১৫ জুলাই ২০২০

এক মাসেই ব্রাজিলের দ্বিতীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ

করোনা মহামারিতে ব্রাজিলে মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় ১৪ হাজার ছাড়িয়েছে। আর এই পরিস্থিতিতে ব্রাজিলে মাত্র এক মাসের মধ্যেই পদত্যাগ করেছেন দ্বিতীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী। শুক্রবার সকালে দেশটির সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রী নেলসন টেইচ এক হোয়াটস অ্যাপ বার্তার মাধ্যমে তার পদত্যাগের বিষয়টি জানিয়েছেন।

এর আগে গত ১৬ এপ্রিল দেশটির প্রেসিডেন্ট জায়ের বলসোনারো সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী লুইজ মান্ডেটাকে বরখাস্ত করেছিলেন। আর তারপরই বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী টেইচের পদত্যাগে শঙ্কা প্রকাশ করছে চিকিৎসকরা।

ইয়েল স্কুল অফ মেডিসিনের মহামারি বিষয়ক এক অধ্যাপক অ্যালবার্ট কো বলেছেন, 'নেতৃত্বের অভাব ও দুর্বল প্রশাসন' ব্রাজিলে বর্তমান করোনা পরিস্থিতির জন্য দায়ী।

লকডাউন নিয়ে দেশটির প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিরোধের জেরেই নেলসন টেইচ পদত্যাগ করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মহামারি সংক্রমণের চরম অবস্থায় জিম ও বিউটি পার্লার খোলার অনুমতি দেন প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো। এতে হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন নেলসন টেইচ। তিনি প্রেসিডেন্টের এমন সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচনা করেন।

এর আগে ব্রাজিলে করোনা রোগীদের জন্য ‘হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন’ ওষুধ বড় পরিসরে ব্যবহারে প্রেসিডেন্টের বিরোধিতা করেছিলেন টেইচ।

সে সময় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে একমত হয়ে তিনি জানিয়েছিলেন করোনা রোগীর বেলায় এ ওষুধের কার্যকর প্রমাণ নেই।

যদিও পদত্যাগের বিষয়ে কোনো কারণ উল্লেখ করেননি নেলসন টেইচ। শুক্রবার এক বিবৃতিতে তিনি শুধু তার সিদ্ধান্তটি জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসকে ‘সামান্য ফ্লু’ বলে মন্তব্য করায় সমালোচিত প্রেসিডেন্ট বোলসোনারো এখনো ভাইরাসটিকে দমনের ব্যাপারে সচেতন নয় বলে অনেকের অভিযোগ।

প্রসঙ্গত, লাতিন আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে করোনায় সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত ব্রাজিল। আক্রান্তের তালিকায় ৬ষ্ঠ অবস্থানে আছে দেশটি।

আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারের দেয়া সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ২০ হাজারের বেশি মানুষ। এ পর্যন্ত প্রায় ১৪ হাজার ৯৬২ মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে।

সূত্র : দ্যা গার্ডিয়ান


আরো সংবাদ