০৫ ডিসেম্বর ২০২০

যেভাবে পুলিশি নিপীড়ন নিয়ে বিক্ষোভ চিরতরে বদলেছে নাইজেরিয়াকে


নাইজেরিয়ায় পুলিশের নিপীড়ন-নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনরোস এমন এক জোরালো আন্দোলন তৈরি করেছে যা সরকারের ক্ষমতার ভীত নড়িয়ে দিয়েছে।

কিন্তু দু সপ্তাহ ধরে চলা প্রবল এই জনরোষের পরিণতি কি? বিশ্লেষণ করেছেন বিবিসির হাউসা ভাষা বিভাগের সম্পাদক আলিউ টানকো।

পুলিশের নিপীড়িনের বিরুদ্ধে রাস্তায় বিক্ষোভ এবং সেইসাথে সোশাল মিডিয়ায় সমান্তরাল আন্দোলনে তরুণ প্রজন্ম যেভাবে সম্পৃক্ত হয়েছে তা আফ্রিকার সবচেয়ে জনবহুল এই দেশে নজিরবিহীন।

ক্ষমতাসীনদের আচরণ বিনাবাক্যে মেনে নেওয়ার প্রচলিত সংস্কৃতি ভেঙ্গে পড়েছে নাইজেরিয়ায়।

ডাকাতি-রাহাজানি বন্ধে সৃষ্ট সার্স নামে পুলিশের বিশেষ বাহিনীকে ভেঙ্গে দেওয়ার দাবিতে এই আন্দোলনে গতকাল পর্যন্ত সরকারি হিসাবেই মারা গেছে ৬৯ জন।

‘#এন্ড সার্স‘ (সার্স ভেঙ্গে দাও) হ্যাশট্যাগ যেমনি সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে, সেইসাথে ক্ষমতাসীনদের কর্তৃত্ব-নির্দেশে বুড়ো আঙ্গুল দেখানোর সাহস আগুনের মত ছড়িয়ে পড়েছে নাইজেরিয়ায়।

রাজধানী লেগোসের অত্যন্ত সম্মানিত রাজার (নাইজেরীয় ভাষায় ‘ওবা') প্রাসাদ ভাঙচুরকে জনরোষের একটি মাপকাঠি হিসাবে দেখা হচ্ছে। আলঙ্কারিক হলেও লেগোসের ওবা বা রাজা এবং তার প্রাসাদ নাইজেরিয়দের কাছে বহু যুগ ধরে অত্যন্ত সম্মানের। তরুণ-যুবকরা সেই প্রাসাদে ঢুকে রাজার সিংহাসন উপড়ে ফেলে তছনছ করেছে। রাজার জিনিসপত্র লুট করেছে, এবং প্রাসাদের পুকুরে তারা সাঁতার কেটেছে।

পুলিশের বিতর্কিত এবং ঘৃণিত একটি বিশেষ স্কোয়াড ভেঙ্গে দেওয়ার দাবিতে শুরু হয়েছিল যে বিক্ষোভ, তা এখন নাইজেরিয়ার ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে ক্ষোভে রূপ নিয়েছে। নাইজেরীয় তরুণ প্রজন্ম এখন রাষ্ট্রের ক্ষমতার কাঠামোর প্রাতিষ্ঠানিক পরিবর্তন চাইছে।

‘বারুদের ডিপো‘
আফ্রিকার সবচেয়ে জনবহুল দেশের তরুণ প্রজন্ম সম্পর্কে সাবেক প্রেসিডেন্ট ওলুসেগুন ওবাসাঞ্জো ২০১৭ সালে মন্তব্য করেছিলেন, “আমরা একটি বারুদের ডিপোর ওপর বসে রয়েছি।''

নাইজেরিয়ার ২০ কোটি জনসংখ্যার ৬০ শতাংশেরও বেশি লোকের বয়স ২৪ এর নিচে। কিন্তু কর্মক্ষম এই বিশাল জনগোষ্ঠীর অধিকাংশেরই স্থায়ী কোনো কর্মসংস্থান নেই। উন্নতমানের শিক্ষার সুযোগ সীমিত। এ বছর সরকারের দেওয়া পরিসংখ্যানই বলছে নাইজেরিয়ার ৪০ শতাংশ মানুষ দারিদ্রসীমার নিচে বসবাস করছে।

