০৪ আগস্ট ২০২১
`

করোনায় এলিয়েনের মৃত্যু

করোনায় এলিয়েনের মৃত্যু -

ভিন্ন একটি গ্রহে থাকে দুই এলিয়েন। তারা নতুন বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছে। কিন্তু ওদের স্বপ্ন ছিল পৃথিবী নামক গ্রহে ঘুরে দেখার। এই সুন্দর গ্রহে এবার হানিমুনে যাওয়ার ইচ্ছে হয় ওদের। প্রথমে এলিয়েন বলল,
-চলো হানিমুনে আমরা পৃথিবীর দিকে যাই। এলিয়েনি শুনে খুশিতে এলিয়েনকে জড়িয়ে ধরে বলল,
-চলো, আগামীকাল।
পরদিন দু’জনে পৃথিবীর উদ্দেশে রওনা দিলো।
বিকেল হতে না হতে তারা পৃথিবীর আলো দেখতে পেলো। দূর থেকে তারা সমুদ্রসৈকত, নদী আর পাহাড়-পর্বতমালা দেখতে পেলো। এরপর দুই এলিয়েন পাহাড়ে অবস্থান নিলো। সবুজ রঙের গাছপালা দেখে দু’জনে আনন্দ উপভোগ করতে লাগল।
গভীর রাত। চারিদিকে সুনসান নীরবতা। এলিয়েনির খুব খিদে পেয়েছে। দু’জনে আশপাশে খাবার খুঁজতে লাগল। হঠাৎ কিছু ঘরবাড়ি দেখতে পেলো। তারা সামনে এগোতে লাগল। রাস্তার পাশে বৈদ্যুতিক বাল্বের আলোতে দুই এলিয়েনকে খুব সুন্দর দেখাচ্ছে। তারা আরো আনন্দ উপভোগ করতে লাগল। ততক্ষণে গাছ থেকে কিছু ফল দেখে খেয়ে নিলো। গাছের আড়ালে গল্প করতে করতে কখন যে সকাল হয়ে গেল সেদিকে তাদের একদম খেয়াল ছিল না। দিনের আলোয় চারদিকে পথচারীদের আগমন করতে দেখতে পায় তারা। মানুষজন দেখে এলিয়েনি বলে ওঠল,
-দেখছ আমাদের মতো দেখতে কী অপরূপ দৃশ্য! আমার দাদার কাছ থেকে শুনেছি, এই গ্রহে আমাদের মতো দেখতে কিছু জীব বসবাস করে। ওহ! হ্যাঁ, মনে পড়েছে তারা মানুষ।
-তোমার কথামতো ওই পথ দিয়ে যারা হেঁটে যাচ্ছে তারা সবাই মানুষ।
-হ্যাঁ। কিন্তু খুব সাবধানে থাকতে হবে। এরা খুবই বিপজ্জনক!
-বিপজ্জনক কেন?
-এরা স্বজাতির ক্ষতি করতেও একটুও চিন্তা করে না।
-তাই!
গল্প শেষ করে তারা সামনের দিকে এগোতে লাগল। মানুষের বসবাস আর নান্দনিক দৃশ্য দেখে পৃথিবী থেকে যেতে ইচ্ছে করছে না তাদের। লুকিয়ে লুকিয়ে কয়েক দিন পার করল।
পাহাড়-পর্বত, নদী-নালা, সমুদ্র দৃশ্যপট দেখে তাদের খুব ভালো লাগা শুরু হলো। হঠাৎ মানুষের মুখে মাস্ক দেখলো। এলিয়েন আর এলিয়েনি মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিল। ওরা ভাবছে- নাকি তারা আমাদের দেখে ফেলেছে। আর মুখ ঢেকে রেখেছে! এবার তারা মানুষের তৈরি জিনিসপত্রের দিকে নজর দিলো। আরো আনন্দের অনুভূতি বেড়ে গেল দুই এলিয়েনের। হঠাৎ এলিয়েনের স্ত্রী অসুস্থ হয়ে পড়ল। এলিয়েন খুব চিন্তায় পড়ল। কাশি আর গলাব্যথা শুরু হয়ে গেল। একদিন পর আরো অসুস্থ বেড়ে গেল এলিয়েনের স্ত্রীর। তাকে নিয়ে ঘুরতে লাগল। এলিয়েনও অসুস্থ হয়ে পড়ল। এখন দু’জনে অসুস্থ। কী করে তারা নিজেদের গ্রহে ফিরে যাবে।
দু’জনে এখন মানুষের বসবাসের স্থানে মৃত্যু যন্ত্রণায় কাতর হয়ে পড়ে। রাত খুব গভীর। মানুষও দেখা যাচ্ছে না। সকাল হতে হতে দুই এলিয়েনের মৃত্যু হলো। বর্তমানে চলছে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ। পথচারীদের নজরে পড়ল দুইটি নীল রঙের কী যেন দেখা যাচ্ছে। সবাই সামনে এগোতে লাগল। মানুষের মতো গঠন দেখতে গায়ের রঙ নীল। সবাই দৌড়ে পালাতে লাগল। তারা ভেবেছে করোনায় মারা গেছে। ততক্ষণে প্রশাসনের সদস্যরা এসে হাজির। বিশ্বে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার কারণে করোনা দ্বিতীয় ঢেউ রূপ ধারণ করেছে। সবাই এসব মনে করতে লাগল। এরপর ওদের হাসপাতালের দিকে নিয়ে যাওয়া হলো। সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে বসবাস করতে লাগল। মেডিক্যালে ডিএনএ টেস্টে পরীক্ষা করে দেখল। ভিন্ন গ্রহের দুই এলিয়েন। একটা পুরুষ একটা নারী। দুই এলিয়েন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করে। দুই এলিয়েনের মৃত্যুর খবর বিশ্বের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে পড়ল। মানুষ আরো সচেতনতা অবলম্বন করতে লাগল। কোনো এক অজানা আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে পৃথিবীর মানুষ।



আরো সংবাদ