব নয়। তুহিনা খাতুন জানান, তাই আমরা হাইকোর্টের কাছে আবেদন করার জন্য কলকাতায় এসেছি।

তুহিনা কেরল হাইকোর্টের রায়টির কথাও উল্লেখ করেন। নিট পরীক্ষায় হিজাব নিয়ে একই ধরনের পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে কেরল হাইকোর্ট রায় দেয়– জোর করে কারও ধর্মীয় বিশ্বাসে আঘাত দেয়া যাবে না। কিন্তু ওয়েস্ট বেঙ্গল পুলিশ রিক্রুটমেন্ট বোর্ড কেরল হাইকোর্টের রায়টিকেও মানছে না।

তুহিনা খাতুনের একজন অভিভাবক বলেন,পুলিশরাও তো মাথায় ক্যাপ পরে। উচ্চপদাধিকারিরা পরেন হ্যাট। তাদের গুরুদায়িত্ব পালনে তো কোনো অসুবিধা হয় না! শুধু শুধু মুসলিম মেয়েদের নিয়মের কথা তুলে কেন বঞ্চিত করা হচ্ছে? শিখদের ক্ষেত্রেও তো পাগড়ি পরা ও দাড়ি রাখার ছাড় রয়েছে।

অমুসলিম বুদ্ধিজীবীরা বলেছেন, সামান্য অজুহাতে মুসলিম মেয়েদের এভাবে বঞ্চিত করা উচিত নয়। বরং মুসলিম মেয়েদের আবেদনকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা উচিত। কারণ তারা পুরনো প্রথা ভেঙে পুলিশের চাকরিতে যোগ দিতে এগিয়ে আসছে। তাদের এভাবে নিরুৎসাহিত করা উচিত নয়।

তুহিনা বলেন, আমরা এখন অপেক্ষায় আছি– হাইকোর্ট ৫ ডিসেম্বর পরীক্ষার আগেই আবেদনটি গ্রহণ করে আমাদের অ্যাডমিট কার্ড দিতে পুলিশ বোর্ডকে নির্দেশ দেবে।

সূত্র : পুবের কলম


আরো সংবাদ


premium cement
আইসিবি এএমসিএল পেনশন হোল্ডারসথ ইউনিট ফান্ডের ১০ টাকা লভ্যাংশ ঘোষণা জুমার নামাজ শেষে মসজিদে দোয়ার আহ্বান হেফাজতের সাংবাদিক এমদাদুল হক খানের ওপর সন্ত্রাসী হামলা ইউক্রেন নিয়ে অবস্থান ব্যাখ্যা করল রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র দুবাইয়ে খেলবেন জোকোভিচ জাতীয় উশুতে এসএ গেমস স্কোয়াড বাছাই ইরাককে হারিয়ে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলার সুযোগ পেল ইরান পোশাক শিল্পে নারী শ্রমিকদের হার কমে যাওয়ার কারণ কী? কোটি ডলার ব্যয়ের উৎস বিএনপিকে ব্যাখ্যা করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী বিটকয়েন : ক্রিপ্টোকারেন্সি তৈরিতে যেভাবে খনি হয়ে উঠেছে কাজাখস্তান দেশের অধস্তন আদালত তদারকিতে ৮ বিচারপতির মনিটরিং কমিটি

সকল