নাইজেরীয় লেখক এবং অধিকার আন্দোলনকারী গিম্বা কাকান্ডা বলেন, ক্ষমতাসীনরা শুরুর দিকে এই বিক্ষোভকে তরুণ-যুবকদের স্বাভাবিক আবেগের বিশৃঙ্খল বহিঃপ্রকাশ হিসাবে দেখছিল।

“তারা (ক্ষমতাসীনরা) #এন্ড সার্স বিক্ষোভকে নেহাতই তারুণ্যের একটা স্বাভাবিক আচরণ হিসাবে দেখছিল। তারা ভাবছিল যে পাত্তা না দিলে এটি এমনিতেই একসময় বন্ধ হয়ে যাবে,“ বলেন তিনি।

“এই মনোভাবের কারণে রাজনীতিকরা শুরুতে এই আন্দোলনকে অবজ্ঞা করেছে, কিন্তু এখন তারা প্রায় খাদের কিনারে এসে দাঁড়িয়েছে।“

এই আন্দোলন এখন কোন দিকে মোড় নেবে?
বিক্ষোভের চাপে যেভাবে সরকার সার্স ভেঙ্গে দেওয়ার এবং পুলিশের সংস্কারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, তা নাইজেরিয়ার তরুণদের মধ্যে আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে যে তারা পরিবর্তন আনতে সক্ষম।

বিক্ষোভ শুরুর কয়েকদিনের মধ্যে আন্দোলনকারীরা নিজেদের মধ্যে শক্ত নেটওয়ার্ক গড়ে তোলে। জরুরি ভিত্তিতে একে অন্যের সাহায্যে যাতে ছুটে যেতে পারে, তার জন্য তারা একটি হেল্প-লাইন প্রতিষ্ঠা করতে তারা সক্ষম হয়। আইনি সহায়তার ব্যবস্থা শুরু হয়। এমনকি একটি রেডিও স্টেশনও তারা চালু করে।

মানুষজন স্বতঃস্ফূর্ত হয়ে এসব কাজে পয়সা জুগিয়েছে। এ ধরনের সাড়া এবং অংশগ্রহণকে উদাহরণ হিসাবে তুলে ধরা হচ্ছে যে ''অসৎ রাজনীতিকদের খপ্পর থেকে বাঁচলে নাইজেরিয়া কত ভালো দেশ হতে পারে।''

রাজনীতিকদের ভাবমূর্তি সেদেশে খুবই খারাপ। মানুষজন মনে করে তারা দেশের উন্নতির চেয়ে নিজেদের পকেট ভর্তির ফন্দিতে ব্যস্ত থাকেন।

তবে এই আন্দোলনের একটি কুৎসিত দিকও সামনে হাজির হয়েছে।

সিংহভাগ তরুণ আন্দোলনকে শান্তিপূর্ণ রাখতে চাইলেও, একটি অংশ এটিকে সুযোগ হিসাবে দেখেছে। এই অংশটি দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর করেছে, লুটপাট করেছে। গুদামে হামলা চালিয়েছে এবং অনেক পরিচিত রাজনীতিকের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে টার্গেট করেছে।

তবে আন্দোলনের শরিক দুই পক্ষের ক্ষোভ প্রকাশের ধরণ দু-রকম হলেও, একটি বিষয়ে তারা একমত, ক্ষমতাসীনদের প্রতি অনাস্থা-অবিশ্বাস-ক্ষোভ।

‘বুহারি বুঝতে পারেননি‘
তবে সরকার এটা নিয়ে সচেতন যে দারিদ্র এবং বেকারত্ব জাতীয় নিরাপত্তার জন্য বড় হুমকি, বলছেন লেখক এবং অধিকার কর্মী কাকান্ডা। ''সরকারের মধ্যে বোধোদয় হচ্ছে যে সবকিছু আগের মত আর চলতে পারে না।''

কিন্তু তারপরও এই ক্ষোভ দমনে সরকার একের পর এক যেসব পদক্ষেপ নিচ্ছে, তাতে তাদের উদ্দেশ্য নিয়ে সন্দেহ তৈরি হচ্ছে।

