০৩ অক্টোবর ২০২৩, ১৮ আশ্বিন ১৪৩০, ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৫ হিজরি
`

আলোচনা ভেঙে যাওয়ার পর খার্তুমে সুদানের বাহিনীগুলোর মধ্যে সংঘর্ষ

আলোচনা ভেঙে যাওয়ার পর খার্তুমে সুদানের বাহিনীগুলোর মধ্যে সংঘর্ষ - ছবি : সংগৃহীত

যুদ্ধবিরতি বজায় রাখা এবং মানবিক সঙ্কট দূর করার লক্ষ্যে চলমান আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার পর, সুদানের যুদ্ধরত পক্ষগুলো রাজধানীতে রাতভর এবং শুক্রবার সকালে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। আর এই সংঘর্ষ যুক্তরাষ্ট্রকে নিষেধাজ্ঞা আরোপের দিকে চালিত করে।

সেনাবাহিনী এবং র‌্যাপিড সাপোর্ট ফোর্স (আরএসএফ) -এর মধ্যকার সাত সপ্তাহের যুদ্ধে খার্তুমের কেন্দ্রাঞ্চলের কিছু এলাকা ধ্বংস হয়ে গেছে। এই সংঘাত ব্যাপক অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করে তোলার হুমকিতে ঠেলে দিয়েছে। সুদানের অভ্যন্তরে ১২ লাখ মানুষকে বাস্তুচ্যুত করেছে এবং আরো ৪ লাখ মানুষকে প্রতিবেশী দেশে পালিয়ে যেতে বাধ্য করেছে।

যুক্তরাষ্ট্র এবং সৌদি আরব বৃহস্পতিবার তাদের মধ্যস্থতায় হওয়া যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের পর; দেশ দুটি এ বিষয়ে চলমান আলোচনা স্থগিত করেছে। যুক্তরাষ্ট্র এবং সৌদি আরব, যুদ্ধরত দুই পক্ষের বিরুদ্ধে বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং হাসপাতাল দখল, বিমান হামলা ও আক্রমণ চালানো এবং সামরিক বাহিনীর ওপর আরোপিত চলাচল নিষেধাজ্ঞা অমান্য করার অভিযোগ করেছে।

সুদানের দীর্ঘদিনের শাসক ওমর আল-বশিরকে ২০১৯ সালে উৎখাত করার পর থেকে, দেশটির সরকার পরিচালনা করছিল সেনাপ্রধান আবদেল-ফাত্তাহ আল-বুরহানের নেতৃত্বাধীন একটি সার্বভৌম কাউন্সিল। তিনিই -এর নেতৃত্বে রয়েছেন। আর, হেমেদতি নামে পরিচিত আরএসএফ প্রধান মোহাম্মদ হামদান দাগালো ছিলেন তার ডেপুটি।

জাতিসঙ্ঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি এবং শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর বলেছে, ক্রমাগত লুটপাট, সুদানের নাগরিকদের সাহায্য করার জন্য তাদের প্রচেষ্টাকে ব্যাহত করছে। তারা সকল পক্ষের প্রতি ত্রাণ কার্যক্রমকে সম্মান জানানোর আহ্বান জানিয়েছে।

ডব্লিউএফপি বলেছে, যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে তারা ৬ কোটি ডলারের বেশি ক্ষতি নথিভুক্ত করেছে। ইউএনএইচসিআর বলেছে, খার্তুমে তাদের দুটি কার্যালয়ে লুটপাট করা হয়েছে এবং বৃহস্পতিবার এল ওবেইদ-এ গুদাম লক্ষ্য করে হামলা চালানো হয়েছে।
সূত্র : ভয়েস অব আমেরিকা


আরো সংবাদ



premium cement