০৩ এপ্রিল ২০২০

৪০ কারাগারের নিরাপত্তাব্যবস্থা আধুনিকায়ন মুখ থুবড়ে পড়েছে

৪০ কারাগারের নিরাপত্তাব্যবস্থা আধুনিকায়ন মুখ থুবড়ে পড়েছে - ছবি : সংগৃহীত

৬৮ কারাগারের মধ্যে ৪০টি কারাগারের নিরাপত্তাব্যবস্থা আধুনিকায়ন করার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তবে হঠাৎ করে প্রকল্পসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা একটি মামলায় কারাগারে থাকায় এর পর থেকে প্রকল্পের কার্যক্রম মুখ থুবড়ে পড়েছে। এর আগে ঢাকা, গাজীপুরের কাশিমপুর, চট্টগ্রাম জেলা কেন্দ্রীয় কারাগারসহ কোনো কোনো কারাগারের নিরাপত্তাব্যবস্থা আধুনিকায়নে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে।
কারা অধিদফতরের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা এ প্রসঙ্গে আশঙ্কা করে বলছেন, ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাথে কারা অধিদফতরের মধ্যে এমওইউ চুক্তি মোতাবেক আট হাজার ৩০০ কারাবন্দীকে প্যারালিগ্যাল সার্ভিস দেয়ার প্রকল্প, ৪০ কারাগারের নিরাপত্তাব্যবস্থা আধুনিকায়নসহ যে ছয়টি সম্ভাব্য অর্জনের টার্গেট হাতে নেয়া হয়েছে সেগুলোর বাস্তবায়ন অনেকটা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়তে পারে।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে এ বিষয়ে জানতে আইজি প্রিজন্স ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশার সাথে যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া যায়।
গতকাল রাতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব এনায়েত উল্লাহ খানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি নয়া দিগন্তকে শুধু বলেন, এ বছরে কারাগারের নিরাপত্তাব্যবস্থা আধুনিকায়নের কোনো কাজই হয়নি। কোনো অগ্রগতি নেই। ২০১৯ সালের জুনের পর থেকে আধুনিকায়নের কাজ কোন কোন কারাগারে সম্পন্ন হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখানে এই প্রজেক্টের যিনি প্রজেক্ট ডিরেক্টর ছিলেন, তিনি তো একটি মামলায় জেলে রয়েছেন। ওই কর্মকর্তার নাম না জানিয়ে তিনি বলেন, তিনি জেলে থাকায় আর কোনো ডেভেলপমেন্ট হয়নি। পরে আর কাউকে দায়িত্বও দেয়া হয়নি বলে জানান তিনি।

কারা অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা বিভাগের মধ্যে গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কারাগারসহ চারটি কারাগার, চট্টগ্রাম বিভাগের চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারসহ কয়েকটি কারাগার, এ ছাড়া ময়মনসিংহ জেলা কেন্দ্রীয় কারাগারসহ হাতে গোনা কয়েকটি কারাগারে নিরাপত্তাব্যবস্থা আধুনিকায়নের কাজ সমাপ্ত হয়েছে। এরমধ্যে ময়মনসিংহ কারাগারে ৪৮টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে।
কারাগার আধুনিকায়ন শুধু সিসি ক্যামেরা স্থাপন কি না জানতে চাইলে কারাগারের ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা গতকাল রাতে নয়া দিগন্তকে বলেন, কারা আধুনিকায়নের মধ্যে সিসি ক্যামেরা ছাড়াও বডি স্ক্যানার, লাগেজ স্ক্যানার, জ্যামারসহ অন্যান্য সরঞ্জাম রয়েছে।

উল্লেখ্য, গতকাল দেশের ৬৮ কারাগারে ৪০ হাজার ৯৪৪ জন ধারণক্ষমতার বন্দীর মধ্যে অবস্থান করছিলেন ৮৭ হাজার ৫৩২ জন। অতিরিক্ত বন্দীদের চাপে কারা কর্মকর্তাদের প্রতিনিয়ত হিমশিম খেতে হচ্ছে।

গত রাতে এ প্রসঙ্গে কারা অধিদফতরের একজন কারাকর্মকর্তা নয়া দিগন্তকে বলেন, কারা আধুনিকায়নের মধ্যে ঢাকা, কাশিমপুরের চারটি কারাগারসহ আরো কয়েকটি কারাগারে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম লাগানো হয়েছে। বিস্তারিত তথ্য পরে জানাতে পারবেন বলে জানান তিনি।


আরো সংবাদ