০৪ এপ্রিল ২০২০

নতুন সরকার হচ্ছে মালয়েশিয়ায়

প্রতিশ্রুতি থেকে সরে গেছেন মাহাথির : ছিটকে পড়ছেন আনোয়ার
ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছেন আনোয়ার ইব্রাহিম, নতুন সরকার গঠন করছেন মাহাথির মোহাম্মদ। - ছবি : সংগৃহীত

মালয়েশিয়ায় মাহাথির মোহাম্মদের নেতৃত্বে নতুন সরকার গঠনের প্রক্রিয়া চলছে। ক্ষমতাসীন পাকাতান হারাপান সরকারের পরিবর্তে গতকাল রোববার সকাল থেকে বিরোধী দল মিলিয়ে নতুন এক জোট সরকার গঠনের কাজে বেশ অগ্রগতি হয়েছে। এ নিয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনার পর গতকাল ইস্তানা নেগ্রায় মালয়েশিয়ার রাজা আল-সুলতান আবদুল্লাহ রিয়াতউদ্দিন আল-মুস্তফা বিল্লাহ শাহের সাথে পাঁচ দলের প্রেসিডেন্ট এবং এক দলের ডেপুটি প্রেসিডেন্ট সাক্ষাতের জন্য যান। এখন নতুন সরকার গঠনের ঘোষণার অপেক্ষায় রয়েছেন সবাই। সর্বশেষ মাহাথির ও তার সহযোগী রাজনৈতিক দলগুলো তাদের ১২৩ জন পার্লামেন্ট সদস্যের নাম রাজার কাছে জমা দিয়েছেন। সরকার গঠনের জন্য কমপক্ষে ১১২ জন সদস্যের প্রয়োজন হয়।

নতুন প্রক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ পাকাতান হারাপান থেকে নিজের দল পিপিবিএমকে সরিয়ে নিয়ে পিকেআরের আজমিন গ্রুপ, পাস, উমনু এবং সাবাক-সারওয়াকের ক্ষমতাসীন আঞ্চলিক দলের সমন্বয়ে ‘পাকাতান ন্যাশনাল’ নামে নতুন এক জোট গঠন করতে যাচ্ছেন। ফলে ৯৫ বছর বয়সী মাহাথির পুরো পাঁচ বছর মেয়াদ ক্ষমতায় থাকতে পারবেন বলে আশা করছেন। নতুন এই মেরুকরণের ফলে কেবল মালয় দলগুলোই এখন দেশটির ক্ষমতায় থাকবে। আনোয়ার ইব্রাহিমের কাছে দুই বছর পর ক্ষমতা ছেড়ে দেয়ার ব্যাপারে যে চুক্তি এর আগে মাহাথির করেছিলেন এর মাধ্যমে তা থেকে তিনি নিজেকে সরিয়ে নিচ্ছেন।

এই প্রক্রিয়ার পর প্রধানমন্ত্রী মাহাথির বর্তমান মন্ত্রিসভা ভেঙে দিয়ে নতুন মন্ত্রিসভা গঠন করতে পারেন। এরপর সংসদে আস্থাভোটও আসতে পারে। এই আস্থা ভোটে মাহাথিরের দলের বাইরে আজমিনের পিকেআর গ্রুপ, পাস ও উমনু এবং সাবাহ সারওয়াকের ক্ষমতাসীন দলের সমর্থন আসতে পারে। নতুন দলগুলো নিয়ে পাকাতান ন্যাশনাল নামে জোট গঠন করা হতে পারে। নতুন মন্ত্রিসভায় কোন কোন দলের প্রতিনিধিত্ব থাকবে তা এ মুহূর্তে নিশ্চিতভাবে বলা না গেলেও ধারণা করা হচ্ছে, উমনু ও পাস এই মুহূর্তে সরাসরি মন্ত্রিত্ব নাও নিতে পারে।

মালয়েশিয়ায় আগামী কয়েক দিন অনেক রাজনৈতিক নাটক সম্ভবত ঘটতে যাচ্ছে। ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছেন আনোয়ারের পিকেআর, ডিএপি ও আমানাহ পার্টি। রাষ্ট্র পরিচালনায় অমালয়দের কোনো ভূমিকা আর থাকবে না। তবে মাহাথিরের পাল্টা কোনো পদক্ষেপ এই তিন দল নেবে কি না, তা এখনো স্পষ্ট নয়। মাহাথির ক্ষমতায় বসার দুই বছর পর প্রধানমন্ত্রিত্ব পাকাতান হারাপানের সবচেয়ে বড় অংশীদার পিকেআর প্রধান আনোয়ার ইব্রাহিমের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের যে চুক্তি করেছিলেন সেখান থেকে বেরিয়ে এসে বিরোধী পাস ও উমনুর সাথে হাত মিলিয়ে নতুন জোট সরকার গড়তে যাচ্ছেন। মাহাথিরের নতুন পদক্ষেপকে পাকাতান হারাপানের নেতাকর্মীরা বিশ্বাসঘাতকতা হিসেবে চিহ্নিত করছেন।

