০১ এপ্রিল ২০২০

সংক্রমণ ঝুঁকি থাকলেও করোনায় মৃত্যু ঝুঁকি কম

সংক্রমণ ঝুঁকি থাকলেও করোনায় মৃত্যু ঝুঁকি কম - ছবি : সংগৃহীত

চীনের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ৪৪ হাজারের বেশি কোভিড-১৯আক্রান্ত ব্যক্তির বিস্তারিত নিয়ে একটি জরিপের ফল প্রকাশ করেছে, বলা হচ্ছে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পর এটাই এই রোগ নিয়ে বৃহত্তম জরিপ।

চীনের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেন্টেশন এর তথ্যে বলা হচ্ছে, ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রেই রোগী স্বল্প ঝুঁকিতে আছেন। যারা বেশি ঝুঁকিতে, তাদের মধ্যে বয়স্ক ও অন্যান্য রোগে অসুস্থ থাকা ব্যক্তিরা রয়েছেন।

গবেষণা আরো বলছে মেডিকেল কর্মকর্তা যারা রয়েছেন তারা বেশি ঝুঁকিতে আছেন। মঙ্গলবার উহানের একটা হাসপাতালের পরিচালক মারা গেলে মেডিকেল কর্মকর্তারা যে কতটা ঝুঁকিতে রয়েছেন সেটা আবারো আলোচনায় আসে। ৫১ বছর বয়সী লিউ ঝিমিং ছিলেন উহানের সবচেয়ে ভালো হাসপাতালগুলোর একটির পরিচালক। এ পর্যন্ত যে কয়জন স্বাস্থ্য কর্মী মারা গেছেন লিউ ঝিমিং তাদের মধ্যে সবচেয়ে সিনিয়র স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। হুবেই প্রদেশের উহান শহরটি দেশটির মধ্যে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত হওয়া একটা শহর।

সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেন্টেশন বা সিসিডিসি এর প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে এই প্রদেশে মৃত্যুহার ২ দশমিক ৯ শতাংশ। যেখানে সারা দেশে এই হার শূন্য দশমিক চার শতাংশ।

প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে সব মিলিয়ে কোভিড-১৯ ভাইরাসে মৃত্যুহার ২ দশমিক ৩ শতাংশ।

মঙ্গলবার চীনের প্রকাশ করা সবশেষ তথ্যে দেখা যাচ্ছে সেখানে মৃতের সংখ্যা ১ হাজার ৮৬৮ জন এবং ৭২ হাজার ৪৩৬ সংক্রমিত হয়েছে। চীনের কর্তৃপক্ষ বলছে ১২ হাজারের বেশি মানুষ সেরে উঠেছে।

গবেষণা থেকে কী জানা যাচ্ছে?
সিসিডিসি এই প্রতিবেদন সোমবার প্রকাশ করে এবং চাইনিজ জার্নাল এপিডেমিওলোজি তে প্রকাশ করা হয়। ওই প্রতিবেদনে চীনে ১১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কোভিড-১৯ এ ৭২ হাজার ৩১৪ টা কেস যেগুলো পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে একেবারে নিশ্চিত, সন্দেহজনক এবং যেগুলোর কোন লক্ষ্মণ ধরা পড়েনি। ভাইরাস সম্পর্কে আগের বর্ণনা, সংক্রমণের ধরন এর সব ফলাফল বৃহৎ আকারে নিশ্চিত করা হয়েছে।

তার মধ্যে কিছু কিছু সারসংক্ষেপ এমন:

৮০ দশমিক নয় শতাংশ সংক্রমণ নমনীয় মাত্রার, ১৩ দশমিক আট শতাংশ তীব্র, ৪ দশমিক সাত শতাংশ সংকটপূর্ণ। সবচেয়ে ঝুঁকিতে ৮০ বছর বা তারচেয়ে বেশি বয়সী। এদের সংখ্যা ১৪ দশমিক আট শতাংশ। ৯ বছর বয়স থেকে ৩৯ বছর পর্যন্ত কোন ঝুঁকি নেই। মৃত্যুর হার ও অনেক কম, শূন্য দশমিক দুই শতাংশ। এরপরের এজ গ্রুপ বা বয়সভিত্তিকভাবে শঙ্কা বাড়ছে। যেমন ৪০ বছরে শূন্য দশমিক চার শতাংশ, ৫০ বছরে এক দশমিক তিন শতাংশ, ৬০ বছরে তিন দশমিক ছয় শতাংশ এবং ৭০ বছরে এটা আট শতাংশ।

নারী পুরুষ হিসেব করলে পুরুষরা নারীদের চেয়ে বেশি মারা যাচ্ছে। নারী-১ দশমিক ৭ শতাংশ, পুরুষ-দুই দশমিক আট শতাংশ।
যাদের আগে থেকেই হৃদযন্ত্রের সমস্যা, ডায়াবেটিস,শ্বাসতন্ত্রের অসুখ এবং উচ্চ-রক্তচাপ রয়েছে তারা এই ভাইরাসে সহজেই সংক্রমিত হতে পারে। সূত্র : বিবিসি

 

 

 


আরো সংবাদ

করোনারোগীদের চিকিৎসায় ছয়টি জরুরী সেবা দিবে রোবট করোনা চিকিৎসায় প্রস্তুত ১১ হাজার চিকিৎসক চুয়াডাঙ্গায় সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেছে করোনা আক্রান্ত যুবক কুষ্টিয়ায় ক্রিকেট খেলা নিয়ে সংঘর্ষে দুই ভাই নিহত তাহিরপুরে বিলুপ্ত প্রজাতির বানর উদ্ধার করোনার বিপক্ষে জিতবে বাংলাদেশ তথ্যমন্ত্রী’র ব্যক্তিগত উদ্যোগে রাঙ্গুনিয়ার দরিদ্র পরিবারে ত্রাণ বিতরণ গাজীপুরে কোয়ারেন্টিন থেকে বাড়ি ফিরছেন আরো ৭ ইতালি প্রবাসী করোনাভাইরাস নিয়ে অপপ্রচার, বিশ্বনেতাদের পোস্ট ডিলিট করছে ফেসবুক-টুইটার করোনাভাইরাস : ইউরোপের বৃদ্ধাশ্রমগুলোতে কফিনের মিছিল যেন থামছেই না করোনার পিকটাইম মোকাবেলায় সরকারের কৌশল কী

সকল