০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`
বঙ্গবন্ধুর সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনীর কর্মকাণ্ড ও সাফল্যগাঁথা জানতে পড়তে পারেন যে বই

বুক রিভিউ : ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনী’

বুক রিভিউ-বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-দর্শন-সশস্ত্র বাহিনী
বঙ্গবন্ধুর সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনীর কর্মকাণ্ড ও সাফল্যগাঁথা জানতে পড়তে পারেন যে বই - ছবি সংগৃহীত

চলতি বছর পূর্ণ হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। একইসঙ্গে ৫০ বছরে পদার্পণ করে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর)। এ দুটি বিশেষ উপলক্ষকে সামনে রেখে আইএসপিআর থেকে প্রকাশিত হয় ইতিহাসমৃদ্ধ বই ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনী’।

আইএসপিআরের পরিচালক লে. কর্নেল আবদুল্লাহ ইবনে জায়েদ সম্পাদিত এই বইতে দেশের বিশিষ্ট চিন্তক, প্রাবন্ধিক ও গবেষকদের বিশ্লেষণধর্মী ১৮টি লেখা ও বিশেষ কিছু আলোকচিত্র স্থান পেয়েছে। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপি কর্তৃক রচিত ‘বঙ্গবন্ধু ও তাঁর সেনাবাহিনী’ শীর্ষক একটি গুরুত্বপূর্ণ লেখা স্থান পাওয়ায় বইটির মর্যাদা বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে।

‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনী’ একটি তথ্যবহুল বই, যেখানে নানা বিশ্লেষণে, নানা আঙ্গিকে এবং নানা পর্যালোচনায় ওঠে এসেছে বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরে জন্ম নেওয়া দেশের সশস্ত্র বাহিনীর জন্ম, গঠন, ইতিহাস এবং তৎপরবর্তীকালে এর গৌরবোজ্জ্বল সাফল্যগাঁথা।

বিভিন্ন জাতির লড়াই-সংগ্রামের ইতিহাসে দেখা যায়, একটি জাতির সামরিক সক্ষমতা ও প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কতটা শক্তিশালী, সফল বা কার্যকর তার অনেকটাই নির্ভর করে সে দেশের রাষ্ট্রনায়কদের সমর দর্শন এবং দূরদৃষ্টির ওপর। স্বাধীনতার পরপরই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে সুসংহত করতে উল্লেখযোগ্য বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭৪ সালের প্রতিরক্ষা নীতি প্রণয়ন করেন, সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীকে সুসংগঠিত করেন, যুগোপযোগী অস্ত্র সরঞ্জাম ক্রয়ের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

স্বাধীনতা অর্জনের পরপরই বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষা ও দেশ পুনর্গঠনের দিকে গভীরভাবে নজর দেন। বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালের ৭ এপ্রিল এক সরকারি আদেশে মুক্তিযুদ্ধকালীন সাংগঠনিক কাঠামো ‘বাংলাদেশ ফোর্সেস’ ভেঙে স্বতন্ত্রভাবে বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনী গড়ার নির্দেশ দেন এবং দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের সীমিত সম্পদ নিয়েই দক্ষ ও চৌকস সেনাবাহিনী গঠনের কাজ শুরু করেন।

বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া আমাদের সশস্ত্র বাহিনী আজ দেশের সীমানা পেরিয়ে বিশ্বশান্তি রক্ষায় আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ও নিজেদের অসামান্য দক্ষতা ও পেশাদারিত্বের স্বাক্ষর রাখছে। বঙ্গবন্ধুর সমর দর্শন, দূরদর্শিতা, মহান আদর্শের ধারাবাহিকতায় তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় দেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রার সাথে তাল মিলিয়ে সশস্ত্র বাহিনী একটি আধুনিক ও যুগোপযোগী বাহিনী হিসেবে ক্রমব্যাপ্তি লাভ করে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে তার সমর দর্শন ও তার হাতে তৈরি দেশপ্রেমিক সশস্ত্র বাহিনীর বিগত ৫০ বছরে নানা কর্মকা- ও সাফল্যগাঁথা জনমানুষের সুন্দরভাবে তুলে ধরে ধরার উদ্দেশ্যেই আইএসপিআরের উদ্যোগে প্রকাশিত হয় ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনী’ বইটি।

বইটি পড়ে পাঠক বঙ্গবন্ধুর ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের পর থেকে মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা সংগ্রাম, বিজয় দিবস এবং পরবর্তী তিন বছর তার শাসনামলে সমর দর্শন ও স্বাধীন বাংলাদেশে সশস্ত্র বাহিনী কীভাবে গঠিত হয় ও বাহিনীগুলোর আধুনিকায়ন সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ১৯ জুলাই আনুষ্ঠানিকভাবে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনী’ বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল, এনডিসি।


বইয়ের নাম : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমর দর্শন ও সশস্ত্র বাহিনী
প্রকাশক : আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর)
প্রকাশকাল : জুলাই ২০২১
পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৬৮
প্রচ্ছদ মূল্য : ৫০০ টাকা
প্রেস বিজ্ঞপ্তি


আরো সংবাদ


premium cement