শনিবার রাত থেকে মাহাথিরের দলের বৈঠকের মধ্য দিয়ে নতুন রাজনৈতিক জোট গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়। গতকাল বেশ কয়েকটি দলের সভা অনুষ্ঠিত হয়। পিকেআর ডেপুটি প্রেসিডেন্ট আজমিন আলীর অনুগত সংসদ সদস্যরা পেটালিং জয়ার শেরাটন হোটেল সামনে জড়ো হয়ে সভায় মিলিত হন। শেরাটন হোটেলে পিকেআর এমপিরা হলেন জুরাইদা কামারউদ্দিন (আমপাং), সাইফুদ্দিন আবদুল্লাহ (টেমরলাহ), রশিদ হাসন (বাটু পাহাট), মারিয়া চিন আবদুল্লাহ (পেটালিং জয়া), উইলি মংগিন (বোর্নিও পিক) এবং আর সান্থার কুমার (সেগামাত)। কুয়ালালামপুরের রিটজ কার্লটনে গতকাল বিকেলে সরওয়াক পার্টির নেতাকর্মী ও সংসদ সদস্যদের বৈঠক হয়। মাহাথিরকে পূর্ণ মেয়াদে ক্ষমতায় রাখার জন্য সংসদে আগামী ৯ মার্চ তার পক্ষে এক আস্থা ভোট প্রস্তাব উত্থাপনের কথা উঠেছে।

এ দিকে আনোয়ারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর না করে নতুন রাজনৈতিক মেরুকরণের খবর আসছিল বেশ কিছু দিন ধরে। গত শুক্রবার পাকাতান হারাপানের সর্বোচ্চ সভার বৈঠকে ক্ষমতা হস্তান্তরের নির্দিষ্ট তারিখ ঘোষণা করা এবং মাহাথিরের আগের চুক্তি বাদ দিয়ে পাঁচ বছর ক্ষমতা থাকা নিয়ে প্রাথমিকভাবে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত হয় যে, নভেম্বরে এপেকের সম্মেলনের পরে মাহাথির ক্ষমতা আনোয়ারের হাতে সমর্পণ করবেন। তবে কবে ক্ষমতা ছাড়বেন সেটি মাহাথির ঠিক করবেন।

অবশ্য মাহাথির মোহাম্মদের সর্বশেষ কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা আগে থেকেই সতর্কবাণী উচ্চারণ করে আসছিলেন। তাদের ধারণা, মাহাথির মৃত্যুর আগে আরেকবার ডিগবাজি খাবেন এবং আনোয়ারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর না করে ভিন্ন পথ অবলম্বন করবেন। এ ব্যাপারে দেশটির শীর্ষ ব্লগার রাজা পেত্রা কামারুদ্দিন তার মালয়েশিয়া টুডেতে লিখেছেন, ‘মাহাথির এই বছরের মে মাসে প্রধানমন্ত্রিত্ব ছাড়বেন না। তিনি যতক্ষণ থাকতে চান ততক্ষণ থাকবেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত যখন তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন তখন এর অর্থ এই নয় যে আনোয়ারের হাতে তিনি দায়িত্ব দেবেন। আমরা এটি আগেও বলেছি এবং আবার বলব আনোয়ার যদি পিএম ৮ হতে চান তবে তাকে বাধ্য করেই দায়িত্ব নিতে হবে। যদি তিনি বসে বসে অপেক্ষা করতে চান এবং প্রত্যাশা করেন যে, এই পদটি তাকে রুপোর থালায় এনে দেয়া হবে, তবে তিনি চিরকাল অপেক্ষা করবেন, ঠিক তেংগু রাজালিঘ হামজা-কু লিকে যেভাবে অপেক্ষা করে করে সময় পার করতে হয়েছিল।’

মালয়েশিয়ার রাজার সাথে গতকাল যারা সাক্ষাৎ করছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন, পিকেআর এর ডেপুটি প্রেসিডেন্ট দাতুক সেরি আজমিন আলী, উমনুর প্রেসিডেন্ট দাতুক সেরি ড. আহমদ জাহিদ হামিদি ও পাস প্রেসিডেন্ট দাতুক সেরি আবদুল হাদি আভাং। এর বাইরে ইস্তানা নেগারাতে আরো দেখা গেছে পার্টি ওয়ারিশান সাবাহর সভাপতি এবং সাবাহর মুখ্যমন্ত্রী দাতুক সেরি শাফি আপডাল, জিপিএস সভাপতি এবং সারাওয়াকের মুখ্যমন্ত্রী দাতুক প্যাটিংগি অ্যাবাং জোহারি টুন ওপেনগ। তারা নতুন একটি জোট সরকার গঠনের ব্যাপারে রাজার অনুমতি চাইবেন বলে মনে করা হচ্ছে। এর আগে এসব দল তাদের নিজস্ব ফোরামের সভা করে একটি নতুন সরকার গঠনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।


আরো সংবাদ

আত্মহত্যার আগে মায়ের কাছে স্কুলছাত্রীর আবেগঘন চিঠি (১৩৫৩০)সিসিকের খাদ্য ফান্ডে খালেদা জিয়ার অনুদান (১২৬০৬)করোনা নিয়ে উদ্বিগ্ন খালেদা জিয়া, শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল (৯৩১৫)ভারতে তাবলিগিদের 'মানবতার শত্রু ' অভিহিত করে জাতীয় নিরাপত্তা আইন প্রয়োগ (৮৪৯০)করোনায় নিশ্চিহ্ন হয়ে গেল ইতালির একটি পরিবার (৭৮৬৪)করোনার মধ্যেও ইরান-যুক্তরাষ্ট্র আরেক যুদ্ধ (৭১৪০)করোনায় আটকে গেছে সাড়ে চার লাখ শিক্ষকের বেতন (৬৯৩১)ইসরাইলে গোঁড়া ইহুদির শহরে সবচেয়ে বেশি করোনার সংক্রমণ (৬৮৯০)ঢাকায় টিভি সাংবাদিক আক্রান্ত, একই চ্যানেলের ৪৭ জন কোয়ারান্টাইনে (৬৭৬১)করোনাভাইরাস ভয় : ইতালিতে প্রেমিকাকে হত্যা করল প্রেমিক (৬২৯৬)