ব্লগার এবং কলামিস্ট জাফেত ওমোজুয়া বলেন, বৃহস্পতিবার প্রেসিডেন্ট মুহামাদু বুহারি জাতির উদ্দেশ্যে যে ভাষণ দিয়েছেন তাতে এই আন্দোলনের কারণ এবং সরকারের করণীয় সম্পর্কে তার ''অস্পষ্ট ধারণা'' প্রতিফলিত হয়েছে।

বুহারি বিক্ষোভ বন্ধ করে সংলাপে বসার আহ্বান জানিয়েছেন “কিন্তু ন্যায়বিচার চাওয়ার জন্য তিনি মানুষকে হুমকি দিয়েছেন।''

তারপরও ওমাজুয়া বিশ্বাস করেন, #এন্ডসার্স আন্দোলনে কিছু অর্জন হবেই। তার মতে - ক্ষমতা বদলের লক্ষ্যে মনোনিবেশ না করে, আন্দোলনকারীদের এখন উচিৎ পুলিশের সংস্কার এবং অপরাধী পুলিশ সদস্যদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানোর প্রতিশ্রুতি রক্ষায় যেন তারা সরকারকে বাধ্য করার চেষ্টা করা।

তিনি বলেন, এটা করতে পারলে তা ভবিষ্যতে বৃহত্তর পরিবর্তনের সূচনা করবে। বিক্ষুব্ধ দুটো সপ্তাহ এবং বিশেষ করে ২০মে অক্টোবর রাজধানী লেগোসে বিক্ষোভের ওপর গুলি নাইজেরিয়ার মানুষ হয়তো দীর্ঘদিন মনে রাখবে।

ক্ষমতাসীনরা এখন উদ্বিগ্ন যে বিপুল সংখ্যক এই তরুণ-যুবকদের আকাঙ্ক্ষা-প্রয়োজন অবজ্ঞা করা কতটা বিপজ্জনক। এ ধরনের গণ-আন্দোলন যে সংগঠিত রূপ পাচ্ছে তাও এবার চোখের সামনে উন্মোচিত হয়েছে।

ফেমিনিস্ট কোয়ালিশনের মতো এমন সব নাগরিক সংগঠন এই আন্দোলনে টাকা-পয়সা দিয়ে সমর্থন জুগিয়েছে যাদের নাম আগে তেমন শোনাই যায়নি।

এই বিষয়টি ক্ষমতাসীনদের বিশেষভাবে উদ্বিগ্ন করেছে।

পুলিশের নির্যাতন নিয়ে এই বিক্ষোভ-আন্দোলন নাইজেরিয়ার রাজনীতিকে চিরতরে বদলে দেবে কারণ তরুণ সমাজ বুঝতে পারছে তারা কতটা শক্তিধর, এবং ঐক্যবদ্ধ হলে তারা লক্ষ্য অর্জন করতে সক্ষম।

সূত্র : বিবিসি


আরো সংবাদ

বায়তুল মোকাররমের সামনে ভাস্কর্যবিরোধীদের মিছিলে লাঠিচার্জ (৮৯৮৮)মানুষের মতো দেখলেও তাকে যে কারণে জঙ্গলে ফল-ঘাস খেয়ে থাকতে হয় (৮৫৯৯)রাজধানীতে সমাবেশের অনুমতি পায়নি সম্মিলিত ইসলামী দলগুলো (৭৪২০)ইরানি বিজ্ঞানী হত্যাকাণ্ডের পর এই প্রথম মুখ খুললেন বাইডেন (৭৪১১)কোনো মুসলিম হিন্দু নারীকে বিয়ে করতে পারে কিনা (৬৭৬৫)ভাস্কর্য, মহাকালের প্রেক্ষাপট (৫৬৬১)নাগর্নো-কারাবাখে জয় পেতে কত সৈন্য হারাতে হলো আজারবাইজানকে? (৫৬৫৪)আওয়ামী লীগের আপত্তি, মামুনুল হকের মাহফিল বাতিল (৫০৩৬)নতুন পরমাণু কেন্দ্রে জ্বালানী ঢোকানোর কাজ শুরু করেছে পাকিস্তান (৪২৫০)আঘাত করলে পাল্টা আক্রমণ হবে : ওবায়দুল কাদের (৩২০২)