০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

‘জলবায়ু পরিবর্তন একটি নিরাপত্তাজনিত সমস্যা'

বক্তব্য রাখছেন- পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম। - ছবি : সংগৃহীত

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেছেন, বাংলাদেশ দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে জলবায়ু পরিবর্তন একটি নিরাপত্তাজনিত সমস্যা এবং এটি অবশ্যই জাতিসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে (ইউএনএসসি) নিয়মিত আলোচনা করা উচিত।

মঙ্গলবার রাজধানীতে ‘জলবায়ু কূটনীতি : বাংলাদেশের জন্য সীমাবদ্ধতা এবং পছন্দ’ শীর্ষক হাইব্রিড সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

‘জলবায়ু পরিবর্তনের প্রতিকূল প্রভাবগুলো কমাতে প্যারিস চুক্তির কঠোর বাস্তবায়ন প্রয়োজন’ উল্লেখ করে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধান নির্গমনকারীদের দ্রুত প্রশমন লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করার এটি উপযুক্ত সময়। তিনি আরো বলেন, ক্ষয়-ক্ষতির বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে সমাধান করতে হবে।

‘জলবায়ু কূটনীতি : বাংলাদেশের জন্য সীমাবদ্ধতা এবং পছন্দ’ শীর্ষক হাইব্রিড সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আলম উল্লেখ করেন যে বাংলাদেশ বিশ্ব জলবায়ু কূটনীতিতে একটি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালনকারী।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিআইআইএসএস) মিলনায়তনে এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের সভাপতিত্বে আলম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত আলোচনায় বাংলাদেশ একটি বৈধ কণ্ঠস্বর হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু দুর্বলতার স্থিতিস্থাপকতা থেকে জলবায়ু সমৃদ্ধির পথে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে 'মুজিব জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনা' নিয়েছে দেশ। তিনি বলেন, এটি প্রকৃতপক্ষে জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর জন্য একটি যুগান্তকারী নীতি নির্দেশিকা।

ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইসিসিএডি) পরিচালক প্রফেসর সালেমুল হক বলেছেন, তাদের বুঝতে হবে এবং বিবেচনায় নিতে হবে যে জাতিসঙ্ঘ-সমর্থিত সিওপি, যা বছরে একবার হয়। এটি আর একমাত্র জায়গা নয় যেখানে জলবায়ু কূটনীতি চলে।

তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশ মিশনের প্রতিটি কূটনীতিককে এখন জলবায়ু পরিবর্তনকে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার মূল ইস্যু হিসেবে তৈরি করতে হবে।

বিআইআইএসএস-এর চেয়ারম্যান কাজী ইমতিয়াজ হোসেন বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন ও পরবর্তী হুমকির কারণে জলবায়ু কূটনীতি এখন অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও এ ক্ষেত্রে প্রচেষ্টা বাড়াচ্ছে।

সাবেক রাষ্ট্রদূত হোসেন বলেন, সরকার এখন শুধু মন্ত্রণালয় নয়, বৃহত্তর সমন্বয়ের জন্য এর বিভিন্ন শাখাকেও জড়িত করছে।

উদাহরণ স্বরূপ তিনি বলেন, জাতীয় পর্যায়ে, অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা ২০৪০ সালের পরিপ্রেক্ষিত পরিকল্পনা এবং বিডিপি ২১০০ সবই জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যাগুলোকে প্রধান অগ্রাধিকার হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে।

সেমিনারে কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন সাবেক পররাষ্ট্র সচিব শমসের এম চৌধুরী। বি.বি. আসিসিসএডি উপ-পরিচালক প্রফেসর মিজান আর খান, প্রোগ্রাম বিশেষজ্ঞ (প্রকৃতি, জলবায়ু এবং শক্তি) ইউএনডিপি বাংলাদেশ আরিফ এম ফয়সাল, জলবায়ু পরিবর্তন এবং আন্তর্জাতিক কনভেনশন, পরিবেশ বিভাগ পরিচালক মির্জা শওকত আলী এবং বিআইএসএসের সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. সুফিয়া খানম বক্তব্য দেন।

আলোচনায় সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, রাষ্ট্রদূত ও হাইকমিশনার, সাবেক কূটনীতিক, ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তা, শিক্ষাবিদ, গবেষক, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থী, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ


premium cement